সেই নায়ক আজ ‘খলনায়ক’


389 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সেই নায়ক আজ ‘খলনায়ক’
সেপ্টেম্বর ১, ২০১৫ খেলা ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

ভয়েস অব সাতক্ষীরা ডটকম ডেস্ক:

২০০৫ সালের ১৯ নভেম্বর। বার্সেলোনার কাছে ৩-০ গোলে পিছিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ। করতালিতে মুখর পুরো মাঠ। বার্সেলোনার হয়ে সেদিন অবিশ্বাস্য খেলছিলেন রোনালদিনহো। আর ১০ বছর পর ব্রাজিলিয়ান এই তারকার ভাগ্যে জুটল উল্টো অভিজ্ঞতা। ফ্লুমিনেন্সের হয়ে নিজের মাঠে নেমে শুনতে হয়েছে অপবাদ। যেন তিনিই খলনায়ক। আর করতালি নয়, বরাদ্দ কেবল ধিক্কার!

রোনালদিনহো, ব্রাজিল ফুটবলের তারকা খেলোয়াড়। ২০০২ সালে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ডেভিড সিম্যানকে বোকা বানিয়ে সেই অবিশ্বাস্য ফ্রি কিক দিয়ে প্রথম আলোচনায় আসেন তিনি। পরের বছর বার্সেলোনা তাঁকে লুফে নেয়। আর এখানেই তাঁর জাদুকর হয়ে ওঠার গল্পের শুরু। এক যুগ পর বার্সেলোনাকে চ্যাম্পিয়নস লিগও জিতিয়েছেন। কিন্তু ফর্মের চূড়ান্তে থেকে ২০০৬ সালের বিশ্বকাপে ব্রাজিলকে উপহার দিয়েছেন কেবল হতাশা। বিশ্বকাপের পরপরই যেন নিজেকেও হারিয়ে ফেলেন। ক্লাবের হয়ে ট্রেনিং করার চেয়ে নৈশক্লাবে আনা গোনাতেই আগ্রহ ছিল সবসময়। মেসির আজকের মেসি হয়ে ওঠার পেছনেও আছে তাঁর অবদান।

২০০১ সালে ইউরোপে পাড়ি জমিয়েছিলেন। ঠিক ১০ বছর পর আবারও ফিরলেন ব্রাজিলের ফুটবলে। সেখানেও একের পর ক্লাব পাল্টেছেন। চার বছরে চারবারের মতো ক্লাব পাল্টে এই মৌসুমেই ফ্লুমিনেন্সে যোগ দিয়েছেন। ফ্লুমিনেন্সের হয়ে ছয়টি ম্যাচও খেলেছেন। কিন্তু কোথায় সেই জাদু? কোথায় গোল? খেলার মতো ফিটনেসই নেই! গত রোববার সমর্থকদের সব বাঁধ যেন ভেঙে গেল। ৬৮ মিনিটে মাঠ থেকে বেরোনোর সময় ফ্লুমিনেন্সের দর্শকেরা রীতিমতো অপমানই করল দুই বারের ফিফা বর্ষসেরাকে। দুয়ো, ধিক্কার, গালাগালের বৃষ্টি। ক্লান্ত চোখে একবার সেদিকে তাকালেন। হেঁট মাথায় বেরিয়ে এলেন।—সুত্র:-বাংলাদেশ প্রতিদিন।