সাতক্ষীরায় শিশু নির্যাতনের ঘটনায় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট নূরুল ইসলামের বিচারিক ক্ষমতা প্রত্যাহার


640 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় শিশু নির্যাতনের ঘটনায় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট নূরুল ইসলামের বিচারিক ক্ষমতা প্রত্যাহার
আগস্ট ২০, ২০১৫ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরায় শিশু নির্যাতনের অভিযোগে দেবহাটা আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলামের বিচারিক ক্ষমতা প্রত্যাহার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে তার বিচারিক ক্ষমতা থেকে প্রত্যাহার করা হয়। সাতক্ষীরা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিতাই চন্দ্র সাহা এ খবরটি নিশ্চিত করেছেন।
সাতক্ষীরা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিতাই চন্দ্র সাহা ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলামের বাসা থেকে শিশু উদ্ধার ঘটনার বিষয়ে আইন মন্ত্রনালয়ের সচিবসহ সংশিষ্ট দপ্তরে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার আদালতে কয়েকটি কেস করার পর বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনা করা থেকে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট মো: নূরুল ইসলামকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। তার স্থলে অন্য একজন ম্যাজিস্টেটকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এদিকে, উদ্ধার করা শিশু বিথীকে নির্যাতনের বিষয় নিয়ে টিভি চ্যানেল ও পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত খবরকে অতিরঞ্জিত উল্লেখ করে খবরের প্রতিবাদ জানিয়ে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবর একটি প্রতিবাদপত্র দিয়েছেন সাতক্ষীরা চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিতাই চন্দ্র সাহা । ওই প্রতিবাদপত্রে বাথরুমে পড়ে এবং বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শিশু বিথীর শরীরের দাগগুলি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
এদিকে সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমদাদ শেখ জানান, বুধবার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলামের বাসা থেকে কাজের শিশু বিথীকে উদ্ধারের ঘটনায় বুধবার সন্ধ্যায় সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।
উল্লেখ্যঃ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল ইসলামের শহরের পলাশপোলস্থ ভাড়া বাসা থেকে দশ বছর বয়সী কাজের শিশু বিথীকে পুলিশ মারাতœক আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সাতক্ষীরা হাসপাতালে ভর্তি করে। তার শরীরে একাধিক স্থানে মারাতœক ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। শিশু বিথী মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার বড় আমিনিয়া গ্রামের গোলাম রসুল মিয়ার মেয়ে।