স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করে তিন সন্তান নিয়ে স্ত্রী পালিয়ে বেড়াচ্ছে


337 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করে তিন সন্তান নিয়ে স্ত্রী পালিয়ে বেড়াচ্ছে
নভেম্বর ২৩, ২০১৫ খুলনা বিভাগ ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

খুলনা প্রতিনিধি :
স্বামীর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করায় নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছেন খুলনা মহানগরীর হাজী মহসিন রোড এলাকার মাহমুদা আকবারী পারভিন ও তার তিন সন্তান। তাদেরকে প্রতিনিয়ত হুমকি-ধামকি দেয়া হচ্ছে। সোমবার তিনি খুলনা প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করতে আসলে তার স্বামী হারুণ-আল-রশীদ লোকজন নিয়ে পাশের একটি হোটেলে অবস্থান নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন পন্ড করার চেষ্টা চালান। কিন্তু সাংবাদিকদের তৎপরতার কারণে তিনি সটকে পড়েন।

সাংবাদিক সম্মেলনে মাহমুদা আকবারী পারভিন বলেন, আমার আপন চাচাতো ভাই হারুণ – আল – রশীদের সাথে ১৯৮৬ সালের ১৯ ডিসেম্বর আমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর আমাদের দুটি ছেলে ও একটি মেয়ে জন্মগ্রহণ করে। মেয়েটি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত। আমরা ৩০ বছর ঘর সংসার করেছি। কিন্তু আমার স্বামী পরকীয় প্রেমে আসক্ত হয়ে আমার উপর অত্যাচার নির্যাতন শুরু করে।

ছেলে মেয়েদের খোরাকী বন্ধ করে দেয়। আমি অনেক কষ্টে সন্তানদের ভরন-পোষণ ও লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছি। এর ফলে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি আমাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়। কিন্তু সমাজের সামাজিকতা ও মান-সম্মানের বিষয়গুলি আমার সামনে তুলে ধরে এবং সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অত্যান্ত সুকৌশলে আমাকে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি পুনরায় বিয়ে করে। নিকাহনামায় দেনমোহর হিসাবে দশ লাখ টাকার পরিবর্তে জমি উসুল হিসাবে প্রদান করেন। কিন্তু আমি ও আমার সন্তানদের সাথে নানা নাটক করে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলা বটিয়াঘাটা উপজেলার কল্যাণশ্রী গ্রামের হাফিজা খাতুনকে গত ২২ মার্চ বিয়ে করে। বিয়ের পর আমাদের উপর শুরুহয় অমানুষিক নির্যাতন।

হাজী মহসীন রোডের বাহাদুর ১৩/১ বাহাদুর লেনের বাড়ী থেকে আমাদের বের করে দেয়ার চেষ্টা করা হয়। আমাকে চুলের মুঠি ধরে ঘর থেকে টেনে হেচঁড়ে বের করে আশ পাশের মানুষের সামনে বেধরক মারপিট করা হয়। বিভিন্ন সময়ে আমার বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া মেয়েকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। যা মোবাইল ফোনে রেকডিং করা আছে। এছাড়া আমাদের বাড়ী থেকে বের করে দিয়ে একতলা ভবনটি ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়, যাতে আমরা পুনরায় ঘরে উঠতে না পারি। এভাবে দিনের পর দিন আমাদের উপর অত্যাচার নির্যাতন চলতে থাকে। উপায়ন্তু না দেখে গত ২৯ অক্টোবর আমি বাদি হয়ে খুলনা থানায় হারুন-আল- রশীদকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করি। এ মামলায় আসামি গ্রেফতারও হয়। আদালত থেকে জামিনে বেরিয়ে এসে হারুণ-আল-রশীদ আমার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা ও অভিযোগ করতে থাকে। গত ৯ নবেম্বর আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে আমার কলঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করে।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, হারুণ -আল-রশীদের বিরুদ্ধে দেওয়ানী মামলা এবং সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে মামলা রয়েছে। একাধিক মামলার আসমি থাকা সত্তেও জামিন নিয়ে এসে আমার নামে মিথ্যা মামলা ও জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলেছে। বাড়ীর বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেয়ায় ২৫ দিন ধরে আমরা আতংকের মধ্যে রয়েছি। রাতের অন্ধকারে আমার সন্তানদের ক্ষতি করার আশংকা করছি।#