সাতক্ষীরার কামালনগরে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যে কাদেরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ !


342 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরার কামালনগরে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যে কাদেরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ !
অক্টোবর ৫, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরা জেলা শহরের কামালনগর গ্রামে বসবাসরত সেনা বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক আব্দুল কাদেরের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে ওই এলাকার মানুষ। তার বিরুদ্ধে একের-পর-এক চাঁদাবাজির মামলা ও অভিযোগ হলেও কাউকে পরোয়া করছেন না অবসরপ্রাপ্ত ওই সেনা সদস্য। তার বিরুদ্ধে ইসলামি প্রতিষ্ঠানে জঙ্গি প্রশিক্ষণেরও অভিযোগ উঠেছে।

জানাগেছে, এলাকায় চলাচলের রাস্তা/পথ বের করে দেয়ার নামে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ১৩ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করে তা রিতিমত হজম করে ফেলেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ। ওই চাঁদার টাকার হিসাব চাওয়াকে কেন্দ্র করে এক আইনজীবীকে মারপিট করেন তিনি। এ ঘটনায় কয়েক মাস আগে প্রায় সাড়ে ৪ মাস জেল খেটেছেন আব্দুর কাদের। ওই মামলায় হাইকোর্ট থেকে জমিন নিয়ে এলাকায় ফিরে সে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সম্প্রতি কামালনগর গ্রামের মাংস ব্যবসায়ী মো: আফছার আলী বাদী হয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুল কাদেরের একের পর এক চাঁদাবাজী ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিবরণ উল্লেখ করে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের বিষয়টি তদন্তের জন্য কামালনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই হেদায়েতের ওপর দায়িত্বভার দিলেও ওই পুলিশ অফিসার এখনও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি বলে মামলার বাদী অভিযোগ করেছেন।

সরেজমিন গিয়ে জানাগেছে, সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার মৌতলা গ্রামের সরফাদ্দিনের ছেলে আব্দুল কাদের কয়েক বছর আগে জেলা শহরের কামালনগর এলাকায় জমি কিনে সেখানে বাড়ি করে বসবাস করে আসছেন। তার বাড়ির পাশে প্রায় ২০ জন পেশাবীজী মানুষ বসবাসের জন্য জমি ক্রয় করেন। কিন্তু ওই জমি থেকে বের হওয়ার কোন পথ নেই। অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুল কাদের তাদের রাস্তা তৈরী করে দেয়ার নাম করে ওই জমির মালিকদের কাছ থেকে বিভিন্ন সময় ১৩ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করেছেন। কিন্তু আজও চলাচলের কোন রাস্তা/পথ বের করে দেয়নি। এসব অভিযোগ জমির মালিকদের।

গত ২০মার্চ এনিয়ে স্থানীয় ভাবে বসাবসি হলে সাতক্ষীরা আইনজীবী সমিতির সদস্য (জমি ক্রয়কারীদের একজন) অ্যাড: নূরুল আমিন চাঁদার টাকার হিসাব চান। এ সময় তাকে পিটিয়ে জখম করেন আব্দুল কাদের । এ ঘটনা নিয়ে ওই আইনজীবী আদালতে মামলা করলে আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করে। এই মামলায় আব্দুল কাদের বর্তমানে হাইকোর্ট থেকে ৬ মাসের জমিনে রয়েছেন।

কামালনগর গ্রামের ব্যবসায়ী আফসার আলী অভিযোগ করে বলেন, জেলখানা থেকে বের হয়ে  আব্দুল কাদের আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। এলাকায় একের পর এক চাঁদাবাজী করছেন। তার বিরুদ্ধে ইসলামি প্রতিষ্ঠানে জঙ্গি প্রশিক্ষণ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। সেনা বাহিনীতে থাকাকালীন সময়ে তিনি প্রশিক্ষক ছিলেন। তিনি বলেন, এসব অভিযোগ উল্লেখ করে সাতক্ষীরা সদর থানায় তিনি বাদী হয়ে গত ১৩ সেপ্টেম্বর একটি অভিযোগ দিয়েছেন। সদর থানার ওসি অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কামালনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই হেদায়েতের ওপর দায়িত্ব দিলেও অজ্ঞাত কারণে তিনি আজও কোন ব্যবস্থা নেয়নি। এ ব্যাপারে অভিযোগকারী পুলিশের উদ্ধর্তন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগ বিষয়ে কথা বলার জন্য অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুল কাদেরের সাথে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে এস আই হেদায়ের জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু আব্দুল কাদের কামালনগর বাড়িতে বর্তমানে থাকেন না। তবে সরেজমিন গিয়ে শুনেছি, চলাচলের রাস্তা বের করা নিয়েই অবসরপ্রাপ্ত ওই সেনা সদস্য বেশ কিছু টাকা চাঁদা তুলেছেন। বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের সামনা-সামনি হাজির করে তদন্ত করার চেষ্টা করছি। তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরও বলেন, আব্দুল কাদেরের বিরুদ্ধে জঙ্গি প্রশিক্ষণ দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। এ বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।