সাতক্ষীরায় ১২ টি ভোটকেন্দ্রে পুন:ভোট গ্রহণ চলছে


314 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ১২ টি ভোটকেন্দ্রে পুন:ভোট গ্রহণ চলছে
অক্টোবর ৩১, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আসাদুজ্জামান :
সাতক্ষীরা জেলার ৫টি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১০টি বন্ধ ঘোষিত ভোটকেন্দ্রে পুন: ভোট গ্রহণ সোমবার সকাল ৮টা থেকে সুষ্টু ও শান্তিপুর্ণভাবে শুরু হয়েছে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। সকাল থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের বিশেষ করে মহিলা ভোটারদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মত। বিগত ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ভোটে কারচুপির কারনে কেন্দ্রগুলোতে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। এছাড়া ২টি কেন্দ্রের উপনির্বাচনও শান্তিপুর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
জেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা যায়, বিগত ইউপি নির্বাচনে জাল ভোট প্রদান,সহিংসতা,ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ বিভিন্ন অভিযোগে জেলার  ১৪টি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। সাতক্ষীরা সদরের কেন্দ্রগুলো হলো, আলীপুর ইউনিয়নের আলীপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র,মাহমুদপুর সরকারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র,গাংনিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা ও ভাড়–খালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। তালা উপজেলার কেন্দ্রগুলো হলো, কুমিরা ইউনিয়নের ভাগবহা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র,অভয়তলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও দাদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। কলারোয়া উপজেলার কেন্দ্রগুলো হলো, কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের কলাটুপি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও শাকদহা দাখিল মাদ্রাসা এবং কেরালকাতা ইউনিনের বালিয়ানপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। দেবহাটা উপজেলার কেন্দ্রটি হলো, পারুলিয়া ইউনিয়নের খেজুরবাড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। শ্যামনগর উপজেলার কেন্দ্রগুলো হলো,কৈখালী ইউনিয়নের পূর্ব কৈখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র কৈখালী মহাজেরিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, ও শৈলখালী এম ইউ দাখিল মাদ্রাসা। তবে উচ্চ আদালতের নির্দেশে  সদর উপজেলার ৭ নং আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদের স্থগিত ৪ কেন্দ্রের পুনঃ নির্বাচন ফের স্থগিত করা হয়। রোববার রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন জেলা নির্বাচন অফিস।
এর মধ্যে এছাড়া সম সংখ্যাক ভোট পাওয়ায় সাতক্ষীরা সদরের দক্ষিন কুশখালী কমিউনিটি ক্লিনিকে ও ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যের মৃত্যুজনিত কারনে দেবহাটার কুলিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
নির্বাচনকে সুষ্টু ও শান্তিপুর্ণ করতে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে প্রশাসন। প্রতিটি কেন্দ্রে ম্যাজিস্ট্রিয়াল দায়িত্ব পালনের জন্য একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দিয়েছেন জেলা প্রশাসান। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে একজন এসআই’র নেতৃত্বে ৭জন পুলিশ সদস্য,২জন অস্ত্রধারী আনসার সদস্য ও ১৬ জন লাটি আনসার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন।
জেলা নির্বাচন অফিসার এএইচএম কামরুল হাসান জানান,যে কোন মুল্যে এবারের নির্বাচন নিরপেক্ষ করতে চেষ্টা চালাচ্ছেন নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টরা।