সাতক্ষীরায় প্রথমবারের মত করোনা রোগি সনাক্ত


3104 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় প্রথমবারের মত করোনা রোগি সনাক্ত
এপ্রিল ২৬, ২০২০ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

॥ এম কামরুজ্জামান ॥

সাতক্ষীরায় এই প্রথমবারের মতো এক করোনা রোগি সনাক্ত হয়েছে। তার নাম মাহমুদুর রহমান সুমন (৩২)। পেশার একজন স্বাস্থ্যকর্মী। তার বাড়ি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামে। তবে সাতক্ষীরা জেলা শহরের উত্তর কাটিয়া এলাকার এক নার্সের বাড়িতে সুমন ভাড়া থাকে। কর্মস্থল যশোর জেলার শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্র থেকে তিনি আক্রান হয়ে সাতক্ষীরাতে এসেছেন বলে জানাগেছে।

আজ রোববার সকালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা পরীক্ষাগারে তার দেহে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। মাহমুদুর রহমান সুমন যশোর জেলার শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্র এর মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট হিসেবে কর্মরত।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশীষ চৌধুরী ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান ‘শার্শা উপজেলা কমপ্লেক্য্রে কর্মকর্তা ডা: ইউসুফ আলীর সাথে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে স্বাস্থ্যকর্মী মাহমুদুর রহমান সুমন করোনায় আক্রান্ত। তার নমুনা রিপোর্ট পজেটিভ। আজ বেলা দেড়টার দিকে সুমনের বাড়ির ৫ সদস্যকে লকডাউন করা হয়েছে। বাড়ির মালিক ও তার পরিবারকে একই ভাবে লকডাউন করা হয়েছে’।

যশোরের শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: ইউসুফ আলী জানান ‘ মাহমুদুর রহমান সুমন শার্শা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্র এর কর্মী। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শনিবার তার শরীরের নমুনা পাঠানো হয়। রোববার করোনা পরীক্ষাগার থেকে পাঠানো রিপোর্টে জানাগেছে স্বাস্থ্যকর্মী মাহমুদুর রহমান সুমনের করোনা ভাইরাস রিপোর্ট পজেটিভ। সুমন বর্তমানে সাতক্ষীরাস্থ বাড়িতে অবস্থান করছেন’।

এদিকে স্বাস্থ্যকর্মী মাহমুদুর রহমান সুমন মুঠো ফোনে ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান ‘আমি সাতক্ষীরা জেলা শহরের উত্তর কাটিয়া এলাকার এক নার্সের বাড়িতে ভাড়া থাকি। ভাড়া বাসা থেকে প্রতিদিন শার্শাতে গিয়ে অফিস করি। দুই দিন আগে শার্শা স্বাস্থ্য মকপ্লেক্য্রের অপর এক সহকর্মীর করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ওই সহকর্মীর সংস্পর্শে থাকায় তার শরীরের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়। আমার স্যার শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্রের কর্মকর্তা ডা: ইউসুফ আলী রোববার সকালে আমাকে মুঠো ফোনে জানান আমার করোনা রিপোর্ট পজেটিভ। স্ত্রী, এক ছেলে ও বাবা,মাকে নিয়ে আমি বসবাস করি। দুপুরে সাতক্ষীরা উপজেলা প্রশাসন আমার বাসাবাড়ি লকডাউন করেছে। তিনি আরও বলেন, তার শরীরে কোন জ্বর, সর্দি, কাশি বা শ্বাসকষ্ট নেই। শরীরে করোনার তেমন কোন উপসর্গ আমি বুঝতে পারচ্ছি না’।

এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডা: হুসাইন শাফায়াতকে কয়েক দফায় ফোন দিলে তিনি তা রিসিভি করেননি।

#