সাতক্ষীরা-১ আসন নিয়ে মহাজোটে টানা হেচড়া !


802 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাতক্ষীরা-১ আসন নিয়ে মহাজোটে টানা হেচড়া !
নভেম্বর ১৮, ২০১৮ কলারোয়া তালা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

কে এম আনিছুর রহমান ::

সাতক্ষীরা-১ (জাতীয় সংসদ-১০৫) তালা-কলারোয়া আসনে আওয়ামী লীগসহ মজাজোটের শীরক দলের ১৯ জন নেতা মনোনয়ন প্রত্যাশী। জেলার অন্য তিনটি আসনের চেয়ে সবচেয়ে বেশি মনোনয়ন প্রত্যাশী এই আসনে। মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টি ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টিরও পছন্দের শীর্ষে রয়েছে এই আসনটি। নিজ দলের নাকি জোটের শরীক দলের প্রার্থী চূড়ান্ত হচ্ছে, সেটি নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

তবে আলোচনা-সমালোচনা যাই হোক, আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এই আসনটিতে জিতে আসতে পারবে এমন প্রার্থীর খোঁজে আছে দলটি। শক্ত প্রতিপক্ষ বিএনপিকে মোকাবেলায় যোগ্য প্রার্থীর সন্ধানে রয়েছে দলের হাইকমান্ড। সেই বিবেচনায় শেষ পর্যন্ত কার ভাগ্যের শিকে ছেঁড়ে সেটি দেখার অপেক্ষায় থাকতে হবে আরও কিছু দিন।

জানা গেছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনে সাতক্ষীরার একটি আসনে ভাগ বসাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টি এবং ওয়ার্কার্স পার্টি। আর এক্ষেত্রে শরীকদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে সাতক্ষীরা-১ আসন। আবার ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এই আসন ছাড়তে নারাজ আওয়ামী লীগও। এরই মধ্যে আওয়ামী লীগের ১৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী ফরম তুলেছেন।

তারা হলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সাবেক এমপি ইঞ্জিনিয়ার শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক এমপি আ’লীগ নেতা বি এম নজরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ কামাল শুভ্র, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক সরদার মুজিব, কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফিরোজ আহমেদ স্বপন, তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য আমজাদ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাডভোকেট অনিত মুখার্জী, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লায়লা পারভীন সেঁজুতি, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ হোসেন, হিন্দু,বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু, কলারোয়া উপজেলা আ.লীগের প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক মনিরুজ্জামান মন্ময়,কলারোয়া উপজেলা আ.লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ্ব শেখ আমজাদ হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা কামরুজ্জামান সোহাগ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আহসান কবীর টুটুল।

আ.লীগের সাবেক এমপি শেখ মুজিবুর রহমানসহ জনপ্রিয় নেতাদের পাশাপাশি নতুন মুখও রয়েছেন মনোনয়ন প্রত্যাশায়। তবে এবার দলের প্রার্থী নাকি আবার শরীককের ভাগে পড়ছে আসনটি, সেটি নিয়ে চলছে নানা আলোচনার ঝড়। তবে ভোটের রাজনীতিতে মহাজোটের শরীক জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কাস পাটি ছাড় দিতে নারাজ। তারা ওই আসনের দাবিদার।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক তথ্য মন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন। জাতীয় পার্টির এক’শ আসনের তালিকায় রয়েছে এই আসনটি। আবার বসে নেই বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টিও। মহাজোটের শরীক দল হিসেবে সাতক্ষীরার একটি আসন তারা দাবি করেছে। সেটি সাতক্ষীরা-১ আসন। ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য বর্তমান সংসদ এ্যাড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ ইতোমধ্যে গণসংযোগ শুরু করেছেন। তাই আসন ভাগাভাগিতে শেষ পর্যন্ত কার কপাল খোলে, সেটি দেখার জন্য আর কয়টা দিন অপেক্ষা করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ওয়ার্কাস পাটির নেতা এ্যাড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ বলেন, ১৪ দলের কাছে সাতক্ষীরার একটি আসন দাবি করেছি। আশা করি, আমরা ওই আসন পাব। তিনি আরও বলেন, দলীয় প্রার্থী বাছাই চলছে। এরপর জোটের আসন ভাগাভাগি হবে। এখনও জোটের আসন ভাগাভাগির বিষয়ে আলোচনা হয়নি।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক তথ্য মন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত বলেন, আমাদের পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ মহাজোটের কাছে ১০০টি আসন দাবি করেছেন। তার মধ্যে সাতক্ষীরা-১ আসন আছে। তছাড়া আমি দীর্ঘদিন ধরে সংগঠনের প্রার্থী হিসেবে কাজ করছি। গত ১০ বছর ধরে আমরা এই আসনটি দাবি করছি। আশা করছি, এবার আমরা পাব এবং জয়লাভ করব।
##