সাতক্ষীরায় ভূয়া দাতা সাজিয়ে বৃদ্ধের ৪৫ শতক জমি আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন


419 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ভূয়া দাতা সাজিয়ে বৃদ্ধের  ৪৫ শতক জমি আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন
আগস্ট ২৭, ২০১৫ তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরায় ভূয়া দাতা সাজিয়ে জাল দলিল সৃষ্টির মাধ্যমে এক বৃদ্ধের ৪৫ শতক জমি আত্মসাতের চেষ্টা করছে একটি স্বার্থন্বেসী মহল। বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন জেলার পাটকেলঘাটা থানার কাপাশডাঙ্গা গ্রামের মৃত বুধই বাছাড়ের ছেলে বিনয় বাছাড়।
সংবাদ সম্মেলনে বিনয় বাছাড় বলেন, পাটকেলঘাটা থানার নগরঘাটা মৌজার জে,এল নং-১৫, এস,এ ১৩৮২, ৯৯৪ ও ১৩৬১ খতিয়ানের হাল-১২৪৫০ দাগসহ মোট ১১ দাগে ৪৫ শতক জমির মালিক তিনি নিজে। আর্থিক অনাটনের কারনে উক্ত জমি বিক্রির জন্য তিনি দুই ভাই ফটিক বাছাড় ও প্রফুল্ল বাছাড়ের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা গ্রহণ করেন। কিন্তু শারীরিক অসুস্থ্যতার কারনে জমি লিখে দিতে না পেরে তিনি চিকিৎসার জন্য দ্রুত ভারতে চলে যান। বর্তমানে তিনি স্থায়ীভাবে ভারতে বসবাস করছেন। সেই সুযোগে উক্ত জমি আত্মসাতের লক্ষ্যে সদর উপজেলার বিনেরপোতা গ্রামের অশ্বিন মন্ডলের ছেলে গৌতম মন্ডল গ্রহিতা হিসাবে তার নাম (বিনয় বাছাড়)  ব্যবহার করে আইডি নং ছাড়াই ভূয়া জন্ম নিবন্ধন কার্ড নিয়ে ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারী “চিটিং বাই ফলস পার সোনেশানে” তালার ইসলামকাটি সাবরেজিস্ট্রি অফিসে ৫৯১ নং একটি জাল দলিল সৃষ্টি করে। ভারতে অবস্থান করায় তিনি ইসলামকাটি সাবরেজিস্ট্রি অফিসে যাননি ও কোন কাগজে স্বাক্ষর বা টিপসহিও দেননি। উক্ত জমি তার দুই ভাই পাবে। জাল দলিলের বিষয়টি জানতে পেরে তার ভাই ফটিক বাছাড় ও প্রফুল্ল বাছাড়  সাতক্ষীরা যুগ্ম জজ-১, আদালতে দেং ৪০/১৫ নং মামলা করেছেন। গৌতম মন্ডল জাল দলিল বুনিয়াদে উক্ত সম্পত্তি নামপত্তন করার জন্য পাটকেলঘাটা সহকারি কমিশনার (ভূমি) অফিসে ১০৩৮ /১৪-১৫ নং একটি নামপত্তন কেস করেছে। যার বিরুদ্ধে তার ভাইরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এখবর জানতে পেরে তিনি নিজে পাসপোর্টে বাংলাদেশে এসে লিখিত বক্তব্য, পাসপোর্টের ফটোকপি ও ছবি সহকারি কমিশনারের কাছে জমা দিয়েছেন। এঘটনা জানতে পেরে জাল দলিল সৃষ্টিকারি গৌতম ও তার লোকজন তাকেসহ ভাইদের নানাভাবে হুমকি ধামকি ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। গৌতম ও তার সহযোগিরা উক্ত জমি দখলের পায়তার করছে। ফলে তিনি নিজে ও ভাইদের পরিবারের সদস্যরা বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। যে কোন মূহুর্ত্বে তাদের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে।
তিনি জাল দলিল সৃষ্টিকারির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের পাশাপাশি নিজেরা যাতে আইনি প্রতিকার পেতে পারেন সেজন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, এনএস আই কর্মকর্তা ও পুলিশে আইজিসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে বিনয় বাছড়ের পক্ষে  লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান এ্যাডঃ কিনু কৃষ্ণ বাছাড়।