সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন


553 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন
মে ৩১, ২০১৯ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ::

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে বহিরাগত সশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলায় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ ১০ সিনিয়র সাংবাদিক আহত হওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১ টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে উক্ত মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়।

প্রেসক্লাবের সহসভাপতি অধ্যক্ষ আশেক ই এলাহির সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক সভাপতি সুভাষ চৌধুরী , সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ আনিসুর রহিম, প্রেসক্লাব সম্পাদক মমতাজ আহমেদ বাপী, প্রথম আলোর কল্যাণ ব্যানার্জি, সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, দৈনিক দৃষ্টিপাত সম্পাদক জিএম নুর ইসলাম, সাবেক সাধারন সম্পাদক আবদুল বারী, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম কামরুজ্জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস, ডেইলি সাতক্ষীরার সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম, দৈনিক পত্রদূত সম্পাদক লায়লা পারভিন সেঁজুতি, দৈনিক মানবজমিনের ইয়ারব হোসেন, যমুনা টিভির আহসানুর রহমান রাজীব, ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভির আবুল কাসেম, কালের কণ্ঠর মোশাররফ হোসেন, দৈনিক সাতনদী সম্পাদক হাবিবুর রহমান ছাড়াও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা সাংবাদিকবৃন্দ।

তালা, দেবহাটা, কলারোয়া , আশাশুনি, কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার প্রেসক্লাব ও অন্যান্য সাংবাদিক সংগঠন থেকে আসা বক্তব্যদানকারী সাংবাদিকরা হলেন- আশাশুনির আহসান হাবিব ও মোস্তাফিজুর রহমান, দেবহাটার আবদুল ওহাব ও গোলাম ফারুক, কলারোয়ার আরিফ মাহমুদ ও আজাদুর রহমান খান চৌধুরী পলাশ, তালার বি এম জুলফিকার রায়হান, শ্যামনগরের সামিউল মনির ও পিযুষ বাউলিয়া পিন্টু, কালিগঞ্জের নিয়াজ কাওসার তুহিন প্রমুখ সাংবাদিক।


এদিকে, এ ঘটনায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মমতাজ আহমদে বাপী বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ২৪ জনের নামসহ অজ্ঞাত আরো ১৫০ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং-৬৩।
মানববন্ধনে বক্তারা সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানান। বক্তারা আরো বলেন, সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবিকে সম্প্রতি প্রেসক্লাবে অবাঞ্চিত ঘোষণা করাকে কেন্দ্র করে এমপি পক্ষের বহিস্কৃত কয়েকজন সাংবাদিকের নেতৃত্বে বহিরাগত তুহিন, অমিত, রেজাউল, কামরুল, আক্তারুজ্জামানসহ শতাধিক সন্ত্রাসী বৃহস্পতিবার দুপুরে সিনিয়র সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালায়। এতে আহত হন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাতবারের সভাপতি ও দৈনিক কালের চিত্র পত্রিকার সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সাবেক সভাপতি চ্যানেল আইয়ের জেলা প্রতিনিধি প্রেসক্লাবের সাবেক পাঁচবারের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, প্রথম আলোর স্টাফ রিপোর্টার কল্যাণ ব্যানার্জি, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও সময় টিভির জেলা প্রতিনিধি মমতাজ আহমেদ বাপী, মোহনা টিভির জেলা প্রতিনিধি আবদুল জলিল, সাবেক সাধারন সম্পাদক আবদুল বারীসহ ১০ জন সিনিয়র সাংবাদিক। তাদের মধ্যে অধ্যক্ষ আবু আহমেদ ও আব্দুল জলিল গুরুতর আহত হয়ে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। মানববন্ধন শেষে দুপুর ১২টায় প্রেসক্লাবের স.ম আলাউদ্দিন মিলনায়তনে এক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জানানো হয়, এ ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে নাগরিক মঞ্চ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মত বিনিময় এবং পর্যায়ক্রমে সাতটি উপাজেলায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসুচি পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়


আসামী হলেন কে কে ::

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে নিন্দনীয় হামলার সাথে জড়িতদের ২৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ১০০-১৫০ জনের নামে মামলা করেছেন প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষ। তাদের মধ্যে যারা আসামী হয়েছেন এরা হলেন- জি এম মনিরুল ইসলাম মিনি, মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জ্বল, মনিরুল ইসলাম মনি ও শামীম পারভেজ।

অন্য আসামীরা হলেন- পলাশপোলের জাকির হোসেন মিঠু, চায়না বাংলার মালিক এ কে এম আনিছুর রহমান, শাল্যের এস এম রেজাউল ইসলাম, পলাশপোলের কামরুল হাসান ওরফে চটা কামরুল, ব্রক্ষ্মরাজপুরের মনিরুজ্জামান তুহিন, নলকূড়ার খন্দকার আনিসুর রহমান, পুরাতন সাতক্ষীরার অমিত ঘোষ, মুনজিতপুরের আকাশ ইসলাম, মুহুরী মনিরুজ্জামান মনি, কাশেমপুরের শহিদুল ইসলাম, মুহুরী হাফিজুর রহমান, শ্রীউলার হাফিজুর রহমান পলাশ, বুলারাটির শেখ আমিনুর রশীদ সুজন, মেহেদীবাগের আক্তারুজ্জামান ওরফে আক্তারুল, মুনজিতপুরের শেখ আব্দুল হাকিম, পলাশপোলের শাহ আলম, সরকার পাড়ার তাজমিনুর রহমান টুটুল, মুনজিতপুরের জাদু ও দীপ, ভবানীপুরের আক্তারুল ইসলাম।

#