সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে বসেছে শিশুদের মিলনমেলা


670 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে বসেছে শিশুদের মিলনমেলা
জুলাই ১৮, ২০১৫ ফটো গ্যালারি বিনোদন সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

নাজমুল হক :
সাতক্ষীরা শহরের শিশুদের মুক্ত বিনোদন কেন্দ্র নেই বললেই চলে। তবুও ঈদের দিন সকাল থেকেই সাতক্ষীরা জেলা শহরের আব্দুর রাজ্জাক পার্কের দোলনায় না চড়লেই যেন ঈদের পূর্ণতা আসেনি অনেক শিশুর। ঈদের পূর্ণতাই যেন শিশুদের মুক্ত বিচরণে। তাই সকাল থেকেই শহরের শিশুরা ভিড় জমিয়েছে সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে।
জেলা শহরের একমাত্র শিশুদের খোলা বিনোদন কেন্দ্র শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কেও ছিল যারপর নেই ভিড়। ইচ্ছেমত সাজ-গোজ আর রঙবেরঙের কাপড় পরে বিভিন্ন বয়সের শিশুরা মেতে ওঠে আনন্দ-উন্মাদনায়। শিশুদের বাঁধভাঙা উচ্ছ¡াসে পার্কটিও যেন প্রাণ ফিরে পেয়েছিল। অন্য দিনের তুলনায় মাত্রাতিরিক্ত শিশুর আগমনে সামান্য কয়েকটি দোলনা, ঘুর্নিতে উঠার জন্য লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় অনেকের। পার্কে বাচ্চা নিয়ে আসা উত্তর কাটিয়ার আব্দুর রউফ জানায়, আমার শিশুটি বিকেলে ঘুম থেকে উঠেই বায়না করতে থাকে পার্কে যাবে। তাই নিয়ে আসা। এখানে তেমন খেলনা নেই, নেই বসার পর্যাপ্ত যায়গা। তিনি আরো জানান, শহরে অন্তত ২ লাখ মানুষের বসবাস হলেও সুস্থ্য বিনোদনের নেই কোন স্থান । ফলে আমাদের শিশুরা হাফিয়ে উঠছে।
পলাশপোল থেকে দুই সন্তান নিয়ে আগত অভিভাবক নজরুল ইসলাম ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে  বলেন, ‘শিশুপার্কের এই অবস্থা সম্পর্কে সবাই অবগত; এমনকি শিশুরাও। তবে আজকের আগমনের ব্যাখ্যা খুব স্পষ্ট, সেটা হল আমরা তো আসলে উৎসব প্রিয়। একটু অজুহাত খুঁজি নিজেকে আনন্দ দেয়ার জন্য। তাই, কোথায় আসলাম, কেন আসলাম, এ সব বিষয় মাথায় নাই। শুধু জানি, শিশুদের কথা রাখতে পাচ্ছি, ওদের মুখে হাসি দেখছি। এটাতে আমারও ভাল লাগছে।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমাদের কথা সরকার ভাবে না। আমাদের শিশুদের বিনোদনের কোন স্থান নেই। তিনি এ বিষয়ে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। একই সাথে সাতক্ষীরা পৌরসভা কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে আশু দৃষ্টি কামনা করেছেন এলাকাবাসী।