‘হত্যাকা-ের দায় রাষ্ট্রকেই নিতে হবে’


359 বার দেখা হয়েছে
Print Friendly, PDF & Email
‘হত্যাকা-ের দায় রাষ্ট্রকেই নিতে হবে’
মে ২৬, ২০১৬ জাতীয় ফটো গ্যালারি
Print Friendly, PDF & Email

শাবি প্রতিনিধি :
সারাদেশে একের পর এক বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড চলছে। এসকল হত্যাকা-ের দায় রাষ্ট্রকে নিতে হবে। একের পর এক নেক্কারজনক ঘটনার পর সরকারের নীতিনির্ধারকরা কান্ডজ্ঞানহীন বক্তব্য দিচ্ছেন। যা আসলেই খুবই দুঃখজনক ও বেদনার। এই কারণেই আমাদের দেশ স্বাধীন হয়নি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পিছনেও পাহাড়িদের অবদান রয়েছে।
সাম্প্রতিক বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বৌদ্ধ ভিক্ষু হত্যাসহ সকল বিচার বহির্ভূত হত্যাকা-ের প্রতিবাদে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) মৌন মিছিল ও পথসভা শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন বক্তারা।
বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে পাহাড়ি শিক্ষার্থীরা এক মৌন মিছিল বের হয়ে ক্য্যম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের আয়োজন করে।
সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তুহিন ত্রিপুরার সভাপতিত্বে ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী পরেশ চাকমার সঞ্চালনায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে আইপিই বিভাগের অনেষ চাকমা, গণিত বিভাগের রুপেল চাকমা, শাবি সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক আহ্বায়ক সারোয়ার তুষার, জাতীয় ছাত্রদল শাবি শাখার সভাপতি শাহাদাত হোসাইন, ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী সাগরিকা চৌধুরী ও গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী কেলি চাকমা সহ শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
সাম্প্রতিক বান্দরবন জেলার থানছি উপজেলার দুর্গমাঞ্চলের গ্রামগুলোতে খাদ্য সংকটে অনাহারে দিন কাটাচ্ছে পাহাড়িরা। বৈরী আবহাওয়ার কারণে জুমের ফসল ঘরে তুলতে না পারায় এ বছরের মার্চ মাস থেকে খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। সরকারকে পাহাড়িদের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ করে বলেন, শুনেছি সরকারের অনেক চাল মজুদ আছে এবং সেই সাথে অর্থনৈতিক জিডিটি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এগুলো দিয়ে সরকার কি করবেন? যদি না মানুষ বেঁচে থাকে।
গত ১৩ মে রাতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের চাকপাড়া বৌদ্ধ মন্দিরের মংশৈ উ চাক নামে এক বৌদ্ধ ভিক্ষুকে নিজ ধ্যান ঘরে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।