সুন্দরবন থেকে আহরনকৃত অপদ্রব্য মিশ্রিত ১০ মন চিংড়ি মাছসহ ৮ জন আটক


146 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সুন্দরবন থেকে আহরনকৃত অপদ্রব্য মিশ্রিত ১০ মন চিংড়ি মাছসহ ৮ জন আটক
জুন ৩০, ২০২২ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি সুন্দরবন
Print Friendly, PDF & Email

শেখ মনিরুজ্জামান মনু ::

কয়রায় সুন্দরবন থেকে আহরণকৃত অপদ্রব্য মিশ্রিত দুই নছিমন ভর্তি ১০ মন চিংড়ি মাছসহ ৮ জনকে আটক করেছে।

জানা গেছে, গােপন সংবাদের ভিত্তিতে মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্যাহ আল মাহমুদের নেতৃত্বে ৩০ জুন ভাের ৪ টার দিকে মহারাজপুর ইউনিয়নের দেয়াড়া ও মাদারবাড়িয়া বাজার এলাকা থেকে সুন্দরবন থেকে আহরন কৃত অপদ্রব্য মিশ্রিত ২ টি নছিমন ভর্তি ১০ মন চিংড়ি মাছসহ ৮ জনকে আটক করে।

আটককৃতরা হলেন ৪ নং কয়রা গ্রামের রাকিব সরদারের ছেলে মিজানুর রহমান(২৮) একই গ্রামের আব্দুল হক সানার ছেলে আসাদুল ইসলাম(৩৭) মােকসেদ সানার ছেলে মােস্তফা সানা(৪০)মৃত হাসেম সানার ছেলে আসাদুল ইসলাম মিন্টু(৩৫) ও ৪ নং কয়রা গ্রামের ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ইব্রাহিম সানার ছেলে আবুল বাসার সানা(৫৫) এবং মঠবাড়ি গ্রামের ইসলাম গাজীর ছেলে আনারুল(৪০) মহারাজপুর গ্রামের শহর আলী গাজীর ছেলে সাইফুল্যাহ (৩০) ও কওছার গাজীর ছেলে মিলন গাজী(৩৭)।

খবর পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম,উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাস ও উপজেলা মৎস্য অফিসার মােঃ আমিনুল হক ঘটনা স্থলে যান। এবং আটককৃত চিংড়ি মাছ কেরোসিন দিয়ে মাটিতে পুতে বিনষ্ট করেন। পরবর্তীতে আটক ৮ ব্যাক্তির নিকট থেকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্যাহ আল মাহমুদ বলেন, জুন মাসের ১ তারিখ হতে ৩ মাস সুন্দরবনের সকল মাছ ধরা নিষিদ্ধ রয়েছে। সেই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বন বিভাগের সহযােগিতায় একটি সংঘ বদ্ধ চক্র প্রতিনিয়ত সুন্দরবনের নদী-খালে বিষ দিয়ে মাছ ধরে চড়া মুল্যে বিক্রি করছে।

কয়রা উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মােঃ আমিনুল হক বলেন, জুন মাস থেকে ৩ মাস সুন্দরবনের সকল প্রকার মাছ আহরন নিষিদ্ধ রয়েছ। তার পরেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যারা সুন্দরবন থেকে মাছ আহরন করছে তাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যহত রয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ্বাস ঘটনাস্থলে ঘােষনা দিয়েছেন যারা সুন্দরবন থেকে বিশ দিয়ে মাছ ধরবে তাদের সন্ধান দিলে তাদেরকে পুরস্কার দেয়া হবে।

#