সাতক্ষীরায় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অভিনব কৌশলে মোবাইলে উত্তর জেনে নেওয়ার অপরাধে ২ প্রার্থীর কারাদন্ড !


470 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অভিনব কৌশলে মোবাইলে উত্তর জেনে নেওয়ার অপরাধে ২ প্রার্থীর কারাদন্ড !
অক্টোবর ১৬, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরায় সরকারি প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অভিনব কৌশলে উত্তর জেনে নেওয়ার অপরাধে ২ প্রার্থীকে সাজা দিয়ে তাদেরকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে ১ জনকে ১৫ দিনের এবং অপরজনকে ৩ দিনের সাজা প্রদান করে ভ্রম্যমান আদালতের সংশ্লিষ্ট বিচারক। শুক্রবার শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা চলাকালে তাদেরকে সাজা প্রদান করা হয়।

জানাগেছে, বোরকা পরা দুই মহিলা প্রার্থী বোরকার ভিতর অভিনব কৌশলে মোবাইল ফোন নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করেন। কেন্দ্রের কর্তব্যরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদেরকে ধরে ফেলে। এ সময় মোবাইল ফোনে অভিনব কৌশলে উত্তর জেনে নেওয়ার অপরাধে দুই মহিলাকে আটক করা হয়। পরে তাদের একজনকে ১৫ দিনের, অপর জনকে ৩ দিনের সাজা প্রদাণ করে ভ্রাম্যমান আদালতের সংশ্লিষ্ট বিচারক।

সাতক্ষীরা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের দায়িত্বশীল সূত্র, দুই মহিলা প্রার্থীর সাজার বিষয়টি নিশ্চিত করলেও তাদের নাম-ঠিকানা জানাতে অস্বীকৃতি জানান।

প্রায় প্রতিবারই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় একই পন্থা অবলম্বন অনেক প্রার্থী এভাবে পরীক্ষা দিয়ে থাকেন। আর এদের পিছুনে  প্রভাবশালী একটি চক্র রয়েছ।  চিহ্নিত ওই চক্রটি কৌশলে উত্তর বলে দেওয়ার নাম করে লাখ লাখ টাকা আদায় করে থাকেন। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এবার বোরকা পরার নামে মুখ ঢেকে কোন মহিলা প্রার্থীকে পরীক্ষা দিতে দেয়নি। পরীক্ষা শুরুর আগে থেকেই জেলা প্রশাসন প্রার্থীদেরকে পরীক্ষার হলে মুখে কাপড় না বাঁধার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন।

তথ্যানুসন্ধানে জানাগেছে, এবারও চিহ্নিত ওই চক্রটি সক্রিয় ছিল। এই চক্রের মূলহুতা বা নেতৃত্বে রয়েছেন রেজাউল নামের একজন বেসরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, শাহিন নামের সরকারি কলেজের একজন শিক্ষক ও জেলা শহরের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন প্রধান শিক্ষিকা।

দীর্ঘদিন যাবত ওই চক্রটি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র দেওয়া এবং প্রশ্নের উত্তর কৌশলে বলে দেওয়ার নাম করে লাখ লাখ টাকার বানিজ্য করে আসছে। বিগত শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় একই ঘটনা ঘঠিয়েছে বলে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

তবে এবার সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপের কারণে প্রতারক চক্রটি তেমন সুবিধা করতে পারেনি। শক্তিশালী ওই চক্রটি এবারও পরীক্ষার আগে একাধিক প্রার্থীর কাছ থেকে প্রতিবারের ন্যায় প্রায় কোটি টাকা কৌশলে হাতিয়ে নিয়েছে বলে জানাগেছে। কিন্তু এবার প্রার্থীদের কোন সুযোগ দিতে না পারায় ওই টাকা ফেরত দিতে তারা বাধ্য হচ্ছেন। নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র বিষয়টি জানিয়েছে।