সাতক্ষীরায় বিভিন্ন দাবিতে আদিবাসী মুন্ডাদের সভা


107 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় বিভিন্ন দাবিতে আদিবাসী মুন্ডাদের সভা
ডিসেম্বর ২, ২০১৯ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল আলম মুন্না ::

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আর্থিক সহায়তায় এবং কাপেং ফাউন্ডেশনের সার্বিক সহযোগীতায় সুন্দরবন আদিবাসী মুন্ডা সংস্থা (সামস্) এর আয়োজনে সাতক্ষীরা বিভিন্ন দাবিতে জেলা পর্যায়ে এক অধিপরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১০ সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজ সম্মেলন কক্ষে সভায় সভাপতিত্ব করেন সামস এর কার্যকরী পরিষদের সভাপতি গোপাল চন্দ্র মুন্ডা ।
সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস, এম মোস্তফা কামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন উন্নয়ন সংগঠন প্রগতি’র পরিচালক অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী, স্বদেশ এর নির্বাহী পরিচালক মাধব চন্দ্র দত্ত।
সামস এর সহ-সভাপতি রাম প্রসাদ মুন্ডার সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হেড সংস্থার নির্বাহী পরিচালক লুইস রানা গাইন, বরসা’র সহকারী পরিচালক মোঃ নাজমুল আলম মুন্না ও সাংবাদিক ফারুক রহমান। উক্ত অধিপরামর্শ সভায় শ্যামনগর ও তালা উপজেলার আদিবাসী মুন্ডা নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন । সামস এর নির্বাহী পরিচালক কৃষ্ণপদ মুন্ডা শুভেচ্ছা বক্তব্য মাধ্যমে সাতক্ষীরা জেলায় বসবাসরত আদিবাসী মুন্ডাদের পূর্বের ও বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করে এবং তাদের সকল সমস্যা তুলে ধরেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক এস,এম মোস্তফা কামাল বলেন আমি ব্যক্তিগত ভাবে অনেক খুশি এই অনুষ্ঠানে আসতে পেরে। কারণ আমি এই অঞ্চলের ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা ও সংস্কৃতির সমস্যা, ভূমি সমস্যা এবং বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানতে ইচ্ছুক। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্বৃতি দিয়ে বলেন দেশের সকল ক্ষেত্রে তার যেমন নজর রয়েছে। দেশের সকল মানুষকে নিয়ে তিনি ভাবেন এবং সকলকেই উন্নয়ন এর আওতায় আনতে আগ্রহী। তেমনি আমিও কোন জাতি, ধর্ম বা গোষ্ঠিকে আলাদা ভাবে দেখিনা। সবাইকে আমি সমান ভাবে দেখি। শুধু মুন্ডা নয় এলাকায় বসবাসরত সকল নৃ-গোষ্ঠীর মানুষদের জানা ও বোঝার জন্য আগ্রহ রয়েছে আমার অনেকদিন যাবদ। এই এলাকার পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে প্রয়োজন সকলের একান্ত সহযোগীতা। মুন্ডারা যেখানে বসবাস করে তাদের জন্য আলাদাভাবে জমি ও উন্নয়ন প্রকল্প করতে হবে। এজন্য মুন্ডাদের একত্রিত এবং সংঘবদ্ধ হতে হবে তাদেও প্রকৃত সংস্কৃতি তুলে ধরতে হবে। তিনি আরও বলেছেন সামনে ২০২০ সালের ১০ জানুয়ারী থেকে দেশে মুজিববর্ষ উদযাপনের ক্ষণগণনা আরম্ভ হবে। সেজন্য সাতক্ষীরাকে অন্যভাবে সাজানো হবে। কেন্দ্রীয় এবং জেলার সকল কর্মসূচীর পাশাপাশি সেখানে মুন্ডাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে উপস্থাপন করা হবে এজন্য আপনারা প্রস্তুতি গ্রহন করুন। তাহলে মুন্ডা ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠীর জনগণের প্রকৃত তথ্য বাংলাদেশসহ সারাবিশ্ব জানতে পারবে। আপনারা যারা এসব পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠী নিয়ে কাজ করেন তাদের সকলের সহযোগীতায় এবং সকলে মিলে একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করুন। মুন্ডা নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার অবস্থা, ভূমির অবস্থা, নারী-শিশুর সমস্যা, ভালভাবে জানার জন্য আমি অনুরোধ করব পরিকল্পনা সভার আয়োজন করতে। এছাড়াও তিনি বলেন আপনাদের যেসব সমস্যা সমুহ রয়েছে সেগুলো জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের সাথে আলোচনা করা প্রয়োজন। এজন্য মুন্ডা নৃ-গোষ্ঠীর জনগোষ্ঠীকে প্রধান ভূমিকা পালন করতে হবে। আপনাদের সংস্কৃতি আপনাদের ধরে রাখতে হবে। বিশেষ করে মুন্ডা নৃ-গোষ্ঠীর মানুষ যেসব খাস জমিতে ভোগদখলীয় অবস্থায় আছে সেসব খাস জমি যাতে তারা পেতে পারে সেজন্য আমি আলাদা প্রকল্পের ব্যবস্থা গ্রহণ করব।
উক্ত অধিপরামর্শ সভায় আদিবাসী মুন্ডাদের পক্ষ থেকে বক্তব্য প্রদান করেন তারাপদ মুন্ডা, রুমা মুন্ডা, অসিত মুন্ডা, জয় মুন্ডা, রতিকান্ত মুন্ডা ও রামপ্রসাদ মুন্ডা প্রমুখ।

#