সাতক্ষীরায় সদর ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহের অভিশাপ থেকে রক্ষা পেল সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী


403 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় সদর ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহের অভিশাপ থেকে রক্ষা পেল সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রী
অক্টোবর ৮, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান :
সাতক্ষীরা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ আব্দুল সাদী’র হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহের হাত থেকে রক্ষা পেল সপ্তম শ্রেণীর পড়–য়া এক স্কুল ছাত্রী।

সূত্র জানায়, ‘সাতক্ষীরা পৌরসভার সুলতানপুর গ্রামের মো: সালাম ঢালী’র এর অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েকে বিবাহের আয়োজন করেছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে মোবাইল কোট পরিচালনা করা হয়। বৃহস্পতিবার (৮অক্টোবর) দুপুরে ভ্রাম্যমান আদালতে নেতৃত্ব দেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ আব্দুল সাদী।
ভ্রাম্যমান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘটনা স্থল থেকে সকলে পালিয়ে যায়। পরে কন্যা এবং কন্যার মাতাকে মোচলেকা দেওয়া হয়।
ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিট্রেট, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ্ আব্দুল সাদী বলেন, ‘সপ্তম শ্রেনীর ছাত্রীকে বিবাহের আয়োজন করা হয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়েছে। তবে পিএসসি সনদপত্র অনুযায়ী যে শিক্ষার্থীর জন্ম তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০০১ আছে সেখানে সাতক্ষীরা পৌরসভা কর্তৃক ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে দেওয়া জন্ম সনদপত্র অনুযায়ী জন্ম তারিখ ১১/০৩/১৯৯৭। এটি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ১৯২৯ অনুযায়ী অপ্রাপ্ত বয়স্ক কন্যার বিবাহের আয়োজনের দোষ স্বিকায় করায় কন্যা এবং তার মা মোচলেকা (অঙ্গিকারনামা) নেয়। ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত কন্যাকে বিবাহ দিবেন না। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আব্দুল করিম বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নাসরিন খান লিপি, এস আই রেজাসহ সঙ্গীয় ফোর্স।