সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের ছাত্রী রুমানা ইয়াসমিনের সাফল্য


2991 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের ছাত্রী রুমানা ইয়াসমিনের সাফল্য
ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৭ ফটো গ্যালারি শিক্ষা
Print Friendly, PDF & Email

আব্দুর রহমান ::

সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের ছাত্রী গৌরব অর্জন ও নজরকাড়া সাফল্য অর্জন করেছে রুমানা ইয়াসমিন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৪ সালের অনার্স ৪র্থ বর্ষের চূড়ান্ত ফলাফলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধা তালিকায় ১ম স্থান অধিকারী শিক্ষার্থী সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগের রুমানা ইয়াসমিন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধা তালিকায় ১ম স্থান অধিকারী শিক্ষার্থী রুমানা ইয়াসমিন ভূগোল বিভাগ থেকে অংশ নিয়ে ১ম বর্ষে জিপিএ ৩.৭১, দ্বিতীয় বর্ষে জিপিএ ৩.৫২, ৩য় বর্ষে জিপিএ ৩.৬৯ এবং চতুর্থ বর্ষে জিপিএ ৩.৮২ পেয়ে মোট সিজিপিএ ৩.৭১ পায়।

সে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঘোনা ইউনিয়নের মো. অলিউল ইসলাম ও রাজিয়া বেগমের একমাত্র কন্যা। তার পিতা একজন সফল কৃষক ও মাতা গৃহীনি। ২০১৪ সালে ভূগোল বিভাগ থেকে মোট ২৯ জন শিক্ষার্থী এ পরীক্ষায় অংশ নেয়।

পাশের হার এবং সি.জি.পি.এ অনুসারে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশিত ৪র্থ বর্ষের ফলাফলে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ভূগোল বিভাগ ১ম স্থান অর্জন করেছে।

রুমানা ইয়াসমিন বলেন, ‘ভালো রেজাল্ট করতে পেরে নিজেকে অনেক গর্বিত মনে হচ্ছে। আত্মবিশ্বাস ছিল এমন ভালো কিছু করবো। আসলে ভালো কিছু করতে হলে, অনেক বেশি পরিশ্রমী হতে হয়। তবেই ভালো কিছু পাওয়া সম্ভব।

সত্যিই এমন সাফল্য অর্জনের পিছনে আমার বাবা-মা ও শিক্ষকদের ভূমিকা ছিল অকল্পনীয়। তবে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে ভূগোল বিষয়ে মাষ্টার্স কোর্স চালু না থাকায় আমাকে যশোর এম.এম কলেজে ভর্তি হতে হয়েছে।

আগামীতেও এ ধরনের সাফল্য অর্জন করবো এই আশা রাখছি এবং ভবিষ্যতে বি.সি.এস পরীক্ষায় টিকে একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়ে দেশের সেবায় নিজেকে ব্রত রাখতে চাই।’

রুমানা ইয়াসমিনের বাবা অলিউল ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে যে সাফল্য অর্জন করেছে, তা আসলেই অকল্পনীয়। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে সে আরো ভালো কিছু করতে পারবে। পড়াশুনার পাশাপাশি সে যেন মানুষের মতো মানুষ হতে পারে। আমি দোয়া করি ভালো একটা চাকরি পেয়ে সে নিজের জীবনকে যেন সুন্দর করে গড়ে তুলতে পারে এবং মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারে।

ভূগোল বিভাগের অধ্যাপক আ.ন.ম গাউছার রেজা বলেন, রুমানা ইয়াসমিন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৪ সালের অনার্স ৪র্থ বর্ষের ফলাফলে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। আমাদের বিভাগের একজন একনিষ্ঠ, দায়িত্ববান ও পরশ্রিমী ছাত্রী। সে নিয়মিত ক্লাস ও ক্লাসে অত্যন্ত মনোযোগি ছিল।

শিক্ষার প্রতি তার এ মনোযোগ ও আত্মবিশ্বাস যদি ধরে রাখতে পারে তাহলে সে অনেক বড় সাফল্য অর্জন করতে পারবে।
সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর লিয়াকত পারভেজ বলেন,‘আমাদের মূল কথা হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ বরাবরই কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জন করে আসছে। অনার্স পর্যায়ে আমাদের ভূগোল বিভাগের শিক্ষার্থী রুমনা ইয়াসমিন যে সাফল্য অর্জন করেছে এ জন্য কলেজের পক্ষ থেকে তাকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। তবে আমাদের কলেজের শিক্ষক ও আসন সংকট মারাত্বক রুপ নিয়েছে।

অনার্স পর্যায়ে প্রতি বিভাগে ১২ জন শিক্ষক থাকার কথা থাকলে এখানে আছে মাত্র ৩/৪ জন। আমরা আশাকরি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ যদি সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের অনার্স পর্যায়ে আসন বৃদ্ধি ও প্রয়োজনীয় শিক্ষক সংকট নিরসনে ভূমিকা রাখে তাহলে আমরা আরো ভালো ফলাফল করতে পারবো।
##