সোনার বাংলা গড়তে হলে নৌকায় ভোট দিতে হবে : ডাঃ রুহুল হক এমপি


398 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
সোনার বাংলা গড়তে হলে নৌকায় ভোট দিতে হবে : ডাঃ রুহুল হক এমপি
আগস্ট ২৭, ২০১৮ কালিগঞ্জ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

সোহরাব হোসেন সবুজ, নলতা:
নৌকা হল বাঙালীর উন্নয়নের প্রতীক। আর আ.লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা হল সেই উন্নয়নের কান্ডারী। এই অবহেলিত, নিষ্পেষিত গরীব দেশের যেভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়েছে, জনসাধারণের মানউন্নয়ন হয়েছে তা একমাত্র শেখ হাসিনা সরকারের দ্বারা সম্ভব। টানা প্রায় দশ বছরে আ.লীগ সরকার সফলভাবে ক্ষমতায় ছিল বলেই, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছানো সম্ভব হয়েছে। প্রান্তিক জনগষ্ঠির কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌছানো সম্ভব হয়েছে। শিক্ষা, চিকিৎসা সেবা, রাস্তাঘাট, সেতু থেকে শুরু করে সমাজ ও দেশের প্রত্যেকটি জায়গায় উন্নয়ন হয়েছে। মহাসাগর থেকে শুরু করে মহাকাশ পর্যন্ত এখন বাংলাদেশের বিচরণ। যা একমাত্র আ.লীগ সরকারের জন্যই সম্ভব হয়েছে বলে এসকল উন্নয়নের কথা সমাজের প্রান্তিক জনসাধারণের সামনে তুলে ধরেন সাবেক সফল স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডাঃ আফম রুহুল হক এমপি। ঈদ উপলক্ষে তিনি গ্রামের বাড়ীতে থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে যেয়ে উঠান বৈঠকের মাধ্যমে নারীদের সম্পৃক্ত করে সেখানে তিনি এসব উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন।
এসময় রুহুল হক এমপি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন সোনার বাংলা গড়ার। সেই সোনার বাংলা গড়ার কাজ সফল হতে চলেছে। সরকারের এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা আপনারা ধরে রাখুন। দেখবেন স্বপ্নের সেই সোনার বাংলায় আমরা বাস করছি। সেদিন আর বেশি দুরে নয়। সোনার বাংলার সেই চাবিকাঠি প্রতিটি বাঙালির দ্বারে কড়া নাড়ছে। তাই আপনারা স্বৈরাচারিদের কথায় কান দিয়ে, সহিংসতা, নাশকতাকারীদের কথায় কান দিয়ে দেশকে ধ্বংশ করে আর পিছনে যেতে দেবেন না। চলুন, আমরা একতাবন্ধ হয়ে এ সমাজকে এ দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে সোনার বাংলায় পরিণত করি বলে আহব্বান জানান রুহুল হক এমপি।
গতকাল নলতার বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে এই উঠান বৈঠকের সহযোগিতায় এসময় আফম রুহুল হক এমপি’র সাথে ছিলেন নলতা ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আনিছুজ্জামান খোকন, সহ সভাপতি তারিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল হোসেনসহ বিভিন্ন ওয়ার্ড আ.লীগের নেতাকর্মী ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। রুহুল হক এমপি’র এই নারী সম্পৃক্ততা ও গণসংযোগে এলাকাবাসীর মধ্যে বেশ সাড়া মিলেছে বলে মনে করেন স্থানীয়রা।

##