সাতক্ষীরা ক্রীড়াঙ্গণকে আরো এগিয়ে নিতে শেখ নিজাম উদ্দিনের দৃঢ় অঙ্গিকার


368 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা ক্রীড়াঙ্গণকে আরো এগিয়ে নিতে শেখ নিজাম উদ্দিনের দৃঢ় অঙ্গিকার
অক্টোবর ২২, ২০১৬ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান :
সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হলে অতীতের মত সবাইকে সঙ্গে নিয়ে ক্রীড়াঙ্গণের উন্নয়ন কাজ করে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠন শেখ নিজাম উদ্দিন। সাতক্ষীরা স্টেডিয়াম ও ক্রীড়া সংস্থার উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে এবং এ জেলার ক্রীড়াঙ্গনের সাফল্য অব্যহত রাখার অঙ্গিকার করে এবারও জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন তিনি।
শেখ নিজাম উদ্দিন নির্বাচিত হলে তার মেধা, প্রজ্ঞা ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণকে আরো এগিয়ে নিতে পারবেন বলে আশা ক্রীড়া সংগঠকদের। প্রতিটি উপজেলা পর্যায়ে ক্রীড়ার প্রসারের মাধ্যমে তৃর্ণমূল পর্যায় থেকে প্রতিভা অন্বেষণ করে ক্রীড়াঙ্গণের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন শেখ নিজাম উদ্দিন। বিগত ৪ বছরে সকল কাউন্সিলরের সর্বাত্মক সহযোগিতা নিয়ে খেলাধূলা পরিচালনায় রেকর্ড সৃষ্টি করে ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছেন তিনি।
শেখ নিজাম উদ্দিন ১৯৭৩ সাল থেকে সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণে জড়িয়ে পড়েন। পরবর্তীতে জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রশিক্ষক, নির্বাহী সদস্য ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সুদীর্ঘ সময়ে তিনি সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। বর্তমানে তিনি নিজের নয়, বরং খেলোয়াড় ও স্টেডিয়ামের প্রকৃত উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। যা সাতক্ষীরা বাসীর কাছে স্বীকৃত।
সাতক্ষীরার পুরুষ ও মহিলা খেলোয়াড়রা দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমস, ভারতে অনুষ্ঠিত সাফ গেমসসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিভিন্ন খেলায় প্রতিনিধিত্ব করে যাচ্ছে। সম্প্রতি, ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত অলি¤িপকে বাংলাদেশের পতাকা বহন করেছে সাতক্ষীরারই কৃর্তী এ্যাথলেক শিরিন। এছাড়াও জাতীয় ক্রিকেট দলে সাতক্ষীরার ছেলে মুস্তাফিজ, সৌম্য সরকার, মহিলা দলে সাবিনা, রওশন, সুরাইয়া, কাবাডিতে পাখি, জাকির, খোকোই রানা, ভলিবলে মনি, রাজেশসহ অনেক খেলোয়াড় অত্যন্ত সদক্ষ ভাবে খেলে যাচ্ছে। যার ফলে, ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণ একটি বিশেষ স্থান দখল করে আছে। ক্রিকেট, এ্যাথলেথিক, কাবাডী, ভলিবল, সাফায়ের, খোকোসহ সকল খেলায় এ জেলা এগিয়ে রয়েছে। ক্রীড়াঙ্গণের এই অগ্রযাত্রাকে কেউ কেউ ঈশ্বার চোখে দেখতে পারেন।
সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণে তার দক্ষ নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল হয়ে জাতীয় পর্যায় থেকে শেখ নিজাম উদ্দিনকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নেতৃত্ব প্রদান করেন। শেখ নিজাম উদ্দিন হিরোশিমা এশিয়া গেমস (জাপান), বেইজিং এ অনুষ্ঠিত ভলিবল, দক্ষিণ কোরিয়া এশিয়ান গেমস, নেপাল সাফ গেমস, ভুটান, চেন্মাই, চিলি, ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর, থাইল্যাল্ডসহ বিভিন্ন দেশের খেলায় ম্যানেজার ও সহকারী ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পেয়ে বাংলাদেশের হয়ে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করেন। যার দক্ষ প্রতিনিধিত্বের জন্য তাকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ডাইরেক্টর হিসেবে ৩বার দায়িত্ব প্রদান করা হয়। এছাড়া তিনি এ্যাথলেথিক ফেডারেশনের সহ সভাপতি, আর্চারি ফেডারেশনের সহ সভাপতি, খোকো ফেডারেশনের নির্বাহী সদস্য, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের নির্বাহী সদস্যসহ বিভিন্ন মেয়াদে দায়িত্ব পালন করে জাতীয় ক্রীড়াঙ্গণেও বিশেষ ভুমিকা রেখেছেন।
জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শেখ নিজাম উদ্দিন বলেন, আমরা স্বপ্ন দেখাতে চাইনা, কথার ফুলঝুড়ি না ছড়িয়ে সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণ ও খেলাধুলাকে আরো এগিয়ে নিতে চাই। ভালো খেলা-ধুলার পাশাপাশি সাতক্ষীরা স্টেডিয়ামের অবকাঠামো ও অন্যান্য উন্নয়ন ইতিমধ্যে সকলের নজর কেড়েছে। সাতক্ষীরা স্টেডিয়ামে নির্মাণ করা হয়েছে- একটি নতুন গ্যালারী ও ভিআইপি গ্যালারী। এছাড়া পূর্ণাঙ্গ ক্রীড়া কমপ্লেক্স নির্মাণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দিনকে সাথে নিয়ে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে নিয়মিত যোগাযোগের মাধ্যমে এ জেলায় একটি পূর্ণাঙ্গ ক্রীড়া কমপ্লেক্স নির্মাণের প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছি। সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণে শান্তি, সৌহার্দ ও বন্ধুত্বের সুন্দর পরিবেশ এবং বর্তমান সময়ের জঙ্গী, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করতে খেলাধুলার বিকল্প নেই। খেলা ধুলার ব্যাপক প্রসার ও সঠিক নেতৃত্ব প্রয়োজন। নিজের ইমেজ নয়, সাতক্ষীরা জেলা ক্রীড়া সংস্থার ভাবমূর্তি যেন দিন দিন বৃদ্ধি পায় সবার সাথে সমন্বয় করে সে কাজগুলোই করব। এ লক্ষে আমরা সাতক্ষীরার সচেতন মহল, প্রশাসন, বিভিন্ন ক্লাব বা সংস্থার কর্মকর্তা, খেলোয়াড়, প্রশিক্ষক, রেফারীসহ সকলকে সাথে নিয়ে একত্রিত হয়েছি। সাতক্ষীরার ক্রীড়াঙ্গণের উন্নয়নে দলমত নির্বিশেষে সকলের ঐক্যবদ্ধ সহযোগীতা নিয়ে সাতক্ষীরাকে ক্রীড়াবান্ধন আদর্শ জেলায় পরিণত করতে চাই। এবারের নির্বাচনে আবার সুযোগ পেলে অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পাদনের অগ্রাধিকার থাকবে।