সাতক্ষীরায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে যুবলীগ নেতা রাসেল কবির নিহত


7118 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে যুবলীগ নেতা রাসেল কবির নিহত
এপ্রিল ১০, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আলতাফ হোসেন বাবু::
সাতক্ষীরার রাজার বাগান সরকারি কলেজ এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে যুবলীগ নেতা রাসেল কবির (৩৩) নিহত হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে। নিহত রাসেল কবির সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আগরদাঁড়ি ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

তিনি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কুচপুকুর গ্রামের মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে। ২০১৩ সালে জামায়াত-শিবিরের নিক্ষিপ্ত বোমার আঘাতে তার পিতা সিরাজুল ইসলাম নিহত হন।

তার পিতা মারা যাওয়ার পর থেকে সাতক্ষীরা জেলা শহরের রাজার বাগান সরকারি কলেজের পাশে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে আসছিল রাসেল কবির।

রাসেল কবিরের স্ত্রী মুক্তা জানান, রাত সাড়ে ৯ টার দিকে বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল যোগে তারা স্বামী-স্ত্রী শহরের দিকে যাচ্ছিলো। বাড়ি থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে  ২টি মোটর সাইকেলে জামায়াত-শিবিরের ৪জন সন্ত্রাসী তাদের পথরোধ করে রাসেল কবিরের গায়ে পিস্তল ঠেকিয়ে ৪টি গুলি করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যায়।

 

নিহতের চাচা নজরুল ইসলাম জানান, একইভাবে তার ভাই সিরাজুল ইসলামকে দুর্বৃত্তরা ২০১৩ সালের যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্যার ফাঁসির রাতে নিজ বাড়িতে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

এরপর থেকে সিরাজুলের ছেলে কবির সাতক্ষীরা শহরের রাজারবাগান সরকারি কলেজের পাশ্ববর্তী একটি ভাড়াবাড়িতে বসবাস করতো।  জামায়াত-শিবিরের ৪জন সন্ত্রাসী তাদের পথরোধ করে রাসেল কবিরের গায়ে পিস্তল ঠেকিয়ে ৪টি গুলি করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে যায়।

এতে তার শরীরের ৪টি স্থানে গুলিবিদ্ধ হয়। স্থানীয়রা তাকে সাথে সাথেই উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সাতক্ষীরা সদর থানার ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্যা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, যুবলীগ নেতা রাসেল কবির রাতে বাড়ি থেকে শহরের দিকে যাচ্ছিলো। পথিমধ্যে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ এলাকায় পৌছালে দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ করে গুলি ছোড়ে। তার শরীরে পরপর ৪ টি গুলি করা হয়।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করেন। তবে কারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তা তিনি তাৎক্ষণিক ভাবে জানাতে পারেননি।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালে জামায়াত-শিবিরের বোমা হামলায় নিহত রাসেল করিবের পিতা আওয়ামী লীগ কর্মী সিরাজুল ইসলাম নিহত হন। এনিয়ে আদালতে মামলা চলছে। স্থানীয় জামায়াত-শিবির তাদের গ্রামের বাড়ি কুচপুকুরে একাধিক বার বোমা হামলা ও গুলি চালিয়েছে।

এদিকে যুবলীগ নেতা রাসেল কবিরের নিহত হওয়ার খবর শুনে রাসেল কবিরের আত্মীয়-স্বজন ও সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতা-কর্মীসহ  সর্বস্তরের মানুষ এক নজর দেখতে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে ভিড় জমাই।

এসময় রাসেল কবিরের মাতা সুখবানু, স্ত্রী মুক্তা খাতুনসহ নিকট আত্মীয় স্বজনদের কান্নায় সদর হাসপাতাল এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।
##