সাতক্ষীরা সীমান্তের জিরো পয়েন্টে দিনভর আটকা পড়লো ১৩ পাসপোর্ট যাত্রী


374 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা সীমান্তের জিরো পয়েন্টে দিনভর আটকা পড়লো ১৩ পাসপোর্ট যাত্রী
এপ্রিল ৬, ২০২০ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

॥ এম কামরুজ্জামান ॥
বিজিবি এবং ইমিগ্রেশনের সমন্বয়হীনতার কারনে সাতক্ষীরার ভোমরা সীমান্তের জিরো পয়েন্টে ১৩ জন পাসপোর্ট যাত্রীকে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত আটকিয়ে থাকতে হয়েছে। সোমবার (৬ এপ্রিল) সকাল থেকে ভোমরা ইমিগ্রেশন দিয়ে কোন পাসপোর্ট যাত্রীকে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেয়নি বিজিবি। ফলে ভোমরা সীমান্তের জিরো পয়েন্টে ১৩ জন পাসপোর্ট যাত্রী আটকা পড়ে। এদের মধ্যে ৬ জন নারী ও ৭জন পুরুষ। সীমান্তের জিরো পয়েন্টে সারাদিন আটকিয়ে থাকার পর বেলা পৌনে ৬ টার দিকে তাদেরকে প্রবেশের সুযোগ দেয়া হয়।

সাতক্ষীরার ভোমরা ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ সরকার ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে জানায় ‘ইমিগ্রেশন বন্ধের কোন নির্দেশ আমাদের কাছে আসেনি। এ ধরনের সরকারি কোন নির্দেশনা আমরা এখনো হাতে পাইনি। সকাল থেকে বিজিবি সদস্যরা জিরো পয়েন্টে পাসপোর্ট যাত্রীদের বাংলাদেশে প্রবেশ করতে বাঁধা দেয়। ফলে সকালে ১৩ জন পাসপোর্ট যাত্রী সীমান্তের জিরো পয়েন্টে পৌছে বিজিবির বাঁধারমুখে পড়ে। এসব পাসপোর্ট যাত্রীরা ভারতের ঘোজাডাঙ্গা কাস্টমস্ ও ইমিগ্রেশন থেকে নাম এন্টি করে বেরিয়ে আসে। ফলে ওই ১৩ জনকে তারা আর ভারতে প্রবেশের সুযোগ দেয়নি। বাধ্যহয়ে জিরো পয়েন্টে এসে তারা অবস্থান নেয়। বিকেল পৌনে ৬ টার দিকে তাদেরকে প্রবেশের সুযোগ দেয়ার জন্য আমাদের কাছে নির্দেশ আসে। এরপর তাদেরকে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে দেয়া হয়েছে’।

সাতক্ষীরা-৩৩ বিজিবির অধিনায়ক কর্নেল গোলাম মহিউদ্দিন কন্দকর ভয়েস অব সাতক্ষীরাকে বলেন ‘বিজিবির উদ্ধর্তন মহলের নির্দেশে ভোমরা সীমান্ত দিয়ে আর কোন পাসপোর্ট যাত্রীকে প্রবেশের সুযোগ দেয়া হবে না। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এই আদেশ বলবৎ থাকবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন বিজিবির উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে ওই ১৩ জনের বিষয়টি জানানো হয়। উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের নির্দেশে তাদেরকে প্রবেশের সুযোগ দেয়া হয়েছে। কাল থেকে আর একজন পাসপোর্ট যাত্রীকে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। যে ১৩ জনের আজ প্রবেশ করতে দেয়া হয়েছে তাদেরকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে’।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল বলেন, আজ যে ১৩ জন ভোমরা ইমিগ্রেশন দিয়ে প্রবেশ করেছে তাদেরকে সাতক্ষীরা যুবউন্নয়ন ভবনে স্থাপিত কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। তাদের যাতে সেখানে থাকতে কোন ধরনের সমস্যা না হয় সে বিষয়টি নজর দেয়া হবে। ১৪ দিন পরে তাদেরকে বাড়িতে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, ভারতে করোনা পরিস্থিতি দিন দিন খারাপ হচ্ছে। প্রতিদিনই সেদেশে লাফিয়ে লাফিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের কোন ইমিগ্রেশন দিয়ে ভারত সরকার একজন পাসপোর্ট যাত্রীকে নিচ্ছে না, তাই ভারতীয় নাগরিক হলেও। অথচ ভারত থেকে বাংলাদেশী পাসপোর্টধারীরা অবাধে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। গত ২২ মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত প্রায় আড়াই হাজার পাসপোর্ট যাত্রী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে ভোমরা ইমিগ্রেশন দিয়ে। এদের অধিকাংশের বাড়ি সাতক্ষীরার বিভিন্ন এলাকায়। এনিয়ে সাতক্ষীরার মানুষের মধ্যে করোনা আতঙ্ক বিরাজ করছে। সাধারণ মানুষের দাবি, ভোমরা ইমিগ্রেশন দিয়ে পাসপোর্ট যাত্রী আসা বন্ধ করা হোক।

#