সাতক্ষীরায় স্ত্রীকে নির্যাতন : মামলা করায় ইট দিয়ে থেঁতলে দিল বাদির শরীর


516 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় স্ত্রীকে নির্যাতন : মামলা করায় ইট দিয়ে থেঁতলে দিল বাদির শরীর
এপ্রিল ৯, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ইব্রাহিম খলিল ::
দ্বিতীয় স্ত্রীর নগদ দু’ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে তালাকপ্রাপ্ত প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রতিবাদে নির্যাতনের ঘটনায় আদালতে দায়েরকৃত মামলা তুলে না নেওয়ায় বাদির শরীর ইট দিয়ে থেঁতলে দেওয়া হয়েছে। শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে সাতক্ষীরা শহরের বড়বাজার ব্রীজ এলাকায় এ হামলা চালানো হয়।
বাঁকাল বারুইপাড়ার ফতেমা খাতুন জানান, পুরাতন সাতক্ষীরার কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ি আব্দুর রহমান, তাদের জামাই হাসান মোড়ল  তার বাপের বাড়ির সম্পত্তি বিক্রির টাকা ও ব্যবসার টাকা আত্মসাৎ করার জন্য চেষ্টা করে আসছিল। এরই অংশ হিসেবে ১০ বছর আগে তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালিয়ে আব্দুর রহমান ও তার স্ত্রী কৌশলে তাকে ধর্মান্তরিত করে(স্মৃতি দাস) ছেলে রবিউলের সঙ্গে বিয়ে দেয়। এ সময় ৫০ হাজার টাকা কাবিননামা করা হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই দেড়’শ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে সাক্ষর করে বাপের বাড়ির জমি বিক্রির দু’ লাখ টাকা নিয়ে নেয় রবিউল। এর কিছুদিন পর রবিউলের তালাকপ্রাপ্ত প্রথম স্ত্রী ঘরে না থাকার সুযোগে তার ঘর থেকে দু’বার সোনার গহণা ও টাকা পয়সা চুরি করে নিয়ে যায়। এরপর থেকে রবিউলের সঙ্গে তার সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। রবিউল ও তার পরিবারের সদস্যরা টাকা পরিশোধ না করায় তিনি বাদি হয়ে আদালতে মামলা করেন। একইভাবে রবিউলের প্রথম স্ত্রীর বিরুদ্ধে চুরির মামলা ও রবিউলের বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা রয়েছে। এরপরও সমিতি থেকে তোলা ২০ হাজার টাকা ঘর থেকে নিয়ে প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রতিবাদ করায় তাকে গত ২ এপ্রিল সন্ধ্যায় তাকে আব্দুর রহমান ও তার জামাই হাসান মোড়ল ব্যাপক মারপিট করে। পুলিশ হাসানকে ধরে নিয়ে গেলে পরে ছেড়ে দেয়। এ ঘটনায় ৩ এপ্রিল তিনি আদালতে মামলা করেন। মামলার বিষয়টি জানতে পেরে গত ৫ এপ্রিল দুপুর একটার দিকে আসামী আব্দুর রহমান ও হাসান মোড়ল তাকে মাদক, অস্ত্র ও পাচার মামলায় গ্রেফতার করানো ছাড়াও ধর্ষণ করে হত্যার হুমকি দেয়।
ফতেমা অভিযোগ করে বলেন, তিনি শনিবার সন্ধ্যার পরপরই ব্যক্তিগত কাজে বড়বাজারে আসেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে তিনি বড়বাজার ব্রীজ এলাকায় সবুরের মার্কেটে যাওয়ার  সময় হাসান মোড়ল ও তাকে লক্ষ্য করে গালিগালাজ শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে কেটে মাংস মাগুর মাছ দিয়ে খাওয়ানোর হুমকি দেয়। এ সময় তাকে লক্ষ্য করে হাসান ইট ছুঁড়ে মারলে তা তার পিঠে লাগে। এতে তিনি মাটিতে পড়ে গেলে হাসান তার শরীরে ইট দিয়ে আঘাত করে থেঁতলে দেয়। স্থানীয় ব্যবসায়ি ইদ্রিস আলী, শহর আলী, জাহাঙ্গীর হোসেনসহ কয়েকজন ছুঁটে এলে হাসান চলে যায়। পরে তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।