সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির অর্ধেক সদস্যকে না নিয়ে খালেদাকে ফুল দিতে গেলেন সভাপতি-সম্পাদক !


1958 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির অর্ধেক সদস্যকে না নিয়ে খালেদাকে ফুল দিতে গেলেন সভাপতি-সম্পাদক !
এপ্রিল ২৪, ২০১৭ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

॥ এম কামরুজ্জামান ॥
—————————-
সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির ২৮ সদস্যের বর্তমান নতুন কমিটির প্রায় অর্ধেক সদস্যকে না জানিয়ে বা সাথে না নিয়ে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে একটি দল বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করতে ঢাকায় গেছেন। আজ সোমবার রাত সাড়ে ৮ টায় বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে জেলা বিএনপির নতুন কমিটির একাংশের নেতারা বেগম খালেদা জিয়ার সাথে  দেখা করে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাবেন বলে জানাগেছে।

এদিকে, সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির বর্তমান কমিটির প্রায় অর্ধেক সদস্যকে অবহিত না করে বা সাথে না নিয়ে দলের চেয়ারপার্সনের সাথে দেখা করতে যাওয়া নিয়ে দলের ভিতর বিভক্তি দেখা দিয়েছে। ২৮ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির মধ্যে শুধুমাত্র সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারিদেরকে নিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করতে যাওয়া হয়েছে বলে ক্ষুব্ধ নেতারা। তারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এসব ক্ষুব্ধ নেতা মনে করেন, অতিতের আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নেওয়া নেতা-কর্মীদেরকে না জানিয়ে এই ধরনের উদ্যোগ দলের মধ্যে আরও বিভাজন সৃষ্টি করবে। একই সাথে জেলার সর্বত্র বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে হতাশা আর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিবে।

সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির একাধিক সদস্যের সাথে কথা বলে জানাগেছে, গত ৩ মার্চ বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির ১৫১ সদস্যের কমিটির মধ্যে ২৮ সদস্যের নাম ঘোষনা করে। এই কমিটির সভাপতি করা হয় রহমাতুল্লাহ পলাশকে আর সাধারণ সম্পাদক করা হয় শেখ তারিকুল হাসানকে। কমিটি ঘোষণার পরপরি জেলা বিএনপির একাংশের নেতা-কর্মীরা নানা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে। পত্র-পত্রিকাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় বিএনপির কয়েক নেতার হস্তক্ষেপে ক্ষুব্ধ নেতারা অনেকটা পিছুহোটে। সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে ওই কমিটির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ডেকে তারা তা বাতিলও করে।

এরই মধ্যে বিএনপির রিতি বা প্রচলন অনুযায়ী জেলা বিএনপির নতুন কমিটি দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানোর জন্য ঢাকাতে গেছেন। আজ সোমবার রাত সাড়ে ৮ টায় বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে তারা বেগম খালেদা জিয়ার সাথে স্বাক্ষাত করবেন এবং ফুল দিয়ে তাকে শুভেচ্ছা জানাবেন।

সূত্র জানায়, বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি কামরুল ইসলাম ফারুক, সদস্য অ্যাড: সৈয়দ ইফতেখার আলী, সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল আলিম, সহ-সভাপতি আব্দুর রউফ, সহ-সভাপতি অধ্যাপক মোদাচ্ছেরুল হক হুদা , সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদ, সহ-সভাপতি তোজাম্মেল হোসেন তোজাম, সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম বাবু, সহ-সভাপতি  চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম-সম্পাদক পৌর মেয়র তাজকীর আহমেদ চিশতি, যুগ্ম-সম্পাদক আবু জাহিদ ডাবলু ঢাকাতে যাননি। এদের অধিকাংশকে ঢাকায় যাওয়ার বিষয়টি অবহিত করা হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির দায়িত্বশীল এক নেতা ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের অনুসারিদেরকে নিয়েই ঢাকাতে গেছেন ম্যাডামের সাথে দেখা করতে। তারা তাদের অনুসারিদের বাইরে কাউকে বলেননি। এনিয়ে দলের মধ্যে আবার বড় ধরনের বিভক্তি তৈরী হলো, যা তুর্ণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে হতাশার সৃষ্টি হবে।

এ ব্যাপারে সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি রহমাতুল্লাহ পলাশের সাথে কথা বলার জন্য তার মুঠো ফোনে একাধিক বার রিং দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। তিনি মোবাইল রিসিভ করেননি।

সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শেখ তারিকুল হাসান ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানান, জেলা বিএনপির সদস্য সৈয়দ ইফতেখার আলী ও যুগ্ন-সম্পাদক আবু জাহিদ ডাবলু ছাড়া আমি সবাইকে বলেছি ঢাকায় আসার জন্য। কিন্তু তারা নানা অজুহাত দেখিয়ে এড়িয়ে গেছেন। আমি সাবইকে নিয়েই চলতে চাই। তিনি বলেন, বিএনপির নিয়ম রয়েছে , নতুন কোন কমিটি ঘোষনার পর ম্যাডামের সাথে দেখা করা এবং তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো। আমরা তাই ম্যাডামকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে এসেছি। তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ২৮ সদস্যের কমিটির প্রায় ২০ আমাদের সাথে ঢাকায় এসছেন। এর বাইরেও অঙ্গসংগঠনের আরও ১০ থেকে ১৫ জন নেতা-কর্মী আমাদের সাথে যাবেন। যারা আসেননি তাদের জন্য দলের মধ্যে কোন ধরণের বিভক্তি বা প্রতিক্রিয়া তৈরী হবে না।