সাতক্ষীরায় ১৪ কেন্দ্রে ভোট বাতিলের ঘটনায় জড়িত স্ব-স্ব প্রার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের


323 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ১৪ কেন্দ্রে ভোট বাতিলের ঘটনায় জড়িত স্ব-স্ব প্রার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের
মার্চ ২৪, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আসাদুজ্জামান :
কেন্দ্রে কেন্দ্রে ঢুকে প্রিজাইডিং অফিসারকে জিম্মি করে জালভোট দেয়া এবং ভোট কারচুপি, কেন্দ্র দখল ও প্রকাশ্যে সিল মারতে বাধ্যকরাসহ বিভিন্ন অনিয়মের ঘটনায় বাতিল হওয়া ১৪ টি কেন্দ্রের প্রার্থীদের বিরুদ্ধে স্ব-স্ব থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন কেন্দ্রিয় সচিবালয়ের আদেশে বৃহস্পতিবার এসব মামলা দায়ের করা হয়। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন এক নির্দেশনায় জানিয়েছে যে সাতক্ষীরা জেলার  প্রিজাইডিং অফিসাররা বাদি হয়ে এ মামলা করবেন। এতে আসামিভুক্ত হবেন তারা যাদের ব্যালটের অনুকূলে সীল মারা হয়েছে তারাই।

উল্লেখ্য, ২২ মার্চ ইউপি নির্বাচনে জেলার ৫টি উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ১৪টি ভোট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়।
স্থগিতকৃত কেন্দ্রগুলো, সদর উপজেলার আলীপুর ইউনিয়নের আলীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাহমুদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভাড়–খালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গাংনিয়া আমিনিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা। দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া ইউনিয়নের খেজুরবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
তালা উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের ভাগবাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অভয়তলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দাতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। কলারোয়া উপজেলার কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের কলাটুপি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শাকদাহ দাখিল মাদ্রাসা, কেরালকাতা ইউনিয়নের বালিয়ানপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নের পূর্বকৈখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কৈখালী মাহাজেরিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং শৈলখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমদাদুল হক শেখ মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ভাড়–খালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মো. মহিয়ূর রহমান ময়ুর , সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থী মোছা. মনোয়ারা খাতুন ও সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারি মো. রমজান আলীসহ অজ্ঞাত ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। গাংনিয়া আমিনিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার মো. রাশিদুর রহমান বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মো. মহিয়ূর রহমান, সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থী মোছা. ফরিদা খাতুন ও সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারি আব্দুস সালামসহ ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। মাহমুদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার মো. মাহবুবার রহমান বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মো. মহিয়ূর রহমান, সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থী মোছা. ফরিদা খাতুন ও সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারি প্রার্থী মো. জাহিদুর রহমানসহ ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। আলীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার মো. নাজিমউদ্দীন বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মো. মহিয়ূর রহমান, সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থী মোছা. ফরিদা খাতুন ও সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারি প্রার্থী  মো. আছিফ হোসেনসহ ১৫/২০ জনকে আসামী করা হয়েছে। ২০১০ সালের বিধি ৭৭(১) তে এবং ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের ৩/৬ ধারায় এসব মামলা রেকর্ড হয়েছে।
শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নের পূর্বকৈখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এর ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার মো. লিয়াকত হোসেন বাদী হয়ে, কৈখালী মাহাজেরিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রিজাইডিং অফিসার দেবাশিষ মন্ডল বাদী হয়ে এবং শৈলখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিজাইডিং অফিসার বসন্ত কুমার বাদী হয়ে শ্যামনগর থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এসব মামলায় কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি।
কলারোয়া উপজেলার কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নের শাকদাহ ও কলাটুপি ভোট কেন্দ্রের স্ব স্ব প্রিজাইডিং অফিসাররা বাদী বাদি হয়ে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী নৌকা প্রতীকের আসলামুল হক আসলাম শাকদাহ কেন্দ্রের সাধারন সদস্য নজরুল ইসলাম, কলাটুপি কেন্দ্রের সাধারন সদস্য সুলতান সরদার, কেরালকাতা ইউনিয়নের বলিয়ানপুর কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রার্থী নৌকা প্রতীকের সম মোর্শেদ আলী, ওই কেন্দ্রের সাধারন সদস্য পদ প্রার্থী  রবিউল ইসলাম ও সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থী সাবিনা ইয়াছমিনের বিরুদ্ধে এ  মামলা দায়ের করেছেন। কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম এসব মামলা দায়েরের ঘটনা নিশ্চিত করেন।
তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানার কুমিরা ইউনিয়নের ভাগবাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অভয়তলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দাতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনায় স্ব স্ব কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসাররা আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী আজিজুর রহমানসহ ৭০/৮০ জনকে আসামী করা হয়েছে।
দেবহাটা উপজেলার পারুলিয়া ইউনিয়নের খেজুরবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এর ঘটনায় প্রিজাইডিং অফিসার নওশাদ আলী বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী সাইফুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে ১৫/২০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
একই সাথে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধেও নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।