সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ ৯ম দিনের মত অচল : নিরসনে দৃশ্যমান কোন উদ্যোগ নেই


434 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ ৯ম দিনের মত অচল : নিরসনে দৃশ্যমান কোন উদ্যোগ নেই
নভেম্বর ৮, ২০১৫ ফটো গ্যালারি শিক্ষা
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজের অচলবস্থা নিরসনে কোন কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল চালু করার দাবীতে টানা নবম দিনের ধর্মঘটে স্থবির হয়ে পড়েছে শিক্ষা কার্যক্রম। ৯ দিনেও কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় শিক্ষার্থীদের দাবী ক্ষোভে পরিণত হচ্ছে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীলা রোববার সকালেও কলেজের প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও র‌্যালি করে।

তবে কলেজ প্রশাসন বলছে, শিক্ষার্থীদের দাবী পূরণ করার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। ৭ জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তবে শিক্ষার্থীরা জানায়, হাসপাতাল চালু না হওয়া পর্যন্ত আমরা ক্লাসে ফিরে যাবো না।

সূত্র জানায়, রোববার আন্দোলনের ৯ম দিনে সকাল থেকেই মিছিল-স্লোাগানে মুখরিত হয়ে ওঠে কলেজ ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে চলে এসে অবস্থান গ্রহণ করে। শিক্ষার্থীরা সকাল সাড়ে ৯টায় প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে বন্ধ করে দেয়। টানা রৌদ্রে শিক্ষার্থীরা মুহুমুহু স্লোগান দিতে থাকে। রৌদ্র উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীরা কলেজ প্রশাসনিক ভবন বন্ধ দেয়। সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত। পরে কলেজের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সমাবেশে রাখেন আন্দোলনের সমন্বায়ক কলেজের ৫ম বর্ষের শিক্ষার্থী আলমগীর হোসেন, মিনাক কুমার বিশ্বাস, ৫ম বর্ষের তাজুল ইসলাম, শরীফ আহমেদ, গোলাম মোক্তাদির, ৪র্থ বর্ষের বানিয়া সুলতানা, সায়েম সিফাত, ৩য় বর্ষের সাগর দে, আরিফ সাকিল প্রমুখ।

সমাবেশে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল চালু করা, হাসপাতাল চালু না হলে তাদের অন্যত্র শিফট করা এবং এগুলো করা না হলে ক্লাস, আইটেম, কার্ড, টার্ম ও ওয়ার্ডসহ সকল কার্যক্রম বর্জনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আরো জানায়, আমরা হাজার হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে এখানে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। তারা আরো বলেন, এটা সাতক্ষীরা বাসীরও দাবী হওয়া উচিৎ। তারা আরো বলেন, দ্রুত তাদের দাবী বাস্তবায়ন করা না হলে কঠোর আন্দোলন করা হবে।

তবে আন্দোলরত শিক্ষার্থীরা জানান, আমাদের হাসপাতালের জন্য বরাদ্দ থাকলে এতো দেরিতে বাস্তাবায়ন হতো না। যন্ত্রপাতির অর্থ বরাদ্দ থাকলে দ্রুত টেন্ডার দেওয়া প্রয়োজন। তারা আরো বলেন, আমরা আশ্বাস চাই না, চাই দ্রুত বাস্তবায়ন । তা না হলে আরো কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

এ বিষয়ে কলেজের শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, শিক্ষার্থীদের দাবীগুলো যুক্তিসঙ্গত। তবে তাদের দাবী পূরণের ক্ষমতা আমাদের হাতে নেই। পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল চালু করা সময়ের প্রয়োজন। এ জন্য সময় দিতে হবে। এটার জন্য প্রয়োজনীয় ডাক্তার, নার্স, ওয়ার্ড বয়, রোগীর খাবার প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, এটা একদিনে পূরণ করা সম্ভব নয়। আমরা এজন্য নিরলসভাবে কাজ করছি। প্রসঙ্গত, ৩১ অক্টোবর থেকে পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল চালুর দাবীতে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ বন্ধ আছে।