সাতক্ষীরায় জামায়াত-শিবিরের অর্থদাতাদের কোন ছাড় নেই : নবাগত পুলিশ সুপার


1447 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় জামায়াত-শিবিরের অর্থদাতাদের কোন ছাড় নেই : নবাগত পুলিশ সুপার
জুলাই ২৭, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নূরুজ্জামান রিকো ও আশরাফুল আলম :
সাতক্ষীরায় কর্মরত বিভিন্ন অনলাইন, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেছেন জেলার নবাগত পুলিশ সুপার মো: আলতাফ হোসেন। বুধবার বেলা ১১টায় পুলিশ
সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় জেলার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করে নবাগত পুলিশ সুপার বলেন, সাতক্ষীরা জেলায় জঙ্গিবাদের কোন অস্তিত্ব থাকবে না। জামায়াত-শিবিরের লোকজন বর্তমানে আইএস নামে কাজ চালাচ্ছে। এদেশে আইএস বলতে কিছুই নেই। জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীরাই ভিন্নরুপে এদেশে আইএস নামে পরিচালিত হচ্ছে। দেশকে আইএস বানানোর চেষ্টা চলছে। এনিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র চলছে। বিধায় এদের সম্পর্কে সর্তক থাকতে হবে।

নবাগত পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেন বলেন, সাতক্ষীরা জামায়াত-শিবির ও জঙ্গীদেরকে যারা অর্থযোগান দিচ্ছে তাদের রেহায় নেই। ২০১৩ সালে যাদের অর্থায়নে জামায়াত-শিবির চক্র সাতক্ষীরার ১৭ জন প্রগতিশীল মানুষকে হত্যা করেছে তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। শুধু অর্থদাতারা নয়, যারা সাতক্ষীরাকে অশান্ত করে তুলেছিল তাদের আত্মীয়স্বজনকেও শান্তিতে থাকতে দেওয়া হবে না। জামায়াত-শিবির ,জঙ্গী চক্রকে খুঁজে বের করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

13707726_10208550888677450_3220682439039288036_n

তিনি আরও বলেন, সাতক্ষীরার ইসলামি ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতাল, বুশরা হাসপাতালসহ জামায়াত-শিবিরকে যারা অর্থ দিচ্ছে সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি উল্লেখ করে বলেন, সাতক্ষীরা ইসলামি ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতালের নীচে বসেই জামায়াত-শিবির,জঙ্গীরা সকল অপকর্ম করে থাকেন। এসব প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ইতিমধ্যে খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু হয়েছে।

পুলিশ সুপার মাদক ব্যবসায়ীদের হুশিয়ার করে দিয়ে বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের কঠোর
হস্তে দমন করা হবে। কোন অপরাধীকে ছাড় দেওয়া হবে না। যারা বাংলাদেশের জন্মের বিরোধিতা করেছে তাদের কোন অস্তিত্ব সাতক্ষীরায় থাকবে না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, জামায়াত শিবিরকে সমূলে উৎপাটন করা হবে। এজন্য সকলের সহযোগিতা দরকার।

আলতাফ হোসেন বলেন, সাতক্ষীরায় যেসব অবৈধ স্থাপনা রয়েছে তা উচ্ছেদ করে শহরটাকে একটি বাসযোগ্য ও পরিচ্ছন্ন শহরে পরিণত করা হবে। মোড়ে মোড়ে যেসব ট্রাফিক পুলিশ থাকেন তারা যাতে সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন করেন সে ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জেলা শহরের ভিতর যে ট্রাক টার্মিনালটি রয়েছে জানজট নিরসনে তা সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। নসিমন-করিমন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কোন সোভ্য দেশে নসিমন ,করিমনের মতো অসোভ্য জানবাহন চলতে পারে না। বহি:বিশ্বে কোথাও এ ধরণের মানুষ ঘাতক যানবাহন নেই। বিধায় মেইন সড়কে এ ধরনের ঘাতক যানবাহন চলবে কি-না সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

চোরাচালান প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার বলেন, চোরাচালানের সাথে যেসব গডফাদাররা জড়ীত তারা যাতে পুলিশ প্রশাসনের ধারে পাশে না আসতে পারে সে ব্যাপারে পুলিশ সর্বোচ্ছ সর্তক থাকবে। তাদেরকেও ছাড়া হবে না।

মাদকের ব্যাপারে কোন ছাড় দেওয়া হবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিঘ্রই মাদকের বিরুদ্ধে আগের চেয়ে অভিযান আরো কঠোর করা হবে। সর্বপরি তিনি সাতক্ষীরার ২২ লাখ মানুষকে শান্তিতে রাখতে যা যা প্রয়োজন তাই করবেন বলে মিডিয়া কর্মীদের মাধ্যমে সাতক্ষীরাবাসীকে জানান দেন এবং সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, গুটিকয়েক মানুষের জন্য সাতক্ষীরার শান্তিপ্রিয় মানুষ অশান্তিতে থাকবে তা হতে দেওয়া হবে না। তিনি পরিস্কার ভাষায় উল্লেখ করেন, যারা অশান্তি সৃষ্টি করতে চাইবে তারা ও তাদের আত্মীয়স্বজনেরা কেউ বাইরে শান্তিতে থাকবে না।

20160727_141146

মতবিনিময় সভায় জেলার নানা সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর মোদাচ্ছের হোসেন, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আবু আহমেদ, সুভাষ চৌধুরী, কল্যাণ ব্যানার্জি, আবদুল ওয়াজেদ কচি, অরুন ব্যানার্জী, মমতাজ আহমেদ বাপী, হাবিবুর রহমান, আব্দুল বারি, রামকৃঞ্চ চক্রবর্তী, মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল, মোজাফফর রহমান, বরুন ব্যানার্জী, হাফিজুর রহমান মাসুম, গোলাম সরোয়ার, আবুল কাশেম, আব্দুল জলিল, আব্দুস সামাদ, শাহ আলম  প্রমুখ।

পুলিশ কর্মকর্তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারী পুলিশ সুপার আতিকুল হক, সহকারী পুলিশ সুপার সালাহ উদ্দিন, সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি এমদাদ শেখ, ডিআইও -১ মিজানুর রহমান প্রমুখ।

সভায় সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে সংবাদ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে তথ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে পুলিশ বিভাগের সহযোগিতা চাওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে নবাগত পুলিশ সুপার সব ধরনের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন এবং কাজের ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের সহযোগিতা চান।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ জুলাই জেলার ২৪তম পুলিশ সুপার হিসেবে সাতক্ষীরায় যোগদান করেন মোঃ আলতাফ হোসেন। এর আগে তিনি ঝিনাইদাহ জেলায় পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।