সাতক্ষীরায় চার স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে : পুলিশ সুপার


967 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় চার স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে : পুলিশ সুপার
মে ১৭, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

সেলিম হোসেন ::
আসন্ন পবিত্র মাহে রমজান ও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জেলার আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখার লক্ষে নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জেলা পুলিশের সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশ সুপার মোঃ সাজ্জাদুর রহমান, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি ও দৈনিক কালের চিত্র পত্রিকার সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সদর সার্কেল মেরিনা আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মঈন আলী, তালা সার্কেল আতিকুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সার্ভিস ইন ট্রেনিং রাসেলুর রহমান, সহকারি পুলিশ সুপার হেডকোয়ার্টার হুমায়ন কবির, বিশেষ শাখার পরিদর্শক আজম খান, টিআই মোমিনুর রহমান, ওসি ডিবি আলী আহম্মেদ হাশেমী, ওসি সদর মারুফ আহমেদ। এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, আসন্ন মাহে রমজান ও পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জেলায় যাতে কোন ধরনের অপ্রিতীকর ঘটনা না ঘটে সে জন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে চার স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। রমজান ও ঈদকে সামনে রেখে কতিপয় অসাধূ ব্যবসায়ী অধিক মুনাফা লাভের জন্য যাতে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি না করতে পারে সে বিষয়ও নজরদারী করা হবে। এসময় অপরাধীরা সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি সহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ মুলক কর্মকান্ড যাতে করতে না পারে সেজন্য জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জেলার পৌরসভা, সদর উপজেলা সহ জেলার অন্যান্য উপজেলা গুলোতেও চার স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা বলায় থাকবে। আর এ জন্য জেলার পোষাকধারী পুলিশ, জেলা গোয়েন্দা শাখা, ট্রাফিক শাখা ও জেলা বিশেষ শাখার সাদা পোষাকের পুলিশ সদস্য সার্বক্ষণিক মনিটোরিং করবেন।

জননিরাপত্তা বজায় রাখতে জেলার ব্যাংক, বীমা, বাসটার্মিনাল, শিল্প এলাকা, বাজার, শপিংমল, ঢাকার পরিবহন কাউন্টার, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ হাইয়ে সড়কে পুলিশের অতিরিক্ত টহল, চেকপোষ্ট, পিকেট ডিউটি সহ জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মোবাইল টিম সহ সার্বিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে পুলিশ সদস্যগণ ২৪ ঘন্টা দায়িত্ব পালন করবেন। শহরে বেপরোয়া মটর সাইকেল চালানোর বিষয় পুলিশ সুপার বলেন, যাদের বৈধ কাগজপত্র নেই তাদের কে ইতিমধ্যে পুলিশের হেফাজাতে নেওয়া হচ্ছে। এবং শহরে যারা বেপরোয়া গাড়ি চালাবে তাদের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, জেলায় অপরাধ মুলক কর্মকান্ড এড়াতে পুলিশ রাস্তায় থাকবে যাতে রোযাদাররা নিরাপদে বাসায় ফিরে ইফতার করতে পারে। পৌর এলাকায় অনেকগুলো সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে এর মাধ্যমেও আমরা অপরাধীদের সনাক্ত করার চেষ্টা করছি। জেলা শহরে অতিরিক্ত ব্যাটারী ভ্যান ও ইজিবাইক চলাচলের কারণে সৃষ্ট জানজট দুর করতে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও ডিবি পুলিশের কাছে একটি নম্বর দেওয়া থাকবে সে নম্বরে যোগাযোগ করে সকল প্রকার অভিযোগ জানানো যাবে। জেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখতে মোবাইল কোর্ট অব্যহত থাকবে। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক আব্দুর ওয়াজেদ কচি, সাংবাদিক মমতাজ আমমেদ বাপী, রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী, অসিম বরণ চক্রবর্তী, আসাদুজ্জামান আসাদ, আহসানুর রহমান রাজিব, মনিরুল ইসলাম মনিসহ ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
##