সাতক্ষীরায় ব্রিটেনের চিকিৎসক দল : বিনা খরচে ছয় দিনের মাতৃস্বাস্থ্য সেবা দান করবেন


484 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ব্রিটেনের চিকিৎসক দল : বিনা খরচে ছয় দিনের মাতৃস্বাস্থ্য সেবা দান করবেন
জানুয়ারি ৩১, ২০১৬ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
বিনা খরচে নিরাপদ প্রসব ও মাতৃস্বাস্থ্য সেবা দিতে ব্রিটেনের চার সদস্যের একটি চিকিৎসক প্রতিনিধি দল এখন বাংলাদেশে। তারা ছয় দিন ব্যাপী সাতক্ষীরার বিভিন্ন স্থানে ব্রিটেনের চিকিৎসা ও বাংলাদেশের চিকিৎসার অভিজ্ঞতার বিনিময় করবেন। এসময় তারা গর্ভধারিনী মায়ের সিজারিয়ান হার কমিয়ে আনার ব্যাপারেও পরামর্শ দেবেন।

রোববার সন্ধ্যায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এই তথ্য প্রকাশ করেন চিকিৎসক দলটির নেতা ড. রেহানা ইয়াসমিন জামান। তিনি লন্ডনের কোলচেস্টার ইউনিভার্সিটি হসপিটালের একজন চিকিৎসক এবং রয়্যাল কলেজ অফ গাইনোকোনলজিস্ট বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের চেয়ারপারসন।  এর আগে সাতক্ষীরার বিশিষ্ট চিকিৎসক সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডা. আফতাবুজ্জামান তাদের সাথে সাংবাদিকদের পরিচয় করিয়ে দেন। এসময় তার সফরসঙ্গী হিসাবে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধান মিড ওয়াইফ নিকোলি স্টিভেনসন (ঘরপড়ষব ঝঃবাবহংড়হ), টেরি ফলার (ঞবৎৎর ঋড়ষিবৎ) এবং সার্লট গিয়ারিং (ঈযধৎড়ষষঃব এবধৎরহম) ও কারুনিটা ইনভেস্টমেন্ট এডভাইসার্সের ডিরেক্টর মো.কামরুজ্জামান রাসেল।
ড. রেহানা ইয়াসমিন জামান জানান, সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিনা খরচে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে তার দল সাতক্ষীরায় এসেছে। এবারই শেষ নয়, পরে আরও কর্মসূচি দিয়ে  তারা  বাংলাদেশে মাতৃত্বজনিত সেবা দিতে চান  বলে উল্লেখ করেন তিনি। তিনি বলেন  ব্রিটেনে কোন হাসপাতালে শতকরা ২৫ শতাংশের বেশী গর্ভধারিনীর সিজারিয়ান অপারেশন করার নিয়ম নেই। এর ব্যতিক্রম হলে ডাক্তারদের কারন দর্শানোর নোটিশের জবাব দিতে  হয়।

বাংলাদেশে গর্ভধারিনীর সিজারিয়ানের সংখ্যা শতকরা ৭৫ ভাগের কম নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন ব্রিটেনে গ্রামে ও শহরের সব মায়েরাই একই মানের  সেবা লাভ করে  থাকেন। তিনি জানান প্রসবকালীন চিকিৎসার জন্য প্রাথমিকভাবেই অভিজ্ঞ মিড ওয়াইফরাই রোগীর ধরন নির্ধারন করেন। পরে তিনিই সিদ্ধান্ত দেন এ রোগীর ক্ষেত্রে  নি¤œ নাকি উচ্চ মাত্রার ঝুঁকি রয়েছে। সে অনুযায়ী মিড ওয়াইফরাই ব্যবস্থা গ্রহন করেন উল্লেখ করে ড. ইয়াসমিন জামান আরও বলেন, মাতৃ ও শিশুমৃত্যু রোধে আরও কি কি ব্যবস্থা নেওয়া যাবে সে ব্যাপারেও তারা পরামর্শ দিতে চান। নিরাপদ ডেলিভারি নিশ্চিত করার জন্য আরও কি কি ব্যবস্থা নেওয়া  প্রয়োজন সে বিষয়ের ওপরেও আলোকপাত করেন তিনি। তিনি বলেন বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ ধরনের চিকিৎসা সেবা দেওয়ার জন্য তারা ব্যক্তিগত উদ্যোগে একটি তহবিল গঠন করার চেষ্টা করছেন। এই তহবিলের ওপর ভিত্তি করেই বিনা খরচে এ ধরনের চিকিৎসা সেবা ধারাবাহিকভাবে চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। সাতক্ষীরায় তারা মিড ওয়াইভস , ডাক্তার ,  ও মেডিকেল কলেজ ছাত্রদের সাথে অভিজ্ঞতা বিনিময় করবেন।
আজ সোমবার সাতক্ষীরা, কলারোয়া ও তালা হাসপাতাল, পরদিন সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ডা. মাহতাব উদ্দিন মেমোরিয়াল হাসপাতাল  এবং পর্যায়ক্রমে দেবহাটা, নলতা মাতৃসদন ও শ্যামনগরে মাতৃ স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার কর্মসূচি ঘোষনা করেন তিনি।
ড. রেহানা আরও বলেন বাংলাদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে বিনা খরচে চিকিৎসা সেবা  এবং উপযুক্ত পরামর্শ দেওয়ার মানসিকতা নিয়েই এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন তিনি। শুধুমাত্র ব্যক্তিগত উদ্যোগ ছাড়া এর সাথে অন্য কোন বিষয় জড়িত নেই মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমরা চিকিৎসা সেবায় দুই দেশের অভিজ্ঞতার বিনিময় করতে এসেছি মাত্র। বাংলাদেশের মাতৃস্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক  শিক্ষা আমরা গ্রহন করতে চাই। একই সঙ্গে ব্রিটেনের শিক্ষাও বাংলাদেশের প্রত্যন্ত গ্রামে পৌঁছে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য’। তিনি বিনা কারনে সিজারিয়ান না করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে আরও বলেন, ‘স্বাভাবিকভাবে মায়ের প্রসব করানো ভালো’। এজন্য প্রয়োজনীয়  পরামর্শও দেবেন তারা।
অনুষ্ঠানে ডা. আফতাবুজ্জামান বলেন, ব্রিটেনের ডাক্তার ও মিডওয়াইফদের এই উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। নিজ উদ্যোগে এবং ব্যক্তিগত খরচে বাংলাদেশকে এ ধরনের চিকিৎসা সেবা দেওয়ায় ধন্যবাদ জানান তিনি। মত বিনিময় সভায়  আরও বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, সাধারন সম্পাদক এম কামরুজ্জামান ও ব্রিটিশ দলের সমন্বয়কারী মোঃ কামরুজ্জামান রাসেল। এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ডা. রেহানা।