সাতক্ষীরা ইসলামী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মারা গেল শিশু আয়েশা !


646 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা ইসলামী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় মারা গেল শিশু আয়েশা !
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২২ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

॥ আসাদুজ্জামান ॥

সাতক্ষীরা ইসলামী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় আটদিন বয়সী শিশুর করুণ মৃত্যু হয়েছে। রোববার ভোর রাতে ইসলামী ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতাল সাতক্ষীরায় চিকিৎসারত অবস্থায় শিশুটির মৃত্যু হয়।
মৃত ওই শিশুটির নাম আয়েশা খাতুন। এর আগে জন্মের পর পরই সে তার মা রেশমা খাতুনকে হারায়। শিশু আয়েশা কলারোয়া উপজেলার ক্ষেত্রপাড়া গ্রামের আনারুল গাজীর কন্যা।
আয়েশার স্বজনরা জানান, জন্মের পর মাকে হারালেও আয়েশা স্বভাবিক ও সুস্থ্য ছিলো। জন্মের অষ্টম দিনে এসে তার শরীরের রং স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা হাসাটে মনে হলে পরিবারের সদস্যরা তাকে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। আয়েশা রক্তশূণ্যতায় ভুগছেন জানিয়ে ওই চিকিৎসক তাকে ইসলামী ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। স্থানীয় ওই চিকিৎসকের পরামর্শে গত শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে শিশু আয়েশাকে সেখানে ভর্তি করা হয়।
ভর্তির সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শিশুটির শারিরীক অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানান, আয়েশার তেমন কোন সমস্যা নেই রক্তশূণ্যতার কারণে তার শরীরের রং হাসাটে হয়ে গেছে। হাসপাতালে তিন দিন ভর্তি রেখে রক্ত দিলেই সে আবারও সুস্থ্য হয়ে উঠবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কথামতো রক্তের ব্যাবস্থা করা হলেও হাসপাতালের কেউ ওই শিশুকে ক্যানোলা পরাতে পারবেননা বলে জানান। বাধ্য হয়ে শিশুটিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে ক্যানোলা পরিয়ে আনা হয়। এরপরও শিশুটির শরীরে রক্ত সঞ্চালন করার জন্য হাসপাতালের কোন চিকিৎসক বা নার্সরা তার পাশে আসেননি।
শিশু আয়েশার বাবা আনারুল গাজী বলেন, হাসপাতালের স্টাফদের কথামতো আমরা রক্তের ব্যবস্থা করি এবং সদর হাসপাতাল থেকে ক্যানোলা পরিয়ে আনতে বললে আমরা তাও করি। কিন্তু রক্ত ও ক্যানোলা রেডি করার পর কয়েক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও হাসপাতালের কোন চিকিৎসক বা নার্স আমার বাচ্চার পাশে আসেননি। আমি বারবার নিচতলা থেকে উপরতলা পর্যন্ত হাসপাতাল কতৃপক্ষের কাছে ছুটে গিয়ে আমার বাচ্চাটাকে দেখার অনুরোধ করেছি তবুও তারা আমার বাচ্চার পাশে আসেননি।
শিশু আয়েশার মামা রাসেল রেজা জানান, রাত সাড়ে দশটার দিকে যখন আয়েশা ধীরে-ধীরে নিস্তেজ হতে থাকে তখন আমি চিৎকার করে কান্না করতে থাকি। আমার কান্না শুনে সেসময় হাসপাতালের অন্য রোগী ও রোগীর স্বজনেরা ছুটে আসে। তখন হাসপাতালের স্টাফরা তড়িঘড়ি করে ছুটে এসে আয়েশাকে রক্ত ও অক্সিজেন দিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বুলেন্স ডেকে আনেন। ছাড়পত্র দিয়ে বলেন বাচ্চার অবস্থা গুরুতর সাতক্ষীরা মেডিকেলে অথবা খুলনায় নিয়ে যান। ততক্ষণে আয়েশা মারা যায়। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করে বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবহেলার করে ছোট্ট আয়েশাকে হত্যা করেছে। আমি এই হত্যাকা-ের সুষ্ঠু বিচার চাই।
এ ব্যাপারে ইসলামী ব্যাংক কমিউনিটি হাসপাতাল সাতক্ষীরার এডমিন আনোয়ার হোসেন বলেন, দায়িত্বে অবহেলার কারণে বাচ্চার মৃত্যু হয়নি। সদর হাসপাতাল থেকে আয়েশাকে ক্যানোলা পরিয়ে নিয়ে আসার সময় ফাইল সেখানে ফেলে আসে তার স্বজনরা। ফাইল নিয়ে আমাদের হাসপাতালে পৌঁছাতে তাদের দেরি হয়ে যায়। সে কারণে শিশুটির শরীরে রক্ত দিতে দেরি হয়ে গিয়েছিল। তাছাড়া বাচ্চার শরীরের অবস্থা তেমন ভালো ছিলনা।
সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডাঃ মোহাম্মদ হুসাইন সাফায়েত জানান, ইসলামী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় শিশু মৃত্যু হয়েছে বলে শুনেছি। তবে, এ ব্যাপারে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেননি। তারপরও বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে।

#