ধেয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় মোরা : সাতক্ষীরায় ৮নং বিপদ সংকেত


644 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
ধেয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় মোরা : সাতক্ষীরায় ৮নং বিপদ সংকেত
মে ২৯, ২০১৭ ফটো গ্যালারি শ্যামনগর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক::
ঘুর্ণিঝড় মোরা মোকাবেলায় সাতক্ষীরায় ১৩২ টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে। উপকুলবর্তী গ্রামগুলোতে লাল পতাকায় সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। জেলায়  ৮নং সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে। খুলে রাখতে বলা হয়েছে আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তিন হাজার স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দীন জানান,  সুন্দরবনে মাছ ও মধু আহরণকারীদের দ্রুত উপকূলে ফিরে আসতে বলা হয়েছে। ঘুর্ণিঝড় মোকাবেলায় শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলার সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, বঙ্গপোসাগরে সৃষ্ট ঘুর্ণিঝড় মোরার প্রভাবে সাতক্ষীরায়  ৮নং সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে। জেলার উপকূলীয় উপজেলা শ্যামনগর ও আশাশুনির সব ইউনিয়নে মাইকিং করে জনসাধারণের সতর্ক করা হচ্ছে।

ঘুর্ণিঝড়ের সময় করণীয় প্রচার করা হচ্ছে। শ্যামনগরে দুই হাজার ও আশাশুনিতে এক হাজার ৩০০ স্বেচ্ছাসেবককে সতর্ক রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া হাসপাতালে ওষুধপত্রও মজুদ রাখা হয়েছে। ওই দুই উপজেলায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বিপদসংকেত আরো বৃদ্ধি পেলে গ্রামবাসীকে সরিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়া হবে।

জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আলাদা আলাদা মেডিকেল দল গঠন করা হয়েছে। শুকনো খাবার ও প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য যানবাহন তৈরি রাখা হয়েছে। বিশেষ করে নৌ-যানগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দুই উপজেলার সাইক্লোন সেল্টার খুলে দেওয়া হয়েছে।

সকালে শ্যামনগরে উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সকল ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণের কথা বলা হয়েছে।

শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কামরুজ্জামান জানান, উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও সদস্যদের নিজ নিজ এলাকায় সতর্ক করতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি মানুষদের সহায়তা দেওয়ার জন্য তাঁদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আশাশুনির ইউএনও সুষমা সুলতানা বলেন, তাঁর এলাকার সব আশ্রয়কেন্দ্র খোলা রাখা হয়েছে। পরিস্থিতির অবনতি হলে গ্রামবাসীকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানে নেওয়া হবে।

জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দীন আরো বলেন,  প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে প্রশাসন।
##