হজ ফ্লাইট শুরু ৪ অগাস্ট


279 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
হজ ফ্লাইট শুরু ৪ অগাস্ট
জুন ৭, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক :
চলতি বছর হজযাত্রীদের নিয়ে বাংলাদেশ থেকে প্রথম উড়োজাহাজ ৪ অগাস্ট উড়াল দেবে বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে হজ নিয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

বিমানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ থেকে হজযাত্রীদের নিয়ে যাওয়ার জন্য বিশেষ ফ্লাইট চলবে ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। আর ফিরতি ফ্লাইট ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে।

“অন্য বছরের মতো এবারও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্স অর্ধেক হজযাত্রী পরিবহন করবে।”

মেনন জানান, ৫ লাখ ২ হাজার ৬৪ জন হজযাত্রীকে সৌদি আরবে নিয়ে যাবে বিমানের ১১২টি বিশেষ ফ্লাইট ও ৩২টি নির্ধারিত ফ্লাইট। আর ফিরতি যাত্রীদের জন্য থাকবে ১০৫টি বিশেষ ফ্লাইট ও ২৯টি নির্ধারিত ফ্লাইট।

বিমানমন্ত্রী বলেন, “চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে আরও মানুষ হজে যাওয়ার সুযোগ পাবে কি না সৌদি সরকার তা জুন মাস নাগাদ জানাবে।”

গত কয়েক বছরের মতো এবারও হাজিদের আগেই জমজমের পানি আসবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, হজযাত্রীরা ফেরত এলে বিমানবন্দরে তাদের হাতে ওই পানি তুলে দেওয়া হবে।

কম্বল-জায়নামাজ ভরে লাগেজের আকার বড় না করতে হাজীদের প্রতি অনুরোধ জানান মেনন।

“দুটি লাগেজের ওজন ৪৬ কেজির বেশি হতে পারবে না, কোনো বাড়তি লাগেজ আমরা অ্যালাও করব না। লাগেজের শেইপও গুরুত্বপূর্ণ।

“কারণ বিশ্বে সন্ত্রাসবাদের যে প্রকোপ রয়েছে তাতে বিমান পথে এই সন্ত্রাসবাদী ঘটনার সম্ভাবনা থাকায় চেকিং বেড়ে গেছে। সুতরাং লাগেজের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

“আমরা হজযাত্রীদের ‍অনুরোধ জানাব, তারা যেন বাড়তি কোনো লাগেজ সেখান থেকে নিয়ে না আসেন। … লাগেজ নিয়ে প্রতিবারই ঝামেলা তৈরি হয়। তাই সুন্দর সাইজের দুটো প্যাকেট আসবে।”

সৌদি সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী এবার সংক্ষিপ্ত হজ প্যাকেজ রাখা হয়নি বলেও জানান মেনন।

তিনি বলেন, তথ্য ও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় হজযাত্রীদের জন্য নির্দেশনামূলক একটি ভিডিও তৈরি করা হচ্ছে।

“গত বছরের কিছু বিপর্যয় বাদে হজ পালনে আমরা সুনাম অর্জন করেছি। এবারও আমরা সেটা করতে চাই। আমরা আশা করছি, প্রতিবারের মতো এবারও সুষ্ঠুভাবে হজ সম্পন্ন হবে।”

ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান, বিমান সচিব এস এম গোলাম ফারুক, ধর্ম সচিব মো. আব্দুল জলিল ছাড়াও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিমান ও সৌদি এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তারা সভায় উপস্থিত ছিলেন।

সৌদি আরবের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, এবার বাংলাদেশ থেকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৯১ হাজার ৭৫৮ জন এবং সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ হাজার মানুষ হজে যেতে পারবেন।

মন্ত্রিসভা গত ১১ জানুয়ারি যে হজ প্যাকেজ অনুমোদন করেছে, তাতে এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় কোরবানিসহ প্যাকেজে ৩ লাখ ৬০ হাজার ২৮ টাকা এবং কোরবানি ছাড়া প্যাকেজে ৩ লাখ ৪ হাজার ৯০৩ টাকা খরচ হবে।

আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মূল খরচ ধরা হয়েছে ১ লাখ ৫৫ হাজার ৪৪১ টাকা। এর সঙ্গে খাওয়া-বাড়ি ভাড়া যোগ করে এজেন্টরা প্যাকেজ ঠিক করবে।

চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর (৯ জিলহজ) হজ হওয়ার কথা রয়েছে।