সাতক্ষীরায় জলাবদ্ধতা ও নদী ভাঙ্গনে বিপর্যস্থ জনজীবন, কৃষি ও চিংড়িতে প্রতিবন্ধকতা


135 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় জলাবদ্ধতা ও নদী ভাঙ্গনে বিপর্যস্থ জনজীবন, কৃষি ও চিংড়িতে প্রতিবন্ধকতা
ডিসেম্বর ৩১, ২০২১ কৃষি ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট ::

বর্ষা মৌসুম শেষ শীত মৌসুম চলছে কিন্তু সাতক্ষীরার বিস্তীর্ন এলাকা জলাবদ্ধতার করাল গ্রাসে বিপর্যস্থ। ছয় ঋতুর বাংলাদেশের অন্যতম বর্ষা আমাদের দেশের বাস্তবতায় বর্ষা মৌসুমে ব্যাপক ভিত্তিক বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে, সাতক্ষীরার বাস্তবতায় বৃষ্টিপাত একই প্রকৃতির। কিন্তু জলাবদ্ধতার বিষয়টি অন্য যে কোন জেলা অপেক্ষা সাতক্ষীরা জলাবদ্ধতায় আক্রান্ত। সাতক্ষীরার গ্রাম অঞ্চলের পাশাপাশি শহরের বিভিন্ন এলাকা জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত। জেলা শহরের আবাসিক এলাকার উলে­খযোগ্য অংশ জলাবদ্ধতায় মগ্ন হয়ে পড়ে সেই ধারাবাহিকতা থেমে নেই। পলাশপোলের নিম্ন এলাকা, মধুমাল­ার ডাঙ্গি, কামালনগর, আদালত এলাকার বিপরিত পার্শ্বের আবাসিক এলাকাগুলোতে এখনও পর্যন্ত পানি প্রবাহ। জলাবদ্ধতার কারনে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা বিপন্ন হচ্ছে, নিত্য দিনের জীবনযাপনে ছন্দপতন ঘটছে। সাতক্ষীরা শহরের জীবন যাপনে এবং জলাবদ্ধতার সর্বাপেক্ষা দায়বদ্ধতা তা হলো ড্রেনেজ ব্যবস্থার দুরবস্থা। পানি নিষ্কাশনের যথাযথ ড্রেনেজ ব্যবস্থা অপ্রতুল। শহরের ড্রেনেজ ব্যবস্থা উলে­খযোগ্য অংশ দখলে এবং দুষনে আক্রান্ত। কোন কোন ড্রেন ভূমি দস্যুরা দখলে নিয়েছে। ড্রেনের উপরে অবৈধ স্থাপনাও পানি নিষ্কশন ব্যবস্থায় চরম। প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী প্রতাপনগর পানিতে ভাসছে তো ভাসছে। যে প্রতাপনগর ছিল অর্থনীতিতে, উন্নয়নে এবং সমৃদ্ধিতে এগিয়ে চলা সেই প্রতাপনগরের জীবন যাত্রা চরম ভাবে বিপর্যস্থ। প্রতাপনগরের যে পরিবারটি দুবেলা দুমুঠো ভাত খেয়ে পরম নির্ভরতায় জীবনযাপন করতো সেই পরিবার বর্তমানে ভিক্ষার ঝুড়ি নিয়ে পথে পথে। আর এমনই হয়েছে জলাবদ্ধতার কল্যানে, সাতক্ষীরার বাস্তবতায় জলাবদ্ধতাই কেবল শেষ কথা নয়, নদী ভাঙ্গনের তীব্রতা দিনে দিনে আতঙ্কজনক পরিস্থিতিতে পৌছেছে। খোলপেটুয়া নদীর ভাঙ্গনে কেবল প্রতাপনগর নয়, আশাশুনি উপজেলার বিস্তীর্ন এলাকা পানিতে ভাসছে। বসতবাড়ী জমিজমা এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সহ বহুবিধ প্রতিষ্ঠান নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। সীমান্ত নদী ইছামতির ভাঙ্গনের শেষ নেই। বছরের পর বছর ইছামতি ভেঙ্গেই চলেছে। আর ইছামতি পাড়ের জনজীবনে দুঃখ যেন নিত্য সঙ্গী। দেশের অভ্যন্তরীন নদ নদী ভাঙ্গনের ফল এক ধরনের আর সীমান্ত নদী ভাঙ্গনের প্রভাব ভিন্ন প্রকৃতির সীমান্ত নদী ভাঙ্গন ভূখন্ড বিলীন হয় আর দেশের ভূ-খন্ড হারিয়ে যায়। বিধায় সীমান্ত নদী ভাঙ্গনের ভয়াল রুপ আর ক্ষয়ক্ষতি কঠিন কঠোর সাক্ষী সাতক্ষীরার সীমান্ত পারের জনগোষ্ঠী। ইছামতির পাশাপাশি রায় মঙ্গলের ভাঙ্গন ও শেষ নেই। জলাবদ্ধতা আর নদী ভাঙ্গনের সাথে অবিরাম যুদ্ধরত সাতক্ষীরার জনমানব, জেলার নিম্ন অঞ্চলে জলাবদ্ধতায় নিমজ্জিত। ফসল উৎপাদনে চরম ভাবে ভাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে, সাতক্ষীরা জনমানুষের ভোগান্তীর পাশাপাশি কৃষি উৎপাদনে ও চিংড়ী উৎপাদনেও চরম দুঃসময় পার করছে সাতক্ষীরাকে জলাবদ্ধতা ও নদী ভাঙ্গনের কবল হতে রক্ষা পেতে হবে আর এজন্য সম্ভাব্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে। আর এজন্য অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে, এই মুহুর্তে পরিকল্পনা গ্রহন এবং বাস্তব সম্মত ভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

#