সাবেক এমপি হাবিবের বিরুদ্ধে জিডি


301 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাবেক এমপি হাবিবের বিরুদ্ধে জিডি
জুলাই ১, ২০২২ ফটো গ্যালারি সাতক্ষীরা সদর
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট ::

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় সাবেক বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল লতিফ।

বুধবার (২৯ জুন) সাতক্ষীরা সদর থানায় ওই জিডি রেকর্ড করা হয়।

জিডিতে সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল লতিফ উল্লেখ করেন, ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে কলারোয়া বিএনপি অফিসের সামনের রাস্তায় হাবিবুল ইসলাম হাবিবের নেতৃত্বে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা শেখ হাসিনার গাড়িবহরে গুলিবর্ষণ ও বোমা হামলা করেন। এ সংক্রান্ত দুটি মামলায় বুধবার সাতক্ষীরা বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-৩ এ সাক্ষীর জন্য দিন ধার্য ছিল। আদালতের কার্যক্রম চলাকালে অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম মুনির, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মুহাম্মাদ শাহীন মীরা, সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ হোসেন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বিচারক দুপুর আনুমানিক ১২টা ৪৫ মিনিটের দিকে মামলার পরবর্তী তারিখ আগামী ১৪ জুলাই ধার্য করে এজলাস কক্ষ ত্যাগ করছিলেন। এসময় আদালত কক্ষে থাকা মামলার আসামি হাবিবুল ইসলাম হাবিব এবং আরও কয়েকজন আসামি অতিরিক্ত অ্যাটর্নি এ এম মুনীরকে জীবননাশের হুমকি দেন, উচ্চস্বরে ভয়ভীতি দেখাতে থাকেন এবং বিভিন্ন জিনিসপত্র অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেলের দিকে নিক্ষেপ করতে থাকেন। এ ঘটনার কারণে মামলার পরবর্তী ধার্য দিনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও জোরদার করার কথা বলা হয়েছে জিডিতে।

জানতে চাইলে সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি আব্দুল লতিফ বলেন, সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ অন্যান্য আসামিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও বিস্ফোরক মামলায় বুধবার সাক্ষ্যগ্রহণের পর এজলাস কক্ষ ত্যাগ করার সময় হাবিবসহ আরও কয়েকজন আসামি অতিরিক্ত অ্যাটর্নি এ এম মুনীরকে জীবননাশের হুমকি দেন এবং বিভিন্ন জিনিসপত্র অতিরিক্ত আটর্নি জেনারেলের দিকে নিক্ষেপ করতে থাকেন। এ ঘটনায় আমি সাতক্ষীরা সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছি।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স ম কাইয়ূম বলেন, সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি আব্দুল লতিফ বাদী হয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।