সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের চিঠিতে “বঙ্গবন্ধু” বানান ভুল নিয়ে তোলপাড় !


1263 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের চিঠিতে “বঙ্গবন্ধু” বানান ভুল নিয়ে তোলপাড় !
মার্চ ১১, ২০২০ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি :
সাতক্ষীরায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপনে পর্যালোচনা সভায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে জেলার চার সংসদ সদস্যকে দেয়া আমন্ত্রণপত্রে ‘বঙ্গবন্ধু’ বানান ভুল লেখায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রীতিমত তোলপাড় শুরু হয়েছে। শুধু তাই নয় পর্যালোচনা সভাটি স্থগিত করার জন্য যে চিঠি দেয়া হয়েছে তাতেও ‘বঙ্গবন্ধু’ বানান ভুল করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে দেয়া ওই চিঠি ফেসবুকে ছেড়ে দিয়ে সাতক্ষীরার একজন সংসদ সদস্য ভুল বানানটি আন্ডার লাইন করে লিখেছেন “অতিগুরুত্বপূর্ণ পত্রে বঙ্গবন্ধু বানান”।
বানান ভুলের বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

এদিকে, বঙ্গবন্ধুর বানান ভুলের বিষয়টি নিয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ইতোমধ্যে দু:খ প্রকাশ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন।

জানাগেছে, গত ০৯ মার্চ ২০২০ তারিখে ০৫.৪৪.৮৭০০.০১০.২১.০০৩.২০ ২২৪ নং স্মারকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস ২০২০ উদযাপনে পর্যালোচনা সভা উপলক্ষে সাতক্ষীরার ৪ জন সংসদ সদস্যকে জেলা প্রশাসকের পক্ষে সহকারী কমিশনার ইন্দ্রজীত সাহা পত্র প্রেরণ করেন। চিঠিতে ১১ মার্চ বুধবার দুপুর ১২ টায় পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়। চিঠিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামের বানান চিঠির বিষয়সহ তিন স্থানে ভুলভাবে “বঙগবন্ধ” লেখা হয়েছে।

বিষয়টি সাতক্ষীরার একজন সংসদ সদস্যের দৃষ্টিগোচর হলে তিনি আজ মঙ্গলবার সকালে ফেসবুকে আমন্ত্রন পত্রের ছবিসহ গুরুত্বপূর্ণ চিঠিতে এধরনের ভুলের কথা উল্লেখ করেন এবং বানান তিনটি হাইলাইট মার্কার দিয়ে চিহ্নিত করে একটি স্ট্যাটাস দেন। যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় তোলে। এর কিছুক্ষণ পর তিনি আরও একটি চিঠি তার পোস্টে সংযুক্ত করেছেন সেখানে দেখা যায়, পর্যালোচনা সভাটি “অনিবার্য কারণবসত” স্থগিত করা হয়েছে। যেখানে আবারও বঙ্গবন্ধু বানান তিন জায়গায় ভুলভাবে “বঙগবন্ধ” লেখা হয়েছে। অর্থাৎ জেলা প্রশাসন তাদের ভুল স্বীকারও করেননি সংশোধনও করেননি। উপরন্তু, চিঠি দুটির স্মারক নম্বর এবং তারিখ অভিন্ন। অর্থাৎ সভা স্থগিতের চিঠিটিও ০৫.৪৪.৮৭০০.০১০.২১.০০৩.২০ ২২৪ নং স্মারকে এবং ৯ মার্চ ২০২০ তারিখ দিয়ে ইস্যু করা হয়েছে। দুটি চিঠি একই স্মারকে কিভাবে প্রকাশ হলো এ নিয়েও জনমনে রীতিমত প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। তবে, শেষের চিঠিতে সভা স্থগিত করে দেয়া হলেও চিঠিন শেষ অংশে লেখা হয়েছে, “বর্ণিত সভায় যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য নির্দেশক্রমে সবিনয়ে অনুরোধ করা হলো”।

সহকারী কশিমনারের বক্তব্য :

এদিকে চিঠি দুটির বিষয়ে জানতে চাইলে সাতক্ষীরার সহকারী কমিশনার ইন্দ্রজীত সাহা বলেন, “অফিস সহকারী ভুল করে এমনটা করে ফেলেছেন যদিও আমার এটা দেখা উচিত ছিল। পরবর্তী চিঠিটিও পূর্বের চিঠি থেকে কপি করতে গিয়ে ভুল করে ফেলেছেন। এটা সম্পূর্ণভাবে অনিচ্ছাকৃত করণিকের মিসটেক। সভাটি স্থগিত করা হবে বিধায় প্রথম চিঠিটি বিতরণ করতে নিষেধ করা হয়েছিল। কিন্তু এমপি স্যারের বাসায় চিঠি দেয়া হয়ে গিয়েছিল। তাই সভা স্থগিতের আরেকটি চিঠিও দেয়া হয়েছিল।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের দু:খ প্রকাশ

বিষয়টি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামালের দৃষ্টিগোচর হওয়ার পর তিনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে এনিয়ে দু:খ প্রকার করে লিখেছেন ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান- এঁর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস ২০২০ উদযাপন উপলক্ষে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সাধারণ শাখা থেকে পর্যালোচনা সভার জারিকৃত নোটিশে বঙ্গবন্ধু বানানে করণিক ভুলের কারণে উ-কার পড়েনি, যা অনিচ্ছাকৃত ভুল। এ ধরণের ভুল কোনমতেই কাঙ্ক্ষিত নয়। অনাকাঙ্ক্ষিত এ ভুলের জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি’।

#