সুন্দরবনের দুবলার চরে তিন দিনব্যাপী রাস উৎসব শুরু


267 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সুন্দরবনের দুবলার চরে তিন দিনব্যাপী রাস উৎসব শুরু
নভেম্বর ২৮, ২০২০ ফটো গ্যালারি সুন্দরবন
Print Friendly, PDF & Email

ডেস্ক রিপোর্ট ::

আজ থেকে সুন্দরবনের দুবলার চরে ৩ দিনব্যাপী রাস উৎসব শুরু হচ্ছে। রাস পূর্ণিমা উপলক্ষে আগামী ২৮ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত তিন দিনব্যাপী সুন্দরবনের দুবলারচরে ঐতিহ্যবাহী ‘রাস পূর্ণিমা পূণ্যস্নান’ অনুষ্ঠিত হবে। এ বছর সনাতন র্ধমালম্বীদের ‘রাস পূর্ণিমা পূণ্যস্নানে’ যাওয়ার অনুমতি ও রাস মেলা না হওয়ায় দর্শানার্থীর সংখ্যা অনেক কমে যাবে। এতে সুন্দরবনের জীববৈচিত্রের উপর প্রভাব পড়বে কম।

দুবলার চর সহ উপকূলের বিভিন্ন উপজেলায় রাস উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। শুক্লপক্ষের চাঁদের আলোয় শোভিত নিরব সুন্দরবন চরাঞ্চল সরব হয়ে উঠবে পূণ্যার্থীদের পূজা ও আরাধনায়। দূর্গম সাগর-প্রকৃতির অভাবমায় সৌন্দর্যের মাঝে পূর্ণ্য অর্জন আর সঞ্চার যেন মিলে মিশে একাকার হয়ে যায়। কার্তিক-অগ্রহায়ণে শুকা¬পক্ষের ভরাপূর্ণিমা সাগর উছলে ওঠে। চাঁদের আলোয় সাগর-দুহিতা দুবলার চরে আলোর কোল মেতে ওঠে রাস উৎসবে। বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ প্রাচীন সমুদ্র রাস উৎসব সুন্দরবনের সাগরদুহিতা দুবলারচরে অনুষ্ঠিত হয়। রাস উৎসব নিয়ে নানা মত রয়েছে। ধারণা করা হয় ১৯২৩ সালে ঠাকুর হরিচাঁদের অনুসরী হরি ভজন নামে এক হিন্দু সাধু এই উৎসব শুরু করেছিল। এই সাধু ২৪ বছরও বেশি সময় ধরে সুন্দরবনের গাছের ফল-মূল খেয়ে জবিন-যাপন করতেন। তিনি হরিচাঁদ ঠাকুরের স্বপ্নাদৃষ্টি হয়ে পূজা-পর্বনাদি ও অনুষ্ঠান শুরু করেন দুবলার চরে।

তারপর থেকে মেলা বসেছে লোকালয়ে এই মেলা নীল কোমল মেলা নামে পরিচিত। অন্যমত হিন্দু ধর্মালম্বীদের অবতার শ্রীকৃষ্ণ কোন এক পূর্ণিমা তিথিতে পাপমোচন এবং পূর্ণলাভে গঙ্গাøানের স্বপ্নাদেশ পান। সেই থেকে শুরু হয় রাস উৎসব। আবার কারও কারও মতে শারদীয় দুর্গোৎসবের পর পূর্ণিমা রাতে বৃন্দাবনবাসী গোপীদের সাথে রাসনৃত্যে মেতেছিলেন শ্রীকৃষ্ণ।বঙ্গোপসাগরের মোহনায় সুন্দরবনের দুবলাচরে ও আলোর কোলে রাস পুর্ণিমায় রাধাকৃষ্ণের পুজা, পুর্ণ্যøান অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষ্যে রাস উৎসবে পুর্ণিমা তিথিতে চরে নির্মিত মন্দিরে নামজ্ঞোগ্য, রাধাকৃষ্ণ, কমল কামিনি ও বনবিবির পূজা অনুষ্ঠিত হবে। অটুট বিশ্বাস আর পুর্ণ ভক্তিতে কমল কামিনীর দর্শন মেলে। পুণ্যার্থীরা কমল কামিনী দর্শনের আশায় নিলকোমলের সাগর মোহনায় সাগর ঢেউয়ে ম্লান করে। রাস পুর্ণিমায় প্রথম আসা সমুদ্র ঢেউকে নীলকমলের ঢেউ বলা হয়। এ বছর ১৩৭তম রাস উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। হিন্দুধর্মাবলম্বী লোকেরা পূর্ণিমার প্রথম প্রহরে সাগর জলে ¯œান করে মনোবাসনা পুর্ণ ও পাপমোচন হবে এ বিশ্বাস নিয়ে রাসমেলায় যোগদিলেও সময়ের ব্যবধানে এ উৎসব নানা ধর্ম ও বর্ণের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে।