সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন


441 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন
জুলাই ৬, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরায় রইচ মিলের ব্যবসায় লোকসানের কথা জানতে পেরে দুইজন অংশিদার তাদের পাওনা সাড়ে তিন লাখ টাকা তুলে নেয়ার পরও ফের মূল মালিকের কাছে চার লাখ টাকা দাবি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সদর উপজেলার আলীপুর গ্রামের আনছার আলীর ছেলে জুলফিকার আলী লিটন।
সংবাদ সম্মেলনে লিটন বলেন, তিনি তার দুই চাচা শহিদুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম মিলে শহরের বাকাল এলাকার শওকত আলীর রাইচ মিলটি ৩ বছরের জন্য ইজারা নিয়ে ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারী থেকে ৩ জনে একত্রে সাড়ে চার লাখ  টাকায় ব্যবসা শুরু করেন। কিছুদিন পর চাচা শফিকুল ইসলাম ৫০ হাজার টাকার ধান দিয়ে তা ক্যাশে জমিয়ে নেয়ার কথা বললে তার মোট ক্যাশ দাড়ায় ২ লাখ টাকা। ব্যবসার এক পর্যায়  চাচাদের পরামর্শে তিনি দ্বিতীয় ব্লকের ভীজা ধান ক্রয় করলে টানা বর্ষার কারনে ১৫০ বস্তা ধান নষ্ট হয়ে যায়। এঅবস্থা দেখে চাচারা মিলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। এক পর্যায় দুই চাচা তাদের ক্যাশের সাড়ে তিন লাখ টাকা ফেরত দাবি করে। তাদের আসল টাকা ফেরত দিলে লোকসানের ভাগ সব তার উপর পড়বে একথা বলার পরও তারা তা মানতে নারাজ হয়ে টাকার দাবিতে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। পরে বাধ্য হয়ে সুলতানপুর বড়বজারের ব্যবসায়ী মামুন চাচার  কাছ থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা ধার নিয়ে চাচাদের টাকা পরিশোধ করে দেই।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, মিলে লোকসানের পরও চাচাদের সমুদয় টাকা ফেরত দিয়ে তিনি একবারে সর্বশান্ত হয়ে পড়েন। কিন্তু পারিবারিক খুটিনাটি বিষয়  নিয়ে গত  জুন মাসে দুই চাচার সাথে তার  কথা কাটাকাটি হয়। এনিয়ে তারা তাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিতে থাকে। এসবের জের ধরে দুই চাচা তার কাছে সাড়ে ৪ লাখ টাকা পাবে বলে আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদে একটি অভিযোগ করে। চেয়ারম্যান বিষয়টি পারিবারিক ভাবে বসে মিট মিমাংশা করে নেয়ার কথা বলেন। চেয়ারম্যানের কথামত শুক্রবার তিনি আলোচনার জন্য চাচাদের ডাকলেও তারা হাজির না হয়ে তার উপর টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ অব্যহত রেখেছে। আসল টাকা বুঝে পেয়েও দ্বিগুন টাকা  আদায় করার জন্য তারা পায়তারা করছে। টাকা না দিলে তারা তাকে বিভিন্ন ভাবে ক্ষয়ক্ষতি ও মিথ্যে মামলায় জড়িয়ে দিবে বলে হুমকি দিচ্ছে। তিনি বিষয়টির শান্তিপূর্ন  নিষ্পত্তির জন্য এবং আইন আদালতে যাতে সহযোগিতা পেতে পারেন তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।