সাতক্ষীরা জেলা ভূমিহীনদের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও স্বারকলীপি প্রদান


438 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা জেলা ভূমিহীনদের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও স্বারকলীপি প্রদান
জুন ১, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

এস এম সেলিম :
‘সরকারি জমি ও জলায় ভূমিহীনদের অদিকার চাই’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সাতক্ষীরা জেলায় ভূমিহীন জনপদে বসবাসরত ভূমিহীনদের মাঝে সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদানের দাবিতে দেবহাটা-কালিগঞ্জ ভূমিহীন উচ্ছেদ প্রতিরোধ সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির আয়োজনে সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বেলা ১২ টায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় দেবহাটা-কালিগঞ্জ ভূমিহীন উচ্ছেদ প্রতিরোধ সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সভাপতি মোঃ ওহাব আলী সরদার এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও দৈনিক কালের চিত্র পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ।

বক্তারা  বলেন, সাতক্ষীরা জেলায় প্রায় ৭০ হাজার একর খাসজমি ও জলা রয়েছে এবং ভূমিহীন পরিবার রয়েছে প্রায় ১ লক্ষ ৪৫ হাজার। উক্ত খাস জমি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে  পরিবার প্রতি দেড় বিঘা জমি বন্টন করা হলে সাতক্ষীরা জেলায় একটি পরিবারও ভূমিহীন থাকবে না, থাকবে না ভূমিহীন ও ভুমিদস্যুদের মধ্যে বিরোধ। কিন্তু বর্তমানে একশ্রেণীর ক্ষমতাসীন ব্যক্তি তাদের হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য ভুমিহীনদের উচ্ছেদ করে তাদের জায়গা জমি দখল করার পায়তারা করছে। আজকে দেখা যায় ভূমিদস্যুদের কাছ থেকে জমি ফিরিয়ে না নিয়ে উল্টো ভূমিহীনদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে। বর্তমানে সাতক্ষীরাতে প্রায় দুই থেকে আড়াই হাজার কোটি টাকার চিংড়ি চাষ হয়ে থাকে। জলদস্যুদের জোর করে ঘের করার কারনে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে আমাদের এলাকার মানুষ  বাহিরে কাজ করতে যেতে হচ্ছে। এ প্রবণতা থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

বক্তারা আরও বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ সে সময় রাষ্ট্রীয় ক্ষমত্য়া ছিলেন ১৯৯৮ সালের ১৮ আগষ্ট তিনি ভূমিহীনদের সমাবেসে ওয়াদা করে বলে ছিলেন এলাকার ভূমিহীন মানুষ খাস জমির বন্দোবস্ত পাবে। আজকে ভূমিহীনরা তাদের সকল অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শুধুমাত্র তারা ঐক্যবদ্ধ না থাকার কারনে। বর্তমান সরকার দেশকে জঙ্গিমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে সেটাকে পুজি করে এক শ্রেনীর ক্ষমতাসীনরা এটাকে বাধাগ্রস্থ করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে। যাদের  একখন্ড জমি নেই তাদেরকে এতখন্ড জমি দিয়ে ঘর তৈরী করে দেওয়া আমাদের সকলের দায়িত্ব। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুবেই মমতাময়ী এক ব্যক্তি তার অবদান সকল ক্ষেত্রে রয়েছে। তার প্রমান আমাদের সাতক্ষীরার ছেলে মুস্তাফিজুর রহমান দেশে ফেরার সাথে সাথে অভ্যর্থনা জানানো। বর্তমান সংবিধান, রাষ্ট্র, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ ও প্রধানমন্ত্রী সকলেই ভূমিহীনদের পক্ষে রয়েছে। ভূমিহীনদের  দাবি আদায়ের জন্য আমাদের সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে। এসময় বক্তারা আরও বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে দারিদ্র সীমার নিচে মানুষ খুজে পাওয়া যাবে না । বক্তারা ভুমিহীনদেরকে একসাথে কাজ করার আহবান জানান। আলোচনা সভা শেষে তারা র‌্যালী করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় গিয়ে স্বারকলীপি প্রদান করেন।