সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদ


3157 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের প্রতিবাদ
মে ১২, ২০১৮ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

সৈয়দ সাদেকুর রহমান সাদেক আজ সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগ এর সাধারণ সম্পাদক। তিনি খুবিই সৎ, নির্ভিক ও নিষ্ঠার সাথে তিনি নিজ দায়িত্ব পালন করে আসছেন। অথচ তার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন একটি কুচক্ররী মহল। তারা জানে না তাদের এই কমিটি খুলনা বিভাগের দায়িত্ব প্রাপ্ত আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুর রহমান সাহেবের উপস্থিতিতে এবং সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সকল নেতা ও এপিদের সমন্নয়ে তৃর্ণমূলের মতামতের ভিত্তিতে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি টি গঠন করা হয়। এই কমিটি সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের অনেক সাধনার ফল। ২০০৯ তিনি লাবণী মোড়ে ঔষধ ক্রয় করতে গেলে পার্শে সিনিয়র এক বি,এন,পি নেতা ঔষধ ক্রয়ের জন্য দাড়িয়ে থাকেন। সে সময় ওই কুচক্ররী মহল তাদের একটি ছবি তুলে বি,এন,পি বানানোর চেষ্টার করেন। অথচ এই সাদেক বংশগতভাবে ছাত্রলীগ। জুয়েল পলাশ এবং আক্তার ভাইয়ের সময়ও তিনি ছাত্রলীগের সাথে সক্রিয়ভাবে ময়দানে ছিলেন। অথচ এই সাদেকের পিতা- ১৯৬৮ সালে এস,এস,সি পাস করে পাকিস্থানে নেভীতে চাকুরী করেন। ১৯৭০ সালে চাকুরীরত অবস্থায় তিনি এইচ,এস,সি পাস করেন। ১৯৭১ সালে যখন মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়, তখন তিনি ৫ ট্রাক নৌ-সেনা নিয়ে ভারতের কারগীল বর্ডারে উপস্থিত হন এবং কারগীল বর্ডার দিয়ে ৪ ট্রাক নৌ-সেনা পাঠাতে সক্ষম হয়। তিনি ৫ম ট্রাকে ছিলেন এবং পাকিস্তান সেনাদের হাতে ধরা পড়েন পরে তাকে কারাগারে প্রেরণ করেন। ১৯৭২ সালে নভেম্বর মাসে তাকে ছেড়ে দিলে তিনি বাংলাদেশে চলে আসেন। ১৯৭৫ সালে সিপাহী বিদ্রোহের সময় তিনি মেজর জেনারেল খালেক মোশারফের পক্ষে জিয়াউর রহমানের বিপক্ষে অস্ত্র ধরেন। এই অস্ত্র ধরার কারণে মেজর জিয়াউর রহমান তাকে ৩ মাস খুলনা জেলা কারাগারে আটকে রাখেন। তার পরে চাকুরী চুত হয়ে ১৯৭৬ সালে নিজ বাসা সাতক্ষীরাতে চলে আসেন। ১৯৭৭ সালে সরকারীভাবে কাতারে যান এবং সেই সময় কাতার আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হয়ে ১২ বছর ঔ পদে সেখানে অবস্থান করে ছিলেন। তার কয়েক চাচা জেলা আওয়ামীলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে আছেন। তার ফুফাত ভাই সাতক্ষীরা সদরে আওয়ামীলীগের বর্তমান এমপি আছেন। অথচ তাকে যথন বিএনপি বানাতে ব্যর্থ হয়ে এখন তারা কয়েক জন পতিতা নিয়ে তার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন। আমি এই মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগকারীদের আইনের আওতায় এনে সঠিক বিচারের জন্য সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীবৃন্দের পক্ষ থেকে উর্দ্ধতন নেতাকর্মীদের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি