সাতক্ষীরা সদর থানার এক দারোগার কান্ড : আসামীকে না পেয়ে বাড়িতে তান্ডব !


420 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা সদর থানার এক দারোগার কান্ড : আসামীকে না পেয়ে বাড়িতে তান্ডব !
অক্টোবর ২১, ২০১৫ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার :
সাতক্ষীরা সদর থানার এক এএসআই’র বিরুদ্ধে তদন্তের নামে বসত বাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে। ৩টি বাড়িতে যেয়ে আসামী গ্রেফতার করা হবে বলে হুমকি ধামকি দেওয়াসহ ক্ষিপ্ত হয়ে বসত বাড়ির জানালা, চালের টালি ভাংচুর এবং গৃহের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তছনছ করে দিয়েছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা। আলোচিত ওই পুলিশ কর্মকর্তার নাম এএসআই সোহরাব হোসেন। ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নের শিবনগর গ্রামে।

শীবনগর গ্রামের স্বামী পরিতক্তা সালমা খাতুন জানান,  সদর থানার এএসআই মোঃ সোহরাব হোসেন ও সাগর নামের এক কনস্টেবল সাথে নিয়ে সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সালমা খাতুনের বাবা ছদর সরদারের বাড়িতে যেয়ে আসামী কই, আসামী কই, তাকে বের করে দেন, নইলে দশ হাজার টাকা দেন বলে সালমা খাতুনের ছেলে সোহাগকে খোজাখুজি করেন তিনি। এসময় সোহাগকে নাপেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে এএসআই সোহরাব হোসেন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে করতে বাড়ির উঠান থেকে একটি বাঁশের লাঠি নিয়ে ছদর সরদারের দুইটি ঘরের চাল এবং একটি রান্না ঘরের চালে এবং বিদ্যুতের মিটারে বাড়ি মেরে প্রায় ১শ টালি ভাংচুর করেন।

পরে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে বিছানা, লেপ, কাঁথা,বালিশসহ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র টেনেহিচড়ে ফেলে তাতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি প্রদান করেন। একই গ্রামে অপর আসামী সুলতান গাজীর ছেলে ইসমাইল গাজীর বাড়িতে যান তিনি। সেখানে কাউকে নাপেয়ে ইসমালের কুড়ে ঘরের চালের টালি এবং কাঠের জানালা ভাংচুর করেন। কিছুক্ষণ পরে রইচউদ্দীনের ছেলে আসামী আলমগীর হোসেনকে ধরতে, রইচউদ্দীনের বাড়িতে হাজিরহন পুলিশ কর্মকর্তা। সেখানে যেয়ে আলমগীরকে খোজ করেন তিনি। আসামী আলমগীরকে নাপেয়ে সেখানোও ক্ষিপ্ত হয়ে যান পুলিশ কর্মকর্তা । আসামীর ভায়ের মেয়ে দেড় বছর বয়সের শিশু কন্যা তাসমিয়াকে ধরে আছাড় মারতে চান তিনি। এসময় আসামী আলমগীরের মা দৌড়ে এএসআই সোহরাব হোসেনের পাশে আসলে, তার ছেলেকে বেরকরে দিতে বলেন, নতুবা দশ হাজার টাকা দিতে হবে। আসামী আলমগীরের মা তাৎক্ষণিক ২৩শ টাকা জোগাড় করে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রদান করেন।

এব্যাপারে এএসআই সোহরাব হোসেন জানান, গত রমজান মাসে পাটকেলঘাটায় একজন ব্যক্তিকে আহত করে একটি মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার সাথে জড়িত ৪ জন আসামী রয়েছে, তাদের ব্যাগগ্রাউন্ড জানেন ? ওই মামলাটি তদন্তকরাসহ আসামী গ্রেফতার করতে গিয়েছিলাম। হত্যা মামলার আসামী ধরতে গেলে মাথা ঠিক থাকে ভাই ?