সাতক্ষীরায় স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই !


166 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই !
জানুয়ারি ১৭, ২০২২ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান ::

করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট ওমিক্রন প্রতিরোধে বিধিনিষেধ শুরু হলেও সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্বাস্থবিধি মানছেন না অনেকেই। মাস্ক ছাড়া অফিস, আদালত, বাজার, পরিবহনে চলাফেরা করছেন তারা। সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার মতো অনেক স্বাস্থ্যবিধি মানারই কোনো বালাই নেই স্থানীয় জনসাধারনের মধ্যে।
গতকাল সোমবার (১৭ জানুয়ারী) কলারোয়া বাজারে সরেজমিনে দেখা যায়, অধিকাংশ মানুষই স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। তাদের মুখে নেই মাস্ক, কারো কারো আবার মাস্ক থাকলেও সেগুলো রয়েছে থুতনির নীচে। আবার কেউ কেউ পকেটে নিয়ে ঘুরছেন। আবার অনেকের কাছে মাস্ক থাকলেও রেখেছেন হাতে। অর্থ্যাৎ মুখে পরার কথা থাকলেও মাস্ক তাদের মুখে নেই। বেলা ১২ টার দিকে কলারোয়া উপজেলার সামনে যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কে দেখা গেছে, ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক, বাস, ভ্যানে যাত্রিতে ঠাসাঠাসি। সামনে চালকসহ অনেক যাত্রি কিন্তু কারোও মুখে কোনো মাস্ক নেই।
উপজেলার কামারালী গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ডাক্তার আব্দুর ওহাব বলেন, আমাদের কাছে যারা প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা নিতে আসছে আমরা তাদের স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে সচেতন করছি। বিশেষকরে প্রশাসনের কঠোর নির্দেশনা না থাকার কারণেই অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।
তিনি আরো বলেন, স্থানীয়রা বিনা কারণে রাত ৮ টার পরে বাইরে বা স্থানীয় বাজারে ঘোরাঘুরি করছেন। এ সময় স্থানীয় জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মানার নির্দেশনার বিষয়ে প্রশাসনকে কঠোর হতে হবে বলেও তিনি জানান।
উপজেলার ৭নং চন্দনপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ডালিম হোসেন বলেন, আমরা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী ইউনিয়নের বিভিন্ন হাট-বাজারসহ বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে মাইকিং করছি। এছাড়া রাস্তাঘাট, মোড়, মসজিদ ও মন্দিরে মানুষকে ওমিক্রন সম্পর্কে বলে সচেতন করার চেষ্টা করছি।
কলারোয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার জিয়াউর রহমান বলেন, সাধারণ মানুষ সরকারী বিধিনিষেধ না মানায় ওমিক্রন আক্রান্ত হচ্ছে বেশী। নিজেদের সচেতন ছাড়া এ ভাইরাস থেকে বাঁচা কঠিন হয়ে পড়বে।

কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, সকলের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারে অনীহা লক্ষ্য করা গেছে। বাজারঘাটে মানুষ সামাজিক দুরত্ব মানছে না। আমরা উপজেলা প্রশাসন থেকে প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের মাইকিং করে জনসচেতনতা বাড়ানোর বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছি। তারাসহ আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছি।
তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে মাস্কছাড়া উপজেলার কোন দপ্তরে সেবা না দেওয়ার জন্যও বলা হয়েছে। এ ছাড়া সাধারণ মানুষ কেউ বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করলে আমরা ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করব বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

#