সিগারেটের চেয়েও ক্ষতিকর ধূপের ধোঁয়া


703 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সিগারেটের চেয়েও ক্ষতিকর ধূপের ধোঁয়া
আগস্ট ২৯, ২০১৫ ফটো গ্যালারি স্বাস্থ্য
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক :
মশা তাড়াতে গ্রামাঞ্চলে এখনও ধূপের ধোঁয়া বেশ জনপ্রিয়। অনেকে ধূপের ধোঁয়াকে পবিত্রতার প্রতিক মনে করেন। কেউ কেউ সকাল-সন্ধ্যা বাড়িতে ধূপের ধোয়া দেন। ধর্মীয় উপাসনার সময়ও এ ধোঁয়া ব্যবহৃত হয়। যারা ধূপের ধোঁয়া ব্যবহার করেন তাদের জানা জরুরি যে, এটা বিড়ি-সিগারেটের ধোঁয়া থেকে অনেক বেশি ক্ষতিকর। ঘটনার সত্য-মিথ্যা জানা নেই, তবে বিজ্ঞানীরা তো তাই দাবি করছেন।

তারা বলছেন, ধূপের ধোঁয়ায় এমনই ক্ষতিকর কিছু রাসায়নিক থাকে, যা আপনার DNA-র গঠনেও পরিবর্তন আনতে পারে।

ধূপের ধোঁয়া নিয়ে এ ধরনের গবেষণা অতীতে হয়নি কখনো। রং ঝউয়ের নেতৃত্বে সাউথ চায়না ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি এবং চায়না টোব্যাকো গুয়াংডং ইন্ডাস্ট্রিয়াল কোম্পানি যৌথভাবে এই গবেষণা চালায়।

গবেষকরা জানান, গোটা এশিয়াতেই ধূপ জ্বালানো একটা রেওয়াজ। শুধু পুজোঅর্চনার জন্যই যে, তা কিন্তু নয়। ধূপের সুগন্ধের কারণেও কেউ কেউ বাড়িতে ধূপ দেন। বিজ্ঞানীরা বলছেন, বাতাসে মিশে যাওয়া সেই ধূপোর ধোঁয়া প্রশ্বাসের সঙ্গে শরীরের অভ্যন্তরে ফুসফুসে যায়। তার পরেই, প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। কতটা দূষণ হয়, তা নিয়ে বিস্তারিত গবেষণার কাজ এখনও শেষ হয়নি। তবে, এখন পর্যন্ত যতদূর গবেষণা হয়েছে, তাতে বিজ্ঞানীদের দাবি, ফুসফুসে ক্যানসার, ছোটদের লিউকোমিয়া, এমনকী ব্রেন টিউমার পর্যন্ত হতে পারে।

দু-ধরনের ধূপ পরীক্ষা করেছেন বিজ্ঞানীরা। চন্দন ধূপ বলে যে ধূপ জ্বালানো হয়, তা যেমন নিরাপদ নয়, পাশাপাশি অন্যান্য সুগন্ধী ধূপও ততটাই ক্ষতিকারক। গবেষকদের কথায়, এই দু-ধরনের ধূপে এমন কিছু রাসায়নিক বৈশিষ্ট্য থাকে, যেটা জিনের (DNA) উপাদানে পরিবর্তন আনতে সক্ষম। যে কারণে বিড়ি-সিগারেটের ধোঁয়ার থেকেও এটা বেশি ক্ষতিকারক। মিউটাজেনিকস, জেনোটক্সিন ও সাইটোক্সিনের মতো ক্যানসার সৃষ্টিকারী সব উপাদানই রয়েছে এই ধূপের ধোঁয়ায়।—সুত্র বাংলাদেশ প্রতিদিন