সাতক্ষীরা অ্যাসোসিয়েশন-কুয়েট এর উদ্যোগে ঈদের সামগ্রী উপহার হিসেবে বিতরণ


370 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা অ্যাসোসিয়েশন-কুয়েট এর উদ্যোগে ঈদের সামগ্রী উপহার হিসেবে বিতরণ
মে ২৪, ২০২০ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

সাতক্ষীরা অ্যাসোসিয়েশন, কুয়েট এর মডারেটর, কুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রফেসর ড. মো. রাফিজুল ইসলাম বলেন, নোভেল করোনাভাইরাসের কারনে গোটা পৃথিবী আজ স্তব্ধ এবং গোটা বিশ্বের পদযাত্রা থমকে গিয়েছে। আমরা কেউ জানি না কবে বা কখন এই মহামারী বিপর্যয় হতে সমগ্র জাতি রক্ষা পাবে। বর্তমান সময়ে কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে জীবন কাটাচ্ছে সমাজের সাধারণ মানুষ।এরই মধ্যে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে তছনছ হয়ে গিয়েছে আমাদের প্রিয় জন্মস্থান সাতক্ষীরা জেলা। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও আশাশুনি উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকা। গাছপালা ও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বহু ঘরবাড়ি। বিচ্ছিন্ন রয়েছে বিদ্যুৎ সরবরাহ। ভেসে গেছে মাছের ঘের ও ফসলি জমি।

বর্তমান পরিস্থিতিতে খুবই কষ্ট সাধ্যভাবে জীবন যাপন করছে সাধারণ মানুষ।এমতাবস্থায় আমাদের সকলের উচিত সামর্থ্য অনুযায়ী ঈদের আনন্দকে সকলের মাঝে ভাগ করে নেওয়া।

ধন্যবাদ জানাচ্ছি ঐ সকল মহান ব্যক্তিকে যাহারা ইতিমধ্যে নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী এমনি মহৎ কাজের উদ্যোগ নিয়েছেন।

২৪শে মে ২০২০ রবিবার সাতক্ষীরা অ্যাসোসিয়েশন-কুয়েট এর প্রেসিডেন্ট রাহুল দেব পালের নেত্রীতে গঠিত কমিটির সমন্বয়ে সাতক্ষীরা সদরে স্বল্প সংখ্যক মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী চাল, ডাল, আলু, পিঁয়াজ, সিমাই, চিনি, সাবান, নুডুলস ইত্যাদি উপহার হিসেবে বিতরণ করা হয়।

কুয়েটের বিভিন্ন বিভাগের সম্মানীত শিক্ষকমন্ডলী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও ছাত্র-ছাত্রী বৃন্দ উক্ত প্রোগ্রাম সফল ও সাফল্যমন্ডিত করতে সর্বাত্নক সাহায্য ও সহযোগিতা প্রদান করেন।

অ্যাসোসিয়েশন মডারেটর সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, নিজেদের পরিবার পরিজনের জন্য হলেও নিজ গৃহে অবস্থান করুন। জরুরী প্রয়োজনে বাইরে বের হলে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে চলার জন্য আহবান জানান।

এসময় তিনি আরও বলেন, এই সংকটময় মূহুর্তে সবাই এখন নিজ নিজ ঘরে অবস্থান করছে। এই মহামারীতে চরম দূর্ভোগের মধ্যে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষগুলো । এই বিপদের মূহুর্তে বিত্তবানদের উচিত খেটে খাওয়া মানুষদের পাশে দাড়ানো।খেটে খাওয়া মানুষদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে দেশ আজ সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাচ্ছে।

#