সাতক্ষীরায় বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত


282 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
অক্টোবর ১৭, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল আলম মুন্না, সাতক্ষীরা :
সবার জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ও পুষ্টি চাই এই শ্লোগানকে ধারন করে রবিবার সকাল এগারোটায় মিশন হলরুম সাতক্ষীরায় এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্বদেশের নির্বাহী পরিচালক মাধব চন্দ্র দত্তের সঞ্চালনায় এবং চুপড়ীয়া মহিলা সমিতির সভনেত্রী মরিয়ম মান্নানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শেখ আজহার হোসেন ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর মোঃ আব্দুল হামিদ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উন্নয়ন সংগঠন ক্রিসেন্টের নির্বাহী পরিচালক আবু জাফর সিদ্দিকী, সিডোর নির্বাহী পরিচালক শ্যামল বিশ্বাস, বাংলাদেশ মহিলা সাতক্ষীরা জেলা শাখার সম্পাদক জ্যোৎস্না দত্ত, জিডিএফ সভানেত্রী ফরিদা আক্তার বিউটি ও নারী নেত্রী খুরশিদ জাহান শিলা প্রমুখ।
আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি বলেন মানুষের পাচটি মৌলিক চাহিদার মধ্যে খাদ্য চাহিদা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তবে এই খাদ্য হতে হবে নিরাপদ ও পুষ্টিকর। বর্তমান সরকার খাদ্য নিরাপত্তা এবং  খাদ্য নিশ্চিত করার জন্য কৃষিখাতে অনেক বেশি ভুর্তকি দিয়ে বর্তমানে দেশ খাদ্যে সয়ংসম্পুর্নতা অর্জন করেছে এটা সম্ভব হয়েছে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর একান্ত প্রচেষ্টার ফলে। তার প্রবল ইচ্ছাশক্তি ও আন্তরিকতার জন্য বর্তমানে দেশের খাদ্য চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করা হচ্ছে। এটা আওয়ামী লীগ সরকারের সবচেয়ে বড় সফলতা।  আমাদের খাদ্যাভাসে শাক-সবজি, ফল-মূল ছাড়াও স্বল্পমূল্যে খাবারে অনেক বেশি পুষ্টি রয়েছে কিন্তু আমরা এগুলো বাদদিয়ে অপুষ্টকর খাবারের পিছনে দৌড়াই। অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা সাংবিধানিক নির্দেশনা, রাষ্ট্রের বিবিধ অঙ্গিকার, বর্তমান সরকারের ভিশন 2021, এসডিজি এবং সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা ঘোষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর বক্তব্য বাস্তবায়নে সবার জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারে “খাদ্য অধিকার আইন” সে লক্ষ্যে সর্বস্থরের জনসাধারনের পক্ষে নীতিনির্ধারকদের প্রতি তিনটি দাবি আহবান করেছেন অবিলম্বে সরকারী উদ্যোগে খাদ্য অধিকার আইন প্রণয়নের পদক্ষেপ গ্রহন,  খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রনালয়ের সমন্বয়ে আইন প্রণয়ন নিশ্চিত করা এবং আইন প্রণয়নে জনপ্রতিনিধি,সরকারী কর্মকর্তা ও নাগরিক সমাজসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের প্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করা।