স্বর্ণপাম জিতল ‘শপলিফটারস’


395 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
স্বর্ণপাম জিতল ‘শপলিফটারস’
মে ২০, ২০১৮ ফটো গ্যালারি বিনোদন
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক ::
বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে মর্যাদার আসর কান চলচ্চিত্র উৎসবে সেরা ছবি নির্বাচিত হয়েছে ‘শপলিফটারস’। ফলে মর্যাদাপূর্ণ পাম ডি’অর বা স্বর্ণপাম পুরস্কার জিতেছে খ্যাতনামা জাপানি পরিচালক হিরোকাজু কোরে-এদার এই চলচ্চিত্র। খবর এএফপি ও দ্য গার্ডিয়ানের।

কান উৎসবের ৭১তম আসরে রানারআপ হয়েছে স্পাইক লির আলোচিত ছবি ‘ব্ল্যাকক্ল্যান্সম্যান’। তৃতীয় স্থান তথা গ্র্যান্ড জুরি পুরস্কার জিতেছে লেবাননের নাদাইন লাবাকির চলচ্চিত্র ‘ক্যাপারনম’।

শনিবার মধ্যরাতে ঘোষণা করা হয় মর্যাদাপূর্ণ এই পুরস্কারজয়ীদের নাম। এবার সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কারের জন্য লড়াইয়ে নেমেছিল ২১টি ছবি। ৮ মে বসেছিল কান উৎসব।

এবার সেরা অভিনেতার পুরস্কার জিতেছেন মার্সেলো ফন্টে। ডগম্যান চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি পেয়েছেন এই পুরস্কার। সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতেছেন কাজাখস্তানের সামাল ইয়েসলিয়ামোভা। আইকা চলচ্চিত্রে অসাধারণ অভিনয় করে তিনি এই সম্মাননা পেয়েছেন। সেরা পরিচালক হয়েছেন পোল্যান্ডের পাওলিকওয়স্কি। ‘ কোল্ড ওয়ার’ চলচ্চিত্র তাকে এই সম্মাননা এনে দেয়।

উৎসবে সেরা চিত্রনাট্যকারের পুরস্কার জিতেছেন যৌথভাবে ‘হ্যাপি অ্যাজ লাজারো’ চলচ্চিত্রের জন্য ইতালির অ্যালিস ররওয়াচার এবং থ্রি ফেসেস-এর জন্য ইরানি পরিচালক জাফর পানাহি ও নাদের সায়েভার।

ফ্রান্সের নদী-তীরবর্তী শান্ত শহরের এ অনুষ্ঠানে শনিবার রাতে বসেছিল তারার মেলা। এবার জুরি বোর্ডের প্রধান ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার অভিনেত্রী ও যৌন হয়রানিবিরোধী কর্মী কেট ব্ল্যানচেট। তার সঙ্গে ছিলেন ক্রিস্টেন স্টুয়ার্টসহ আরও কয়েকজন। মিডিয়া মোগল হার্ভে ওয়েনস্টিনের বিরুদ্ধে বহু নারীর যৌন নির্যাতনের তথ্য ফাঁস হওয়ার পর প্রথম কান উৎসবে ছিল ‘মি টু’ আন্দোলনের জয়জয়কার। পাম ডি’অরের জন্য যেসব ছবি নির্বাচিত হয়েছিল তার মধ্যে ছিল নারী পরিচালকদের তিনটি ছবি।

এবার উৎসবে আঁ সার্তেন রিগার্দ বিভাগে সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কার জিতেছে আলি আব্বাসির ‘বর্ডার’। শুক্রবার কানের স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৪টায় পালে দো ফেস্টিভ্যাল ভবনের সাল দুবুসি থিয়েটারে এ বিভাগের পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

ইরানি বংশোদ্ভূত ডেনিশ পরিচালক আলি আব্বাসির প্রথম ছবি ‘শেলি’ ২০১৬ সালে বার্লিন উৎসবে ছিল সবার মুখে মুখে। এবার ‘বর্ডার’ দিয়ে কানে আঁ সার্তেন রিগার্দের বিচারকদের মন কেড়ে নিলেন তিনি। ফলে তার হাতেই উঠল এ বিভাগের সেরা ছবির পুরস্কার।

‘বর্ডার’ ছবির ব্যাপ্তি ১ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট। এর গল্প সুইডিশ কাস্টমস অফিসার টিনাকে ঘিরে। কেউ কিছু লুকিয়ে রাখলে তা ধরে ফেলার অসাধারণ ঘ্রাণশক্তি আছে তার। কিন্তু নিজের মতো অদ্ভুত দেখতে ভোরির বেলায় তার দক্ষতা প্রথমবারের মতো চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে। সে বুঝতে পারে মানুষটি কিছু লুকাচ্ছে; কিন্তু ধরতে পারে না। এর চেয়ে হতবাক করার মতো ব্যাপার হলো, ভোরির প্রতি অদ্ভুত একটা আকর্ষণ কাজ করে তার মধ্যে।

ছবিটির চিত্রনাট্য তৈরি হয়েছে সুইডিশ কথাশিল্পী জন আইবাদে লিনকিচের উপন্যাস অবলম্বনে। আঁ সার্তেন রিগার্দে এবার জমা পড়েছিল দুই হাজার ছবি। এর মধ্যে নির্বাচিত হয় ১৮টি চলচ্চিত্র। মোট ছয়জন পরিচালকের প্রথম ছবি ছিল তালিকায়। গত ১০ মে প্রদর্শিত হয় এ বিভাগের উদ্বোধনী ছবি ‘ডনবাস’। এ ছবির সুবাদে সেরা পরিচালক হয়েছেন রাশিয়ার সের্গেই লজনিৎসা। জুরি স্পেশাল প্রাইজ পেয়েছে পর্তুগালের জোয়াও সালাভিজা ও ব্রাজিলের নারী নির্মাতা রেনে নাদের মেসোরার ‘দ্য ডেড অ্যান্ড দ্য আদারস’। এর গল্প ব্রাজিলের ১৫ বছর বয়সী আদিবাসী কিশোর আইজ্যাককে ঘিরে। বাবাকে হারানোর পর থেকে দুঃস্বপ্ন তাড়া করে তাকে। চেনা মানুষ ও সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে সমকালীন ব্রাজিলের শহরে আদিবাসী হিসেবে বেঁচে থাকার বাস্তবতা উপলব্ধি করতে থাকে সে।

এবারের আসরে আঁ সার্তেন রিগার্দে বিচারকদের সভাপতি ছিলেন পুয়ের্তোরিকান-আমেরিকান অভিনেতা বেনিসিও দেল তোরো। তিনিই ঘোষণা করেন সেরা ছবির নাম।