সাতক্ষীরা জজকোর্টের পিপি এড.লতিফের অপসরনের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি


404 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা জজকোর্টের পিপি এড.লতিফের অপসরনের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি
অক্টোবর ১৪, ২০২০ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আসাদুজ্জামান :
সাতক্ষীরা জজকোর্টের পিপি (পাবলিক প্রসিকিউটর) এড. আব্দুল লতিফের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সাতক্ষীরা জেলা শাখার ব্যানারে বুধবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা জজকোর্টের সামনে শহীদ মিনারের পাদদেশে উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। পরে আন্দোলনরত আইনজীবীরা সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারক লিপি পেশ করেন।

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ও সাবেক অতিরিক্ত পিপি এড. আজহার হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক পিপি এড. ওসমান গনি, এড. নওশের আলী, এড. জেড আই আব্দুল্লাহ মামুন, এড. রফিকুল ইসলাম, এড. সাহেদুজ্জামান সাহেদ, এড. সঞ্জয় রায় চৌধুরী প্রমুখ।

বক্তারা এসময় বলেন, এড. আব্দুল লতিফ অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারি আইন কর্মকর্তা নিয়োগের নামে ঘুষ গ্রহণ এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার গাড়ী বহরে হামলা মামলার আসামী পক্ষের আইনজীবীকে পুরষ্কৃত করে পুনরায় অতিরিক্ত পিপি নিয়োগ প্রদান করেছেন। তিনি পরিক্ষীত নেতাকর্মীদের বঞ্চিত করে স্বাধীনতা বিরোধীদের সরকারি আইন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। আর এই নিয়োগে তিনি লক্ষ লক্ষ টাকা বাণিজ্য করেছেন।

বক্তারা আরো বলেন, এড. আব্দুল লতিফের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। এমনকি ভারত থেকে সীমান্ত পথে অবৈধ মালামাল পারাপারসহ বিভিন্ন অভিযোগ থাকার পরও মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে তিনি পিপি হয়েছেন।

পিপি হয়ে তিনি স্বাধীনতা বিরোধীদের পক্ষ নিচ্ছেন। বহু আগে থেকে এড. লতিফ জামাত -শিবির ঘরোনার মানুষ।

বক্তারা অবিলম্বে পিপি এড. আব্দুল লতিফের পদত্যাগের দাবি জানান। অন্যথায় তাদের কঠোর কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষনা দেন।

প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে পিপি এড. আব্দুল লতিফের পদত্যাগের দাবিতে তারা সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এড. লতিফ যা বললেন…

এ ব্যাপারে ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক থেকে এড. আব্দুল লতিফের সাথে যোগোযোগ করা হলে তিনি মুঠো ফোনে জানান ‘আমার বিরুদ্ধে ৫ থেকে ৬ জন আইনজীবী মাঠে নেমেছে। এসব আইনজীবীরা প্রত্যেকে অতিতে আমার মতো সরকারি দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন কর্মকর্তা ছিলেন। আমি পিপি হওয়ার পর তাদের অতিতের নানা দুর্নীতি ও অনিয়ম ধরা পড়ছে। যতোই আন্দোলন করুক না কেনো আমি আমার জায়গা থেকে এক পাও সরবো না। আমি হাজি মানুষ। এক পয়সাও ঘুষ খাইনে। ঘুষ খেলে আমি যেনো মারা যাই’।

#