সাতক্ষীরায় ৩৪৪ গ্রাম প্লাবিত। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে জানানো হয়েছে জলাবদ্ধতার চিত্র


444 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরায় ৩৪৪ গ্রাম প্লাবিত। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে  জানানো হয়েছে জলাবদ্ধতার চিত্র
আগস্ট ৩, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
জলাবদ্ধতায় সাতক্ষীরা পৌরসভা ৯টি ওয়ার্ড ও ৪টি উপজেলার ৩৮টি ইউনিয়নের অন্তত ৩ লক্ষ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। গত কয়েকদিনে সাতক্ষীরা পৌরসভা, সাতক্ষীরা সদর, তালা, আশাশুনি ও কলারোয়া উপজেলায় ১৩টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আক্রান্ত পানিবন্দী পরিবারের মধ্যে ২৮ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তালা উপজেলার ৪০টি প্রাইমারী স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে। এই উপজেলার সকল স্কুলের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। সোমবার এসব তথ্য জানিয়ে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস থেকে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরকে লিকিত ভাবে অবহিত করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, সম্প্রতি বিভিন্ন বিলে লোনা পানি তোলার পরে অতি বর্ষণে বিলের পানি নিষ্কাশিত না হওয়ায় জেলার সবগুলো উপজেলায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। জলাবদ্ধতায় জেলায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয় তালা উপজেলা। তালা উপজেলা সদর, জালালপুর, ইসলামকাটি, তেতুঁলিয়া, মাগুরা, খেশরা, সরুলিয়া, ধানদিয়া, খলিলনগর ইউনিয়নের জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। জালালপুর ইউনিয়নে কানাইদিয়া গ্রামের বেশ কিছু পরিবার বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।
কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়া,যুগিখালী ও জয়নগর ইউনিয়নের বেশকিছু পরিবার দেয়াড়া মাদ্রাসায় আশ্রয় নিয়েছে।
তালা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা প্রণব কুমার মল্লিক জানান, জলাবদ্ধতায় উপজেলার ৪০টি প্রাইমারী ও ১০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আরো ৫০টি প্রাইমারী স্কুলে পানির মধ্যে পাঠদান অব্যাহত আছে। উপজেলায় প্রাইমারী স্কুলের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।
সাতক্ষীরা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. আব্দুস সাত্তার খান ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকমকে জানান, সাতক্ষীরা পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড ও ৪টি উপজেলায় ২৮ টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে। সাতক্ষীরার জেলার ক্ষয়ক্ষতির চিত্র সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচারক (প্রশাসন) কে লিখিত ভাবে অবহিত করা হয়েছে।