সাহস থাকলে বিএনপি আন্দোলন করে দেখাক : কাদের


133 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সাহস থাকলে বিএনপি আন্দোলন করে দেখাক : কাদের
জুন ২২, ২০১৯ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি বারবার আন্দোলনের কথা বলে বেড়াচ্ছে। বিএনপির যদি সেই সক্ষমতা থাকে, সাহস থাকে– আন্দোলন করে দেখাক। ১০ বছরে তো ১০ মিনিটের একটি আন্দোলনও দেখা যায়নি।

শনিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রোববার আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

‘দলীয় চেয়াপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে বিএনপি আন্দোলন-সংগ্রাম আরও বেগবান করবে এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনেও যাবে’– দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, আন্দোলন করে তারা খালেদা জিয়াকে মুক্ত করুক! এমন আন্দোলনের কথা তো তারা বারবারই বলে বেড়াচ্ছে। এখনও পুরনো কথার পুনরাবৃত্তি শুনতে পাচ্ছি।

তিনি বলেন, বিএনপির গণতন্ত্র স্ববিরোধিতায় পরিপূর্ণ। তারা আন্দোলন কী করবে? মির্জা ফখরুল নিজেই নির্বাচনে জয়ী হয়ে সংসদে যোগ দিলেন না। অথচ সেই আসনের পুনর্নির্বাচনে প্রার্থী দিলেন। এটা কী গণতন্ত্র? এটা কোন ধরনের গণতন্ত্র? বিএনপির পাঁচজন সংসদে যোগ দিলেন, সংরক্ষিত মহিলা আসনে নির্বাচিত হলেন, শপথও নিলেন। কিন্তু দলের মহাসচিব সংসদে যোগ দিলেন না। এমন দ্বৈতনীতিই তাদের দলে। এ গণতন্ত্র হাস্যকর।

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, ৭০ বছরে আওয়ামী লীগের বড় অর্জন স্বাধীনতা ও মুক্তি। স্বাধীনতার পর দেশের মানুষের মুক্তির জন্য বঙ্গবন্ধু কাজও শুরু করেছিলেন। কিন্তু পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট তাকে হত্যা করার পর বাঙালি জাতিকে মুক্তি দেওয়ার আন্দোলন অনেকটা পিছিয়ে পড়ে। ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর আওয়ামী লীগের পথচলায় নতুন মাত্রা যোগ হয়। শেখ হাসিনা নির্বাচনে সফল, আন্দোলনেও সফল।

উপজেলা নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে কাদের জানান, বিদ্রোহীদের বিষয়ে আওয়ামী লীগ কঠোর হবে। দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পরবর্তী বৈঠকে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন মাহবুবউল-আলম হানিফ, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এ কে এম এনামুল হক শামীম, ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সুজিত রায় নন্দী, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, আমিনুল ইসলাম আমিন, এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ।