সাতক্ষীরায় বিএনপি’র অধিকাংশ চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারে নামতে পারছেনা


385 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় বিএনপি’র অধিকাংশ চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারে নামতে পারছেনা
মার্চ ১২, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আসাদুজ্জামান :
আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সাতক্ষীরায় আওয়ামী লীগ মনোনিত দলীয় প্রার্থীরা জোরে শোরে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় অংশ নিলেও আতংকে রয়েছেন বিএনপি’র প্রার্থীরা। সরকার দলীয় প্রার্থীদের প্রতিনিয়ত হুমকি-ধামকিতে বিএনপি প্রার্থী ও তার কর্মী সমর্থকরা সঠিক ভাবে নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে পারছেনা। জেলার অধিকাংশ ইউনিয়নে বিএনপি’র প্রার্থীদের বাড়ি ঘরে হামলা, প্রচার মাইক ভাংচুর, পোষ্টার ছিড়ে ফেলা, কর্মী-সমর্থকদের মারপিট ও হুমকি-ধামকি অব্যহত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকার রির্টানিং অফিসারের কাছে অভিযোগ দিলে ও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। ফলে নির্বাচনের সুষ্ট পরিবেশ নিয়ে সংকিত হয়ে পড়েছেন বিএনপি নেতারা।

আশাশুনি উপজেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক ও বিএনপি মনোনিত আনুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী রুহুল কুদ্দস জানান, আ’লীগ দলীয় প্রার্থী আলমগীর আলম লিটনের হুমকি-ধামকিতে তার কর্মী-সমর্থকরা নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে পারছে না। এলাকায় ধানের শীষের পোষ্ঠার টানালে তা ছিড়ে ফেলা হচ্ছে। কেউ পোষ্টার নিয়ে গেলে তাকে মারপিট করা হচ্ছে। ধানের শীষের পোষ্টার টানানোর অপরাধে রোববার বিকালে আনুলিয়া হাজী মার্কেট এলাকায় তার দুই কর্মী জাহাঙ্গীর ও হাফিজুলকে বেদম মারপিট করেছেন লিটন ও তার লোকজন। লিটনের ব্যবহৃত শর্টগানের বাট দিয়ে তাদের দু’জনের বুকে ও পিটে আঘাত করা হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের দু’জনকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া বিএনপি’র লোকজনেকে ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়া হচ্ছে। ভোট কেন্দ্রে গেলে তাদেরকে গুলি করা হবে বলে প্রকাশ্যে ঘোষনা দিয়েছেন লিটন। তার লোজনের অনেকের বাড়ি ঘর ভাংচুর করারও হুমকি দিচ্ছেন লিটন ও তার বাহিনীর লোকজন। প্রচারে অংশ নিতে তাকেও ইউনিয়নে ঢুকতে দেয়া হবে না বলে হুমকি দিচ্ছেন তিনি।

এদিকে একই অভিযোগ করেছেন শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের বিএনপি মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুল আলম। তাকে বাবার পৈত্রিক সব সম্পত্তি বিক্রি করে ইউনিয়ন ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছেন আ’লীগ মনোনতি প্রার্থী জি এম আলী আজম টিটো ও তার বড় ভাই গাবুরা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি সফিউল আযম লেনিন। নির্বাচনী আচারণ বিধি লংঘনের পাশাপাশি বিএনপি’র প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় বাধাসৃষ্টি করে নির্বাচনী কার্যক্রম থেকে বিরত রাখতে তাকে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়া। মাসুদুল আলম আরো বলেন, কোন লোকের বাড়ির সামনে ধানের শীষের প্রথীকের পোষ্টার টানানো থাকলে তার বাড়ি ঢ়র ভাংচুর করা হচ্ছে। এলাকায় ভাড়ায় চালিত মটর সাইকেল ও বাই  সাইকেল চালকদেরকে নৌকা প্রতীক চলাচল করতে বাধ্য করা হচ্ছে। টিটু ও তার ভাই লেনিন ঘোষনা দিয়ে বলছেন যে, কোন লোককে বুথের মধ্যে গিয়ে ভোট দিতে হবে না, তাকে প্রকাশ্যে টেবিলের উপর ব্যালট রেখে নৌকা প্রতীকে ছিল মারতে হবে। এর ব্যাত্যয় হলে তাকে দেখে নেয়া হবে বলে হুমকি দেয়া হচ্ছে। এঘটনার প্রতিকার চেয়ে তিনি গত রোববার সংশ্লিষ্ট রির্টানিং অফিসার শ্যামনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অপরদিকে গত বৃহস্পিতবার বিকালে প্রচারের সময় সদর উপজেলার আলীপুর ইউনিয়নে বিএনপি মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রউফের প্রচার মাইক ভাংচুর করেছে আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী মশিউর রহমানের লোকজন। একই ভাবে বল্লী ইউনিয়নের বিএনপি মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মহিতুল ইসলামকে নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর হুমকি দিচ্ছেন আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী বজলুর রহমান ও তার লোকজন। মারপিট করার প্রতিনিয়ত হুমকিতে বিএনপি প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে পারছে না। একই উপজেলার ধুলিহর ইউপি’র বিএনপি মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোদাচ্ছেরুল হক হুদাকেও একই ভাবে হুমকি-ধামকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। সম্প্রতি তাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করেছে আ’লীগ দলীয় প্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু সানা। এঘটনায় হুদা আ’লীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মিজানুর রহমান বাবু’র বিরুদ্ধে থানায় সাধারন ডায়েরী করতে গেলে নেয়নি পুলিশ। এধরনের ঘটনা জেলা প্রায় অধিকাংশ ইউনিয়নে ঘটছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতারা।

তালা উপজেলার ধানদিয়া ইউনিয়নের বিএনপি দলীয় প্রার্থী জাহাঙ্গির আলম অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী সন্তোষ কুমার বিশ্বাস প্রতিনিয়ত হুমকী দিচ্ছে। পোষ্টার ছিড়ে ফেলছে। ভোটের দিন ভোট ব্যালট ছিনতাই এর জন্য এলাকায় এলাকায় কমিটি গঠন করছে। ইসলামকাটি ইউনিয়নে একই ভাবে বিএনপি দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীকে নানা ভাবে হুমকী দিচ্ছে আ’লীগ দলীয় প্রার্থী।

সাতক্ষীরা জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলিম জেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী কর্তৃক  বিএনপি মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তাদের লোকজনদের হুমকি-ধামকি দেয়ার ঘটনা স্বীকার করে বলেন, তিনি নিজে সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নে বিএনপি’র দলীয় চেয়রম্যান প্রার্থী। এই মূহুর্ত্বে তিনিও প্রচন্ড চাপের মধ্যে আছেন। আ’লীগ প্রার্থী ও তার লোকজন তার (আলিম) নির্বাচনী প্রচারে দারুন ভাবে বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করছেন।