সাতক্ষীরা লাবসায় বেদে পল্লীতে চলছে অসমাজিক কার্যকলাপ


696 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা লাবসায় বেদে পল্লীতে চলছে অসমাজিক কার্যকলাপ
মে ১৯, ২০১৬ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান:
সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির যখন জেলাব্যাপী মাদকের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষনা করেছে। এ জেলাকে মাদকমুক্ত করার জন্য সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে ঠিক তখনই লাবসা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের সামনে ইরকোন মাঠে অবস্থানরত ছিন্নমূল বেদে সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে মাদকসহ বিভিন্ন নেশাজাতীয় দ্রব্য বিক্রয় ও অসমাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার অভিযোগ উঠেছে। এটাকে কেন্দ্র করে বিস্ফোরকের মতো ছড়িয়ে পড়ছে নেশা জাতীয় দ্রব্য। এর সাথে সম্পৃক্ত কিছু প্রভাবশালী যারা ধরা ছোঁয়ার বাইরে। নেশা দ্রব্যের যোগান দিতে বাড়ছে চুরি ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপকর্ম।

এলাকার উঠতি বয়সের যুবকরা মাদকাসক্তে জড়িয়ে পড়ছে। রেহায় পাচ্ছে না লাবসা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরাও। বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গেলে বেদে সরদার অজিহার বলেন, ‘৭ বছর ধরে আমরা এখানে আছি। আমাদের সমাজটা অবহেলিত। আমরা টোকায় শ্যাওলার মতো ভেসে বেড়ায়। সরকার যদি আমাদের দিকে নজর দেয় তাহলে আমরা খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকতে পারবো। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যাক্তি জানান, ‘লাবসা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের শৃংখলাবোধ ভেঙ্গে পড়ছে কিছু উৎশৃখল যুবকের কারণে। যারা নিয়মিত মাদকাসক্ত। আমার দোকানে আসলে তাদের ভাবভঙ্গিতে লক্ষ্য করা যায় তারা মাদক সেবন করে  এসেছে। এভাবেই চলতে থাকলে একদিকে শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে অপরদিকে প্রতিষ্ঠানটির সুনাম নষ্ট হবে।

স্থানীয়রা আরো জানান, আবাসিক এলাকায় বেদেরা বসতি গড়ে তুলে এলাকার পরিবেশ নষ্ট করছে। তারা বিভিন্ন অসামাজিক কাজের সাথে লিপ্ত রয়েছে। রাতের বেলায় এরা মেয়েদের দিয়ে দেহ ব্যবসা পরিচালনা করে। আর সকাল হলে মানুষদের বিব্রত করে অর্থ উপার্জন করে। এছাড়া রাতে ওই স্থানে নেশার আসর বসায় তারা। এমনকি স্থানীয় কয়েকটি মেসে ইয়াবা ট্র্যাবলেট, গাজাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে। এতে পলিটেকনিক কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। বেদে মেয়েদের অত্যাচারে অনেকেই পড়েন বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে।

কলেজ পড়–য়া ছাত্রী জেসমিন সুলতানা জানান, বেদে মেয়েদের হাতে পড়ে নাজেহাল হতে হয় আমাদের। সকাল হলেই ওই বেদে মেয়েরা একটি সাপের বক্স নিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ায়। আর পথচারীদের দেখেই পথ আটকে রাখেন এবং টাকা নিয়ে ছাড়েন।

স্থানীয় ড্রাইভার আব্দুল মজিদ জানান, ‘লাবসা পলিটেকনিক মোড়, কালাম সুইটস এন্ড রেস্তোরার পিছনে, লাবসা বলফিল্ড, নলকুড়া ও লাবসার মধ্যবর্তী কালভার্টসহ বিভিন্ন স্থানে সন্ধ্যার পর থেকে মাদকের আসর বসতে শুরু করে।’
লাবসা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ জি.এম আজিজুর রহমান জানান, ‘আমরা চাই মাদকমুক্ত একটা কলেজ ক্যাম্পাস। শিক্ষার্থীরা যাতে বেপথে না যায় সেজন্য ক্লাসে ধর্মীয় ও শৃংখলাবোধ বিষয়ে তাদেরকে পাঠদান দেওয়া হয়, এ ধরনের প্রতিষ্ঠানে দেশব্যাপী এটা সরকারের উদ্যোগ শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলা।  মাদকের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন।’
এ ব্যাপারে স্থানীয় সচেতন মহল এলাকার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এবং মাদক ব্যবসার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।