সোনাগাজীতে কিশোরীকে ধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার


163 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সোনাগাজীতে কিশোরীকে ধর্ষণে আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার
অক্টোবর ৯, ২০২০ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::

সোনাগাজীতে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে স্থানীয় এক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার তমিজ উদ্দিন নয়ন (৫০) সোনাগাজীর মতিগঞ্জ ইউনিয়নের ভাদাদিয়া গ্রামের চুনি মাঝির নতুন বাড়ির বাসিন্দা ও স্থানীয় ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। তিনি পেশায় একজন ফার্নিচার ব্যবসায়ী।

ধর্ষণের শিকার কিশোর স্কুলছাত্রী। তার বয়স ১৪ বছর। তমিজ উদ্দিন নয়ন তার বাবার চাচাতো ভাই। বৃহস্পতিবার ধর্ষণের শিকার কিশোরীর অভিযোগের ভিত্তিতে রাত ১১টার দিকে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোনাগাজী থানার ওসি (তদন্ত) আাবদুর রহিম সরকার জানান, এ ঘটনায় ওই কিশোরীর মা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করছেন। কিশোরীকে জবানবন্দি গ্রহণের জন্য ফেনীর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কিশোরীর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ সেপ্টেম্বর সকালে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় তাকে জোর করে বাজারের নিজ দোকানে নিয়ে ধর্ষণ করে নয়ন। তার ভয়ে মেয়েটি এতদিন মুখ বুজে ছিল। বৃহস্পতিবার সকালে কিশোরীটি এ ব্যাপারে তার মাকে জানালে ঘটনাটি প্রকাশ পায়। এটা নিয়ে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। তবে নয়ন প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ তার ব্যাপারে মুখ খুলতে রাজি হয়নি। পরে পরিবারের সদস্যরা থানায় গিয়ে অভিযোগ জানালে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে।

জানা গেছে, ওই কিশোরীর বাবা একজন কাঠুরে। তিনি গাছ কেটে জীবিকা নির্বাহ করেন। ঘটনার শিকার কিশোরী জানায়, এ ঘটনা কারও প্রকাশ করলে তার বাবাকে নয়ন কাজ বের করে দেওয়ার এবং তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেন নয়ন।

এ ঘটনায় পুলিশের দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সহকারী পুলিশ সুপার সাইকুল ইসলাম ভূইয়া (সোনাগাজী সার্কেল) ও থানা পুলিশ সদস্যদের প্রতি সন্তুষ্টি ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন কিশোরীর বাবা।

তবে গ্রেপ্তার নয়নের স্ত্রী রাশেদা আক্তার জানান, অভিযোগটি ভিত্তিহীন। ব্যবসায়ীক দ্বন্ধে তাদের কর্মচারীকে ফুসলিয়ে তার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। ডাক্তারি পরীক্ষা হলে মেয়েটি যে ধর্ষণের শিকার হয়নি সেটা প্রমাণিত হবে।