সাতক্ষীরা শহরের শাহীন ও শরীফ বেকারীতে মাদক ও মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি। ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা আদায়


462 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা শহরের শাহীন ও শরীফ বেকারীতে মাদক ও মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি। ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা আদায়
আগস্ট ২৫, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

বিশেষ প্রতিনিধি:
শহরের কয়েকটি বেকারীর দোকানে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ ঘোষিত এলকোহলের আড়ালে মাদক। নিষিদ্ধ ঘোষিত এসব মাদকের ক্রেতা স্কুল- কলেজের উঠতি বয়সী কিশোর। তাদের বসানোর জন্য লাবনী মোড়স্থ কয়েকটি বেকারিতে তৈরি করা হয়েছে বিশেষ স্থান। মঙ্গলবার সকালে ভ্রাম্যমান আদালত বেকারীতে অভিযান পরিচালনা করে এলকোহল জাতীয় মাদক বিক্রির অভিযোগে লাবনী মোড়স্থ শাহীন বেকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মেয়াদউত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অভিযোগে শরীফ ফাস্ট ফুডকেও জরিমানা করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, সাতক্ষীরা শহরের কয়েকটি বেকারীর দোকানে এলকোহল জাতীয় মাদক বিক্রি করা হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে বেকারীতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ আব্দুল সাদী। আদালতের অভিযানে শহরের লাবনী মোড়স্থ ইটাগাছার আমিরুল ইসলামের পুত্র আব্দুল্লাহ আল মামুনের মালিকানাধীন শাহীন বেকারীতে নিষিদ্ধ ঘোষিত এলকোহল জাতীয় মাদক পান। সেখান থেকে নিষিদ্ধ ঘোষিত হান্টারের ২০টি বোতল জব্দ করে। অন্যদিকে একই বেকারীর ম্যানেজারকে মেয়াদউত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অভিযোগে ৫ হাজার টাকা জরিমানা ও মামলা করেন।

পরে পলাশপোল গ্রামের আব্দুল গফফরের পুত্র শরীফ আহমেদ শেখের মালিকানাধীন শরীফ ফাস্ট ফুডে অভিযান পরিচালনা করে মেয়াদউত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অভিযোগে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে। পরে একটি মিষ্টির দোকানে অভিযান পরিচালনা করে ৫০০ টাকা জরিমানা আদান করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালতের সাথে ছিলেন, জেলা মাদক নিয়ন্ত্রণ সার্কেলের পরিদর্শক কাজী মাহমুদ হারুন, পৌরসভার সেনেটরি পরিদর্শক রবিউল আলম, বেঞ্চ সহকারী শহিদুল ইসলাম প্রমুখ। তবে নামে মাত্র দুটি বেকারীতে অভিযান পরিচালনা করায় অভিযানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ভূক্তভোগীরা সকল বেকারীতে একযোগে অভিযান পরিচালনা করার দাবী জানান।

সূত্র জানায়, শহরের বেকারী গুলোতে ভারতীয় বিভিন্ন পণ্য সয়লাভ হলেও তার বিরুদ্ধে কোন অভিযান পরিচালনা করা হয় না। প্রকাশ্যে বেকারীগুলোতে চেরাইপথে আসা বিভিন্ন পণ্য বিক্রি হচ্ছে। মূলত বেকারীগুলো ভারতীয় চেরাইপণ্যে চলছে।